চবিতে যৌন নিপীড়ন: গ্রেপ্তারকৃতদের দাবি, তারা ছাত্রলীগে যুক্ত

এই ঘটনার ‘হোতা’ আজিমকে ছাত্রলীগের সমর্থক হিসেবে স্বীকার করলেও চবি ছাত্রলীগ সভাপতি বলেছেন, এই অপকর্মের দায় সংগঠন নেবে না।

চট্টগ্রাম ব্যুরোবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 23 July 2022, 08:33 AM
Updated : 23 July 2022, 08:33 AM

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীকে যৌন নিপীড়নের অভিযোগে গ্রেপ্তার যুবকরা নিজেদের ছাত্রলীগের কর্মী বলে দাবি করেছেন।

তাদের গ্রেপ্তারের পর সংবাদ সম্মেলনে আসা র‌্যাব কর্মকর্তারা এই তথ্য জানিয়েছেন।

তবে ছাত্রলীগে তাদের কোনো পদ নেই বলে তাদের সংগঠনটির কর্মী হিসেবে তুলে ধরতে চাননি র‌্যাব-৭ এর অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল এম এ ইউসুফ।

এই ঘটনার ‘হোতা’ হিসেবে গ্রেপ্তার মোহাম্মদ আজিমকে ছাত্রলীগের সমর্থক হিসেবে স্বীকার করলেও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি রেজাউল হক রুবেল বলেছেন, এই অপকর্মের দায় সংগঠন নেবে না।

গত ১৭ জুলাই রাতে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের হতাশার মোড় থেকে হলে ফেরার পথে এক ছাত্রী ও তার বন্ধুকে আটকে বোটানিক্যাল গার্ডেন এলাকায় নিয়ে যৌন নিপীড়ন করে কয়েকজন। ওই ছাত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টাও করা হয় বলে অভিযোগ।

পরে ওই শিক্ষার্থী বিশ্ববিদ্যালয়ে অভিযোগ করলে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। ২০ জুলাই ওই শিক্ষার্থী হাটহাজারী থানায় মামলা করেন।

এই ঘটনায় শিক্ষার্থীদের ক্ষোভ-বিক্ষোভের মধ্যে চারজনকে গ্রেপ্তারের কথা জানিয়ে শনিবার র‌্যাব-৭ এর চান্দগাঁও ক্যাম্পে সংবাদ সম্মেলনে আসেন বাহিনীর কর্মকর্তারা।

গ্রেপ্তার তাদের মধ্যে দুজন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়েরই ছাত্র। তবে অভিভাবকের চাকরি সূত্রে তারা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় থাকেন। অন্য দুজন হাটহাজারী কলেজের ছাত্র।

গ্রেপ্তার বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র দুজনের মধ্যে মোহাম্মদ আজিমকে (২৩) ঘটনার হোতা বলছে র‌্যাব। ইতিহাস বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের এই ছাত্রের বাড়ি নোয়াখালীর হাতিয়ার চর ভারত সেনে। তার বাবার নাম আমির হোসেন। এখন হাটহাজারীর ফতেহপুরে থাকেন তারা।

গ্রেপ্তার নুরুল আবছার বাবু (২২) বিশ্ববিদ্যালয়ের নৃবিজ্ঞান বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র। তার বাবা বেলায়েত হোসেন ফেনীর পরশুরামের বেড়াবাড়ির বাসিন্দা। এখন থাকেন হাটহাজারীর ফতেহপুরে।

গ্রেপ্তার অন্য দুজনের মধ্যে নূর হোসেন শাওন (২২) হাটহাজারীর ফতেহপুরের জাবেদ হোসেনের ছেলে। তিনি হাটহাজারী কলেজের সমাজ বিজ্ঞানের প্রথম বর্ষের ছাত্র।

গ্রেপ্তার মাসুদ রানা (২২) হাটহাজারী কলেজের স্নাতক দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র। তিনি ঝালকাঠির আশিয়ার গ্রামের আব্দুল মান্নানের ছেলে।

গ্রেপ্তার ব্যক্তিদের রাজনৈতিক পরিচয় সাংবাদিকরা জানতে চাইলে র‌্যাব-৭ এর অধিনায়ক ইউসুফ বলেন, তারা নিজেরা ছাত্রলীগে যুক্ত বলে দাবি করেছেন। তবে তাদের কোনো পদ-পদবি নেই।

“আজিম নিজেকে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় সভাপতির অনুসারী ও অন্যরা অপর পক্ষের বলে দাবি করেছেন। যেহেতু তাদের কোনো পদ-পদবি নেই, তাদের তাদের আমরা কোনো দলের কর্মী বলতে পারি না।”

Also Read: চবি ছাত্রলীগ সভাপতি রুবেলকে কেন্দ্রের নোটিশ

ঘটনার পরদিন ১৮ জুলাই বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে ওই ছাত্রী লিখিত অভিযোগ দিতে গেলে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি রেজাউল হক রুবেল বাধা দিয়েছিলেন বলে ওই ছাত্রীর এক বন্ধু অভিযোগ করেছিলেন।

তা নিয়ে রুবেল সমালোচনায় পড়েন। এর মধ্যে তাকে কারণ দর্শাও নোটিসও দেয় কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ।

আজিম তার অনুসারী কি না- প্রশ্ন করা হলে রুবেল শনিবার বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “আজিম আমার অনুসারী না। সে সিএফসি গ্রুপের অনুসারী।”

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ট্রেনের বগিভিত্তিক দলের একটি ‘সিএফসি’, ছাত্রলীগের কমিটি না থাকার সময় থেকে এই সংগঠনের নেতারাই এই দলের নেতৃত্ব দিচ্ছেন।

রুবেল নিজেও এক সময় ‘সিএফসি’র নেতৃত্বে ছিলেন। এখন তিনি বলছেন, “এক সময় আমি যুক্ত থাকলেও বর্তমানে আমি চবি ছাত্রলীগের নেতৃত্ব দিচ্ছি। কোনো গ্রুপের অপকর্মের দায় আমি নেব না। আজিম যদি অপরাধ করে তাহলে তার বিচার হবে। এক্ষেত্রে সংগঠন কারও দায় ভার নেবে না।”

ফেইসবুকে আজিমের সঙ্গে রুবেলের ছবি এই ঘটনার পর সামনে এসেছে। তা নিয়ে প্রশ্নে তিনি বলেন, “ছাত্রলীগের সভাপতি হওয়ার পর অনেকে আমার সাথে ছবি তু্লতে আসে, আমি না করতে পারি না।”

রুবেল দাবি করেন, তিনি আজিমকে ধরিয়ে দিতে তথ্য দিয়ে র‌্যাবকে সহায়তা করেছেন।

ওই ছাত্রীকে অভিযোগ দিতে বাধা দেওয়ার অভিযোগ এর আগেই অস্বীকার করেন রুবেল।

২০১৯ সালের ১৪ জুলাই রেজাউল হক রুবেলকে সভাপতি ও ইকবাল হোসেন টিপুকে সাধারণ সম্পাদক করে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের কমিটি ঘোষণা হয়েছিল। এক বছরের জন্য গঠিত এই কমিটি তিন বছরেও পূর্ণাঙ্গ হয়নি।

রুবেল চট্টগ্রামের স্থানীয় রাজনীতিতে প্রয়াত এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরীর ধারার অনুসারী হিসেবে পরিচিত।

র‌্যাবের সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, শুক্রবার রাতে চট্টগ্রামের রাউজান ও হাটহাজারী উপজেলার বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।

আজিমকে ‘মূল অভিযুক্ত’ উল্লেখ করে র‌্যাব-৭ এর অধিনায়ক বলেন, “ঘটনার পর সে রাউজানে তার ফুপুর বাড়িতে আত্মগোপন করেছিল।”

আজিমকে জিজ্ঞাসাবাদ করে এই ঘটনায় মোট ছয়জনের সম্পৃক্ততা পাওয়া গেছে বলে জানান তিনি।

“তাদের মধ্যে চারজনকে গ্রেপ্তার করা হলেও সাইফুল নামের দুইজনকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।”

তাদের কাছ থেকে দুটি মোটর সাইকেল এবং তিনটি মোবাইল ফোন উদ্ধারের কথা জানিয়েছে র‌্যাব।

ঘটনার বর্ণনা দিয়ে লেফটেন্যান্ট কর্নেল ইউসুফ বলেন, ঘটনাটি ‘পূর্ব পরিকল্পিত’ ছিল না। গ্রেপ্তার হওয়ারা রাতের বেলায় ক্যাম্পাসে আড্ডা দিতেন। দুটি মোটর সাইকেলে করে তারা ওই পথে যাচ্ছিলেন।

“সেসময় ভিকটিম ছাত্রীকে তার এক বন্ধুসহ ওই এলাকায় দেখতে পেয়ে জেরা করতে থাকেন। এ সময় ওই ছাত্রী তাদের বাধা দেয়ায়, তারা মারধর শুরু করে এবং তার বন্ধুকে বেঁধে রাখে। ওই ছাত্রীকে শ্লীলতাহানি করে আজিম নিজের, ওই ছাত্রীর এবং ছাত্রীর বন্ধুর মোবাইলসহ মোট তিনটি মোবাইলে অশ্লীল ভিডিও ধারণ করে। এসময় তাদের একজন ওই ছাত্রীকে শারীরিক সম্পর্ক করতে চাপ দেয় এবং ভিডিও ছড়িয়ে দেওয়ার হুমকি দেয়।”

প্রায় ঘণ্টাখানেক আটকে রেখে তারা ওই ছাত্রী এবং তার বন্ধুর কাছ থেকে নগদ ১৩ হাজার ৭০০ টাকা ও মোবাইল ফোন নিয়ে যায় বলে জানান র‌্যাবের এই কর্মকর্তা।

তিনি বলেন, “ঘটনার পরপর ভিকটিম ট্রমার মধ্যে ছিল। তার সাথে কথা বলে আশেপাশের বিভিন্ন ঘটনা পর্যালোচনা করে ছয়জনকে শনাক্ত করা হয়।

“প্রথম থেকে আমরা মাথায় রেখেছি নিরীহ কেউ যেন এ ঘটনায় জড়িয়ে না পড়ে। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন আমাদের বিভিন্ন বিষয়ে সহায়তা করেছেন। পাশাপাশি রাজনৈতিক সংগঠনগুলো বিভিন্নভাবে সহায়তা করেছেন আসামি শনাক্তে।”

আরও খবর

Also Read: ‘১০টায় হলে ঢোকানো সমাধান নয়’- বিক্ষোভে চবি ছাত্রীরা

Also Read: চবি ক্যাম্পাসে যৌন নিপীড়ন, প্রতিবাদে শিক্ষার্থীরা

Also Read: চবি ক্যাম্পাসে শিক্ষার্থী যৌন নিপীড়নের শিকার

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক