নির্বাচনের ‘কর্মপরিকল্পনা’ নিয়ে আসছে ইসি

নানা বিষয়ে রাজনৈতিক মতভেদ এখনও কাটেনি; এর মধ্যেই ভোটের আগের কাজের সূচি সাজিয়ে নিচ্ছে কাজী হাবিবুল আউয়ালের কমিশন।

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 14 Sept 2022, 03:45 AM
Updated : 14 Sept 2022, 03:45 AM

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের কর্মপরিকল্পনা নিয়ে সাংবাদিকদের সামনে আসছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী হাবিবুল আউয়াল।

আগামী বছরের শেষে এই ভোট আয়োজনের জন্য যা যা করতে হবে, তার বাস্তবায়নসূচি তুলে ধরা হবে নির্বাচন কমিশনের এই ‘রোডম্যাপে’।

ইসির জনসংযোগ পরিচালক এস এম আসাদুজ্জামান জানান, বুধবার সকাল ১১টায় আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনের অডিটরিয়ামে কর্মপরিকল্পনার মোড়ক উন্মোচন করবেন সিইসি হাবিবুল আউয়াল। অন্য নির্বাচন কমিশনাররা এবং ইসি সচিবসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারাও এ সময় উপস্থিত থাকবেন।

গত ছয় মাসে বিভিন্ন পর্যায়ে যাদের সাথে নির্বাচন কমিশন সংলাপ করেছে, সেই অংশীজনদেরও এই কর্মপরিকল্পনা পাঠানো হতে পারে।

কাজী হাবিবুল আউয়াল নেতৃত্বাধীন পাঁচ সদস্যের বর্তমান ইসি গত ফেব্রুয়ারিতে দায়িত্ব নেয়। এর পরপরই তারা রাজনৈতিক দল, গণমাধ্যম, পর্যবেক্ষক সংস্থা, নির্বাচন পরিচালনা বিশেষজ্ঞ, ইভিএম কারিগরি বিশেষজ্ঞ, শিক্ষাবিদদের নিয়ে সংলাপ শুরু করে।

নানা বিষয়ে রাজনৈতিক মতভেদ কাটাতে সাফল্য না এলেও ইসি তাদের দায়িত্ব নেওয়ার সাড়ে ছয় মাসের মাথায় কর্মপরিকল্পনা তুলে ধরতে যাচ্ছে। নির্বাচনের এখনও বাকি রয়েছে প্রায় সাড়ে পনের মাস।

বিএনপিসহ বেশ কয়েকটি দলের বর্জনের মধ্যে অনুষ্ঠিত সংলাপে পাওয়া মতামত পর্যালোচনা করে আইন সংস্কার, ইভিএমে ভোটগ্রহণের মত গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিয়েছে ইসি। নতুন দলের নিবন্ধনের আবেদনও নেওয়া হচ্ছে।

হালনাগাদ ভোটার তালিকার তথ্য সংগ্রহের কাজও ইতোমধ্যে শুরু হয়েছে। জনশুমারির প্রাথমিক প্রতিবেদন প্রকাশের পর চূড়ান্ত প্রতিবেদন প্রকাশ করার কথা রয়েছে।

Also Read: দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনের পথে ইসির কর্ম পরিকল্পনা ‘চূড়ান্ত’

ইসি কর্মকর্তারা জানান, নির্বাচনে ইভিএমের ব্যবহার, সিসি ক্যামেরা স্থাপনের মত বিষয়গুলো বিবেচনায় রেখে সীমানা নির্ধারণ, ফলাফল সংগ্রহে প্রযুক্তির ব্যবহার, প্রশিক্ষণ ও দক্ষ জনবল তৈরি, আইন সংস্কার, নতুন দল নিবন্ধন, চূড়ান্ত ভোটার তালিকা প্রণয়নসহ সব কাজের প্রস্তুতিমূলক সময়সূচি থাকছে কর্মপরিকল্পনায়।

সেই সঙ্গে সংসদ নির্বাচনের ক্ষণ গণনা শুরুর পর তফসিল ঘোষণা এবং তফসিল ঘোষণা পরবর্তী কাজগুলোর তালিকাও তুলে ধরা হবে।

পনের বছর আগে এ টি এম শামসুল হুদা নেতৃত্বাধীন ইসির সময় সুনির্দিষ্ট কর্ম পরিকল্পনা ধরে এগোনোর চল শুরু হয় কমিশনে। পরের কমিশনগুলো সেই ধারাবাহিকতা বজায় রাখলেও কিছুটা ভিন্নতা এনে ‘রোডম্যাপ’ উপস্থাপন করে আসছে।

কর্মপরিকল্পনার এক ডজন

  • আইন সংস্কার

  • নির্বাচন প্রক্রিয়া সময়োপযোগী করতে সবার পরামর্শ নেওয়া

  • সংসদীয় আসনের সীমানা পুননির্ধারণ

  • নির্ভুল ভোটার তালিকা প্রণয়ন ও সরবরাহ

  • বিধি মেনে ভোটকেন্দ্র স্থাপন

  • নতুন দল নিবন্ধন ও নিবন্ধিতদের নিরীক্ষা

  • সুষ্ঠু নির্বাচনে সক্ষমতা বৃদ্ধি

  • ভোটে প্রযুক্তির ব্যবহার

  • দক্ষ নির্বাচনী কর্মকর্তার প্যানেল তৈরি ও প্রশিক্ষণ

  • ভোটার শিক্ষণ, সচেতনতা তৈরি

  • পর্যবেক্ষক সংস্থা নিবন্ধন ও নবায়ন

  • গণমাধ্যমকে সম্পৃক্ত করা

২০১৯ সালের ৩০ জানুয়রি একাদশ সংসদের প্রথম অধিবেশন শুরু হয়। সে অনুযায়ী ২০২৩ সালের নভেম্বর থেকে পরের বছর জানুয়ারির মধ্যে দ্বাদশ সংসদ নির্বাচন করতে হবে। ২০২৪ সালের ২৯ জানুয়ারির মধ্যে দ্বাদশ সংসদ নির্বাচন শেষ করার সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতা রয়েছে ইসি।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক