ক্যারিয়ারের শুরুতেই মাস সেরার লড়াইয়ে শামার

জানুয়ারির সেরার লড়াইয়ে তার প্রতিদ্বন্দ্বী ইংল্যান্ডের অলিভার পোপ ও অস্ট্রেলিয়া জশ হেইজেলউড।

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 5 Feb 2024, 11:31 AM
Updated : 5 Feb 2024, 11:31 AM

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে পা রেখেই তারকা বনে যাওয়া শামার জোসেফকে হাতছানি দিচ্ছে দারুণ একটি অর্জন। আইসিসি ‘প্লেয়ার অব দা মান্থ’ এর সংক্ষিপ্ত তালিকায় জায়গা পেয়েছেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের নতুন পেস সেনসেশন। জানুয়ারি মাসের সেরা পুরুষ ক্রিকেটার হওয়ার লড়াইয়ে তার প্রতিদ্বন্দ্বী ইংল্যান্ডের অলিভার পোপ ও অস্ট্রেলিয়ার জশ হেইজেলউড।

গত মাসের সেরা পুরুষ ও নারী ক্রিকেটারের লড়াইয়ে থাকাদের নাম সোমবার প্রকাশ করেছে বিশ্ব ক্রিকেটের নিয়ন্তা সংস্থা-আইসিসি। মেয়েদের সংক্ষিপ্ত তালিকায় জায়গা করে নিয়েছেন অস্ট্রেলিয়ার বেথ মুনি ও অ্যালিসা হিলি এবং আয়ারল্যান্ডের অ্যামি হান্টা(র।

শামার জোসেফ

জানুয়ারিতে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে টেস্ট সিরিজ দিয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে পা রাখেন গায়ানার দুর্গম গ্রাম থেকে উঠে আসা শামার। অ্যাডিলেইডে ক্যারিয়ারের প্রথম বলেই গড়েন উইকেট নেওয়ার কীর্তি, সেটাও আবার সময়ের সেরা ব্যাটসম্যানদের একজন স্টিভেন স্মিথের। এরপর আরও চার শিকার ধরে ওয়েস্ট ইন্ডিজের প্রথম বোলার হিসেবে অস্ট্রেলিয়ায় টেস্ট অভিষেকে পাঁচ উইকেট নেওয়ার রেকর্ড গড়েন তিনি।

চমৎকার ওই পারফরম্যান্সে আলোচনায় উঠে আসা এই পেসার ব্রিজবেনে দ্বিতীয় টেস্টে নিজেকে মেলে ধরেন আরও ভালোভাবে। পায়ের অগ্রভাগের চোটের সঙ্গে লড়াই করে, ব্যথানাশক ইনজেকশন নিয়ে দ্বিতীয় ইনিংসে অসাধারণ বোলিং উপহার দিয়ে নেন ৭ উইকেট। রান তাড়ায় নামা অস্ট্রেলিয়ার ব্যাটিং একাই ধসিয়ে দিয়ে দলকে এনে দেন ৮ রানের অবিশ্বাস্য এক জয়।

২১ বছর পর অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ও ২৭ বছর পর অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে ক্যারিবিয়ানদের টেস্ট জয়ের ম্যাচে সেরার পুরস্কার জেতেন শামার। ১৭.৩০ গড়ে ১৩ উইকেট নিয়ে সিরিজ সেরাও তিনি।

ওই সিরিজের পর চোটের কারণে আর মাঠে নামতে পারেননি ২৪ বছর বয়সী শামার। তবে ওই দুই টেস্টে যে পারফরম্যান্স করেছেন তিনি, তাতেই সেরার লড়াইয়ে জায়গা করে নিয়েছেন।

অলিভার পোপ

ভারতের বিপক্ষে এক টেস্টের পারফরম্যান্স দিয়ে জানুয়ারির সেরার সংক্ষিপ্ত তালিকায় এসেছেন পোপ। হায়দরাবাদে ইংলিশদের ২৮ রানে চমৎকার জয়ের নায়কদের একজন তিনি।

প্রথম ইনিংসে ১৯০ রানে পিছিয়ে থাকা ইংল্যান্ডকে দ্বিতীয়ভাগে বড় পুঁজি এনে দেন পোপ। ১৯৬ রানের মাস্টারক্লাস ইনিংস খেলেন ইংল্যান্ড টেস্ট দলের সহ-অধিনায়ক, ম্যাচ সেরার পুরস্কারও জেতেন ডানহাতি এই ব্যাটসম্যান। 

জশ হেইজেলউড

গত মাসে টেস্টে দুর্দান্ত বোলিং করেন হেইজেলউড। অস্ট্রেলিয়ার তারকা পেসার জানুয়ারিতে সাদা পোশাকের সংস্করণে ১১.৬৩ গড়ে সবচেয়ে বেশি ১৯ উইকেট নেন।

মাসের শুরুতে পাকিস্তানের বিপক্ষে সিডনি টেস্টে দুই ইনিংসে পাঁচ উইকেট নেন হেইজেলউড। ওই ম্যাচ জিতে সফরকারীদের তিন টেস্টের সিরিজে হোয়াইটওয়াশড করে অস্ট্রেলিয়া।

পরে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে প্রথম টেস্টের দুই ইনিংসে যথাক্রমে চারটি ও পাঁচটি উইকেট নেন তিনি। দ্বিতীয় ম্যাচে দুই ইনিংস মিলিয়ে ধরেন পাঁচ শিকার।

বেথ মুনি

গত মাসে টি-টোয়েন্টিতে দারুণ ধারাবাহিক পারফরম্যান্স করেন মুনি। অস্ট্রেলিয়ার টপ অর্ডার এই ব্যাটার ভারত ও দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে করেন তিনটি ফিফটি। ৬৪ গড় ও একশর বেশি স্ট্রাইক রেটে জানুয়ারিতে তার রান ২৫৬।

ভারতের মাটিতে সিরিজ নির্ধারণী তৃতীয় টি-টোয়েন্টিতে ৫২ রান করে দলের জয়ে বড় অবদান রাখেন মুনি। পরে ঘরের মাঠে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে প্রথম ও তৃতীয় টি-টোয়েন্টিতে খেলেন অপরাজিত ৭২ ও ৮২ রানের চমৎকার দুটি ইনিংস।

অ্যালিসা হিলি

ভারতকে ওয়ানডে সিরিজে হোয়াইটওয়াশড করার পথে তৃতীয় ম্যাচে ৮২ রান করেন অস্ট্রেলিয়া অধিনায়ক হিলি। পরে দলটির বিপক্ষে শেষ টি-টোয়েন্টিতে ৫৫ রানের ইনিংস খেলেন তিনি।

দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষেও টি-টোয়েন্টি সিরিজে খারাপ করেননি হিলি। তিন ম্যাচে রান করেন যথাক্রমে ৪৬, ২৯ ও ১০।

অ্যামি হান্টার 

জানুয়ারিতে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজে দুর্দান্ত পারফরম্যান্স উপহার দেন হান্টার। আয়ারল্যান্ডের এই ব্যাটার হারারেতে প্রথম তিন টি-টোয়েন্টিতে খেলেন চমৎকার তিনটি ইনিংস।

প্রথম ম্যাচে ১০১ রানের অপরাজিত ইনিংস খেলেন তিনি। দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টিতে করেন অপরাজিত ৭৭ রান। পরেরটিতে তার ব্যাট থেকে আসে ৪২ রান।