শামসি, রাবাদার নৈপুণ্যে শ্রীলঙ্কাকে হারাল দক্ষিণ আফ্রিকা

নতুন বলে শ্রীলঙ্কাকে কাঁপিয়ে দিলেন কাগিসো রাবাদা। রিস্ট স্পিনে স্বাগতিকদের প্রতিরোধ ভাঙলেন তাবরাইজ শামসি। ফিরিয়ে দিলেন ভয়ঙ্কর হয়ে ওঠা দুই পেরেরাকে। শ্রীলঙ্কার স্পিন হুমকি জয় করে বাকিটা সারলেন ব্যাটসম্যানরা। টেস্টের দুঃস্বপ্ন ভুলে জয় দিয়ে পাঁচ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ শুরু করলো দক্ষিণ আফ্রিকা।

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 29 July 2018, 11:33 AM
Updated : 29 July 2018, 11:33 AM

প্রথম ওয়ানডেতে ৫ উইকেটে জিতেছে দক্ষিণ আফ্রিকা। রাবাদা ও শামসির দারুণ বোলিংয়ে ৩৪.৩ ওভারে ১৯৩ রানে গুটিয়ে যায় শ্রীলঙ্কা। জেপি দুমিনির অপরাজিত ফিফটিতে ১৯ ওভার বাকি থাকতে লক্ষ্যে পৌঁছে যায় ফাফ দু প্লেসির দল। ওয়ানডেতে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে এটি তাদের টানা নবম জয়।

রনগিরি ডাম্বুলা ইন্টারন্যাশনাল স্টেডিয়ামে রোববার টস জিতে শুরুটা ভালো হয়নি শ্রীলঙ্কার। নবম ওভারে ৩৬ রানে ৫ উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে যায় স্বাগতিকরা।

নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে লঙ্কানদের চাপে রাখা রাবাদা ফিরিয়ে দেন নিরোশান ডিকভেলা, কুসল মেন্ডিস ও শেহান জয়াসুরিয়াকে। লুঙ্গি এনগিডির শিকার অধিনায়ক হিসেবে নিজের শততম ওয়ানডে খেলা অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউস। দলের বিপদ বাড়িয়ে রান আউট হয়ে যান উপুল থারাঙ্গা।

দুই পেররা কুসল ও থিসারার ব্যাটে প্রতিরোধ গড়ে শ্রীলঙ্কা। রাবাদার পেস ভাবাতে পারেনি থিসারাকে। শামসির স্পিনে স্বচ্ছন্দ ছিলেন কুসল পেরেরা। দুই পেস বোলিং অলরাউন্ডার ভিয়ান মুল্ডার ও আন্দিলে ফেলুকওয়ায়োর ওপর চড়াও হন দুই জনে। দ্রুত তোলেন রান।

পেরেরাদের ৯২ রানের জুটি ভাঙেন চায়নাম্যান শামসি। ৩০ বলে আট চারে ৪৯ রান করা থিসারাকে করেন কট বিহাইন্ড। কুসল পেরেরাকে খানিকটা সঙ্গ দেওয়া আকিলা দনাঞ্জয়াও শামসির শিকার।

দনাঞ্জয়াকে হারানোর পর অতি আক্রমণাত্মক হতে গিয়ে ফেরেন কুসল পেরেরা। শামসির বলে ডেভিড মিলারের হাতে ধরা পড়ার আগে ৭২ বলে ১১ চার ও এক ছক্কায় করেন ৮১ রান। এরপর বেশিদূর এগোয়নি স্বাগতিকদের ইনিংস।   

শামসি ৩৩ রানে নেন ৪ উইকেট। ক্যারিয়ারে চার উইকেট এই প্রথম। দুই পেরেরাকে আউট করা স্পিনার জেতেন ম্যাচ সেরার পুরস্কার। পেসার রাবাদা ৪ উইকেট নেন ৪১ রানে।

রান তাড়ায় শুরুটা ভালো হয়নি দক্ষিণ আফ্রিকার। পঞ্চম ওভারে পরপর দুই বলে হাশিম আমলা ও এইডেন মারক্রামকে বিদায় করে দেন দনাঞ্জয়া। টেস্টে সিরিজে স্পিন বোলিংয়ে দারুণভাবে ভোগা অতিথিদের সামনে তখন আরেকটি ধসের শঙ্কা।

সেখান থেকে দলকে পথ দেখান কুইন্টন ডি কক ও দু প্লেসি। দুই জনে তৃতীয় উইকেটে গড়েন ৮৬ রানের জুটি। বোলিংয়ে ফিরে অতিথিদের প্রতিরোধ ভাঙেন দনাঞ্জয়া। অফ স্পিনার ফিরিয়ে দেন ৪৭ রান করা ডি কককে।

অতিথিদের চায়নাম্যানের মতো জ্বলে উঠতে পারেননি লাকশান সান্দাকান। ৮ ওভারে খরুচে বোলিংয়ে ৭৪ রান দিয়ে একটি উইকেট নেন এই রিস্ট স্পিনার। তার একমাত্র শিকার ১০ চারে ৪৭ রান করা দু প্লেসি।

ডেভিড মিলারকে নিয়ে দলকে জয়ের পথে নিয়ে যান দুমিনি। এলবিডব্লিউ হয়ে মিলারের বিদায়ের পর মুল্ডারকে নিয়ে সারেন বাকিটা। দলের জয়কে সঙ্গী করে ফেরা বাঁহাতি মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান দুমিনি ৩২ বলে ৬ চার ও দুই ছক্কায় করেন ৫৩ রান।

দনাঞ্জয়া ৩ উইকেট নেন ৫০ রানে।

আগামী বুধবার একই ভেন্যুতে হবে দ্বিতীয় ওয়ানডে।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

শ্রীলঙ্কা: ৩৪.৩ ওভারে ১৯৩ (ডিকভেলা ২, থারাঙ্গা ১০, মেন্ডিস ৩, কুসল পেরেরা ৮১, ম্যাথিউস ৫, জয়াসুরিয়া ০, থিসারা ৪৯, দনাঞ্জয়া ১১, লাকমল ৫, সান্দাকান ৫*, কুমারা ৩; রাবাদা ৪/৪১, এনগিডি ১/২৯, মুল্ডার ০/৩৪, ফেলুকওয়ায়ো ০/৩০, শামসি ৪/৩৩, দুমিনি ০/২২)

দক্ষিণ আফ্রিকা: ৩১ ওভারে ১৯৬/৫ (আমলা ১৯, ডি কক ৪৭, মারক্রাম ০, দু প্লেসি ৪৭, দুমিনি ৫৩*, মিলার ১০, মুল্ডার ১৪*; দনাঞ্জয়া ৩/৫০, লাকমল ১/৩৭, জয়াসুরিয়া ০/২৩, কুমারা ০/১১, সান্দাকান ১/৭৪)

ফল: দক্ষিণ আফ্রিকা ৫ উইকেটে জয়ী

ম্যান অব দা ম্যাচ: তাবরাইজ শামসি

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক