এক সিরিজেই আফ্রিদির নেতৃত্ব নিয়ে অনিশ্চয়তা

শাহিন শাহ আফ্রিদিকে পাকিস্তানের টি-টোয়েন্টি দলের নেতৃত্বে নাও রাখা হতে পারে বলে ইঙ্গিত দিলেন পিসিবির নতুন চেয়ারম্যান।

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 25 March 2024, 05:58 AM
Updated : 25 March 2024, 05:58 AM

পাকিস্তান টি-টোয়েন্টি দলের অধিনায়কত্ব পাওয়ার পর শাহিন শাহ আফ্রিদি বলেছিলেন, লম্বা সময়ের জন্য এই দায়িত্ব চান তিনি। কিন্তু তার সামনে এখন অপেক্ষায় উল্টো কিছুর খড়গ। পাকিস্তান ক্রিকেটের বোর্ডের (পিসিবি) নতুন চেয়ারম্যান মহসিন নাকভি যেরকম ইঙ্গিত দিলেন, তাতে আফ্রিদির নেতৃত্ব সুতোয় ঝুলছে।

 

মাত্রই গত নভেম্বরে নেতৃত্ব পেয়েছেন আফ্রিদি। আগামী টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপেও তার নেতৃত্বে খেলবে পাকিস্তান, এমনটাই ছিল অনুমিত। কিন্তু পাকিস্তান জাতীয় দলের নতুন নির্বাচক কমিটির দায়িত্ব গ্রহণের আয়োজনে এসে সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে ভিন্ন কিছুর আভাস দিলেন পিসিবি চেয়ারম্যান।

“এমনকি আমিও জানি না, কে অধিনায়ক হবেন (বিশ্বকাপে)। শাহিনই নেতৃত্বে থাকবে নাকি নতুন কাউকে আনা হবে, সেটা চূড়ান্ত করা হবে ফিটনেস ক্যাম্পের পর।”

“বেশ কিছু টেকনিক্যাল দিক বিবেচনা করে আমরা সিদ্ধান্ত নেব, সেসবের গভীরে যেতে চাই না আমি। আমরা দীর্ঘমেয়াদি সমাধান চাই, সেটা শাহিনই হোক বা নতুন কেউ। তার পর আমরা তাকে ধরে রাখতে চাই, একটি-দুটি ম্যাচ হারলেই বদল করতে চাই না।”

কৌতূহল জাগানিয়া ব্যাপার হলো, আফ্রিদিকে নেতৃত্ব দেওয়ার সময় ঠিক এই ব্যাপারগুলিই বিবেচনায় নেওয়া হয়েছিল। আগের অধিনায়ক বাবর আজম অনেকটা অনিচ্ছাকৃতভাবেই অধিনায়কত্ব ছেড়েছিলেন, যখন বুঝতে পেরেছিলেন যে, পরিবর্তন আনা হচ্ছেই। এরপর দীর্ঘমেয়াদি ভাবনা থেকেই ২৩ বছর বয়সী আফ্রিদির কাঁধে এই ভার দেওয়া হয়। লম্বা সময় ধরে তিনি আস্তে আস্তে শিখে নেতৃত্বে পোক্ত হওয়ার পাশাপাশি দল গড়ে তুলবেন, এমন ভাবনাই ছিল তখন। কিন্তু পাকিস্তান ক্রিকেটের চিরায়ত ধারা মেনেই পাশার দান উল্টে গেছে দ্রুত।

আফ্রিদির নেতৃত্বে একটি সিরিজই খেলেছে পাকিস্তান। নভেম্বরে নিউ জিল্যান্ড সফরে ওই সিরিজে ৪-১ ব্যবধানে হারে তারা। অধিনায়ক হিসেবে আফ্রিদির টেকনিক্যাল সামর্থ্য নিয়ে প্রশ্ন উঠে যায় দ্রুতই। তার জন্য পরিস্থিতি আরও নাজুক হয়ে ওঠে এবারের পিএসএলে। আগের দুই আসরে তার নেতৃত্বে টানা শিরোপা জয় করে লাহোর কালান্দার্স। কিন্তু এবার ১০ ম্যাচে স্রেফ একটি জিতে আসর শেষ করে তারা তলানিতে থেকে।

এরপরই আফ্রিদির নেতৃত্বে ভবিষ্যৎ নিয়ে প্রশ্ন উঠতে থাকে পাকিস্তান ক্রিকেটে। মহসিন নাকভির মন্তব্য সেই আলোচনাগুলোকেই আরও প্রতিষ্ঠিত করল।

পিএসএল শেষে পাকিস্তান দলের বিশ্বকাপ প্রস্তুতি শুরু হচ্ছে ফিটনেস ট্রেনিং দিয়ে। দেশটির সবচেয়ে বিখ্যাত মিলিটারি ট্রেনিং একাডেমি কাকুলে সেনাবাহিনীর সঙ্গে ১০ দিন ট্রেনিং করবেন ২৭ জন ক্রিকেটার।

এই ক্যাম্প শেষে নতুন অধিনায়কের নাম ঘোষণা করবে পিসিবির নতুন নির্বাচক কমিটি। সাত সদস্যের বিশাল  এই কমিটিতে সাবেক ক্রিকেটার মোহাম্মদ ইউসুফ, আব্দুল রাজ্জাক, আসাদ শফিক ও ওয়াহাব রিয়াজের সঙ্গে থাকছেন অধিনায়ক, কোচ ও দলের অ্যানালিস্ট।

প্রধান নির্বাচক বলে কিছু এখন আর নেই। দল নির্বাচনে সবার ক্ষমতা সমান।