৩৩ টাকা কেজি দরে গম কিনছে সরকার

ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকে সয়াবিন তেল, ডাল ও সার কেনার প্রস্তাবও অনুমোদন করা হয়েছে।

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 25 Oct 2023, 12:17 PM
Updated : 25 Oct 2023, 12:17 PM

আন্তর্জাতিক উন্মুক্ত দরপত্রের মাধ্যমে প্রতিকেজি ৩৩ টাকা দরে ৫০ হাজার টন গম কিনছে সরকার।

আগের মাসেও রাশিয়া থেকে জিটুজি ভিত্তিতে প্রতিকেজি ৩৫ টাকা দরে এক লাখ টন গম কেনার অনুমোদন দেওয়া হয়েছিল।

বুধবার সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকে খাদ্য মন্ত্রণালয়ের প্রস্তাবে এবার সিঙ্গাপুরের একটি কোম্পানির কাছ থেকে ৫০ হাজার টন গম কেনার এ অনুমোদন দেওয়া হয়।

২০২২ সালের শুরুতে ইউক্রেইন যুদ্ধ শুরুর পর বাংলাদেশে গমের কেজি ৩০ থেকে বেড়ে ৬০ টাকায় ওঠে। একইভাবে বাজারে আটা ময়দার দামও দ্বিগুণ বেড়ে প্রতিকেজি ৭৫ থেকে ৯০ টাকা হয়। এখন আন্তর্জাতিক বাজারে গমের দাম কমলেও আটা-ময়দার দাম কমার লক্ষণ নেই।

এদিন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের সভাপতিত্বে ক্রয় সংক্রান্ত কমিটির বৈঠক শেষে ভার্চুয়াল মাধ্যমে সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব সাঈদ মাহবুব খান।

তিনি বলেন, খাদ্য মন্ত্রণালয়ের অধীন খাদ্য অধিদপ্তর আন্তর্জাতিক উন্মুক্ত দরপত্রের মাধ্যমে ১৬৪ কোটি ৭৪ লাখ ৯৯ হাজার টাকায় সিঙ্গাপুরের এগ্রিকর্প ইন্টারন্যাশনালের কাছ থেকে ৫০ হাজার টন গম কেনার প্রস্তাব এনেছিল। বৈঠকে সেই প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এ হিসাবে প্রতিকেজি গমের দাম পড়েছে ৩৩ টাকা।

বৈঠকে রাষ্ট্রায়ত্ত ট্রেডিং কপোরেশন অব বাংলাদেশ-টিসিবির জন্য স্থানীয়ভাবে উন্মুক্ত দরপত্র পদ্ধতিতে ৬৬ কোটি ৫৮ লাখ টাকায় শবনম ভেজিটেবল অয়েলের কাছ থেকে ছয় হাজার টন মসুর ডাল কেনার প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয়। সেখানে প্রতিকেজির দাম পড়েছে ১১০ টাকা ৯৭ পয়সা।

এছাড়া টিসিবির পৃথক দুটি প্রস্তাবে ১৫৬ টাকা ২৫ পয়সা লিটার দরে ৪০ লাখ লিটার রাইস ব্রান এবং ১৫৬ টাকা ৩৮ পয়সা দরে ৮০ লাখ লিটার সয়াবিন তেল কেনার অনুমোদন দেওয়া হয়।

সাঈদ মাহবুব বলেন, রাইস ব্রান তেল কিনতে ৬২ কোটি ৫০ লাখ টাকা এবং সয়াবিন তেল কিনতে ১২৫ কোটি ১০ লাখ টাকা খরচ হচ্ছে।

রাশিয়া থেকে ৩৫ টাকা দরে এমওপি সার

এদিকে রাশিয়া থেকে ৩০ হাজার টন মিউরেট অব পটাশ বা এমওপি সার কিনতে কৃষি মন্ত্রণালয়ের প্রতিষ্ঠান বিএডিসির একটি প্রস্তাব অনুমোদন করা হয়েছে। এতে মোট খরচ হবে ১০৬ কোটি ৫৯ লাখ; প্রতিকেজির দাম পড়বে ৩৫ টাকা ৫৩ পয়সা। ডলারের হিসাবে প্রতি টনের দাম ধরা হয়েছে ৩২৩ ডলার।

একই দিনে শিল্প মন্ত্রণালয়ের প্রতিষ্ঠান বিসিআইসির তিনটি পৃথক প্রস্তাবে ৬০ হাজার টন ইউরিয়া এবং ২৫ হাজার টন রক ফসফেট সার কেনার অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এতে মোট খরচ হচ্ছে ৩৬৪ কোটি ৩৫ লাখ ৩২ হাজার ৫০০ টাকা।