‘সোনালী দিনগুলি’তে মন্ত্রী মুহিতের জীবনকথা

অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের ঘটনাবহুল জীবনের স্মৃতিকথা শুক্রবার থেকে পাওয়া যাবে একুশের বইমেলায়।

আবদুর রহিম হারমাছিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 18 Feb 2016, 04:33 PM
Updated : 19 Feb 2016, 10:55 AM

‘সোনালী দিনগুলি’ নামের ২৩৬ পৃষ্ঠার এই বইটিতে শৈশব, কৈশোর এবং ছাত্রজীবনের পুরো সময় ধরেছেন ৮৩ বছর বয়সী মুহিত।

১৯৩৪ থেকে ১৯৫৭ সাল পর‌্যন্ত সময়ে বাংলাদেশের মোট নয়টি এবং টানা সাতটি জাতীয় বাজেট দেয়া মুহিত বইটির শেষে লিখেছেন, “আমার হিসাবে ঢাকায় সলিমুল্লাহ হলে পাঁচ বছর নয় দিন অবস্থান করে আমার ছাত্রজীবনের সমাপ্তি ঘটে। এবং নিয়মিত চাকরি জীবনের শুরু হয়। আমার ছেলেবেলার এবং ছাত্রজীবনের কাহিনী শেষ করার এখনই হল যুক্তিযুক্ত সময়। আমার স্মৃতিকথার প্রথম বইটি আমি এখানেই শেষ করছি।”

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে অর্থমন্ত্রী বলেন, “আমি আমাকে নিয়ে আরও দুটি বই বের করবো। ১৯৫৭ থেকে ১৯৭১ এবং ১৯৭১ থেকে পরবর্তী সময় নিয়ে বের হবে সে দুটি বই।”

‘সোনালী দিনগুলি’র শুরুতেই মুহিত লিখেছেন, “অবশেষে আমি আত্মজীবনী লিখতে বসেছি। অবশেষে বলছি এজন্য যে, আমি নিজের জীবনের বিভিন্ন ঘটনাবলী লিপিবদ্ধ করতে শুরু করি ১৯৪৮ সালে। বেশ কিছুদিন কিছু লেখালেখি করে সেই উদ্যোগে বিরতি পড়ে।

“আবার লিখছি, ১৯৮৩ সালে আবার লিখতে শুরু করি।...তখন আমার উপলক্ষ ছিল আমার আম্মার মূত্যু।”

মোট ১২ অধ্যায়ের বইটিতে প্রথম অধ্যায় হচ্ছে- জন্ম ও পারিবারিক কথা। বাকিগুলো হচ্ছে- বাবা-মা সম্পর্কে, শৈশবের স্মৃতি, শৈশব সম্পর্কে, আরও কিছু কৈশোরের স্মৃতি, কৈশোর থেকে উত্তরণ, সিলেট মুরারী চাঁদ কলেজ, ভাই-বোনদের সম্পর্কে, ঢাকায় ছাত্রজীবনের সূচনা, ঢাকায় ছাত্রজীবনের আরও কিছু কথা এবং ছাত্রজীবনের অবসান।

চন্দ্রাবতী একাডেমি বইটি প্রকাশ করেছে। প্রচ্ছদ এঁকেছেন ধ্রুব এষ। শুক্রবার বিকালে শিশু একাডেমি মিলনায়তনে বইটির প্রকাশনা অনুষ্ঠান হবে।

এতে সভাপতিত্ব করবেন এমিরেটাস অধ্যাপক আনিসুজ্জামান।

অতিথি থাকবেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ, সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর, অর্থনীতিবিদ রেহমান সোবহান, সাবেক অর্থমন্ত্রী এম সাইদুজ্জামান, লেখকের স্কুল জীবনের বন্ধু নাসির এ চৌধুরী, কাজী খলীকুজ্জমান আহমদ এবং চিত্রশিল্পী হাশেম খান।

বইটির ওপর আলোচনা করবেন জাতীয় জাদুঘরের প্রতিষ্ঠাতা মহাপরিচালক ড. এনামুল হক, ভাষাবিজ্ঞানী মনিরুজ্জামান, কথাসাহিত্যিক সেলিনা হোসেন এবং মদনমোহন কলেজের অধ্যক্ষ আবুল ফতেহ ফাত্তাহ।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক