সরকারিভাবে ইফতারের আয়োজন নয়, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা

প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, কারও যদি এ ধরনের অনুষ্ঠান করার ইচ্ছা থাকে তাহলে যেন সেই অর্থে খাদ্য কিনে গরীব মানুষদের মধ্যে বিতরণ করা হয়।

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 28 Feb 2024, 12:03 PM
Updated : 28 Feb 2024, 12:03 PM

এবারের রোজায় সরকারিভাবে বড় ধরনের ইফতার পার্টি না করার নির্দেশনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বেসরকারিভাবেও এ ধরনের আয়োজনকে নিরুৎসাহিত করেছেন সরকারপ্রধান।

বুধবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত মন্ত্রিসভা বৈঠকে এ নির্দেশনা দেন বলে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মো. মাহবুব হোসেন জানিয়েছেন।

বৈঠকের পর সচিবালয়ে মন্ত্রিসভার সিদ্ধান্ত জানানোর সময় সচিব বলেন, “মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর তরফ থেকে নির্দেশনা আছে, রমজান মাসে সরকারিভাবে বড় ধরনের ইফতার পার্টি নামক কোনো বিষয় উদযাপন করা যাবে না। এ বিষয়ে সবাইকে সতর্ক করেছেন।

“বেসরকারিভাবে ইফতার পার্টি করতে নিরুৎসাহিত করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, কারও যদি এ ধরনের অনুষ্ঠান করার ইচ্ছা থাকে তাহলে যেন সেই অর্থে খাদ্য কিনে গরীব মানুষদের মধ্যে বিতরণ করা হয়।”

প্রধানমন্ত্রীর এ নির্দেশনার কারণ জানতে চাইলে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মাহবুব হোসেন পাল্টা প্রশ্ন রাখেন, “ইফতার পার্টি করারই বা কারণ কী, বলতে পারেন? এটা কি কোনো ধর্মীয় অনুষ্ঠান?”

সাংবাদিকরা বলেন, আগে ইফতার পার্টি হয়েছে, অনেকে ধর্মীয়ভাবেও এটি করেন।

তখন মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, “এটি কখনই ধর্মীয় ইস্যু নয়। আপনাদের বুঝতে হবে আমরা যেন অপচয় না করি। আমরা যেন লোক দেখানো কার্যক্রমে নিজেদের নিয়োজিত না করি।

“তার বদলে ওই টাকাটা যদি আপনি কারও কল্যাণে ব্যবহার করতে চান; গরীব মানুষ যাদের টার্গেট করলেন, তাদেরকে আপনি বিলিয়ে দিতে পারেন। আমি-আপনি বসে খেলাম, ওখানে অনেক খাদ্যের অপচয় হল, অর্থের অপচয় হল। এটার তো ধর্মীয় দিক থেকেও যুক্তি থাকতে পারে না।”

প্রতিবছর রোজায় প্রধানমন্ত্রী গণভবনে বিভিন্ন পেশাজীবী, বিশিষ্ট ব্যক্তিদের নিয়ে ইফতার করেন।

প্রধানমন্ত্রী এবার ইফতারের আয়োজন করবেন কি না, এমন প্রশ্নে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, “এটা তো আমি বলতে পারব না।”