পলকেই ফুরাচ্ছে ট্রেনের টিকেট

বাংলাদেশ রেলওয়ে বলছে, চাঁদ দেখার ওপর নির্ভর করে ১০, ১১ ও ১২ এপ্রিলের টিকেট বিক্রি করা হবে।

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 30 March 2024, 05:20 AM
Updated : 30 March 2024, 05:20 AM

ঈদযাত্রাকে কেন্দ্র করে ট্রেনের আগাম টিকেট বিক্রির শেষ দিন সকালের পালার প্রায় সব টিকেট দুই মিনিটেই শেষ হয়ে গেছে।

শনিবার বিক্রি হচ্ছে ৯ এপ্রিলের আগাম টিকেট। সকালে দেওয়া হয় পশ্চিমাঞ্চলের বিভিন্ন রুটের ট্রেনের টিকেট। দুপুর দুইটায় পূর্বাঞ্চলের বিভিন্ন রুটের ট্রেনের টিকেট বিক্রির জন্য উন্মুক্ত করা হবে।

আগামী ১১ এপ্রিল ঈদের সম্ভাব্য দিন হিসাব করে ঈদযাত্রার সূচি সাজিয়েছে বাংলাদেশ রেলওয়ে। সে অনুযায়ী গত রোববার ৩ এপ্রিল ট্রেনযাত্রার টিকেট অনলাইনে উন্মুক্ত করা হয়।

বাংলাদেশ রেলওয়ে বলছে, চাঁদ দেখার ওপর নির্ভর করে ১০, ১১ ও ১২ এপ্রিলের টিকেট বিক্রি করা হবে।

টিকেট বিক্রি শুরুর প্রথম দিন গত রোববার (২৪ মার্চ) টিকেটের চাহিদা কিছুটা কম ছিল। এরপর সোমবার টিকেট বিক্রি হয়ে যায় আধাঘণ্টার মধ্যে এবং মঙ্গলবার থেকে শুক্রবার পর্যন্ত প্রথমে ১০ মিনিট এবং পরের দুইদিন দুই মিনিটের মধ্যে প্রায় সব ট্রেনের টিকেট বিক্রি হয়ে যায়।  

বাংলাদেশ রেলওয়ের ওয়েবসাইট পর্যবেক্ষণ করে দেখা গেছে, শনিবার সকাল আটটায় অনলাইনে টিকেট বিক্রি শুরুর আগে রাজশাহী স্টেশনের জন্য ধূমকেতু এক্সপ্রেসে ৩৫৪টি, পদ্মা, বনলতা এক্সপ্রেস ট্রেনে ৬৩৬টি, সিল্কিসিটি এক্সপ্রেস ট্রেনে ২৮৮টি, মধুমতি এক্সপ্রেস ট্রেনে ৭০টি এবং পদ্মা এক্সপ্রেস ট্রেনের ৬৬০টি আসন ছিল।

টিকেট বিক্রি শুরুর পর সকাল ৮টা ২ মিনিটে দেখা যায় ধূমকেতু এক্সপ্রেস ট্রেনের সব টিকেট বিক্রি হয়ে গেছে। ওই সময় বনলতা এক্সপ্রেস ট্রেনের শোভন চেয়ার শ্রেণির ৪৫টি টিকেট ‘অ্যাভেইলেবল দেখালেও ‘বুক’ করতে গিয়ে দেখা গেছে কোনো টিকেট নাই।

পার্বতীপুর স্টেশনের জন্য নীলসাগর এক্সপ্রেস ট্রেনের ৯০টি, একতা এক্সপ্রেস ট্রেনের ১০৩টি, চিলাহাটি এক্সপ্রেস ট্রেনের ১৫৮টি, দ্রুতযান এক্সপ্রেস ট্রেনের ৯৫টি কুড়িগ্রাম এক্সপ্রেস ট্রেনের ৭৭টি, পঞ্চগড় এক্সপ্রেস ট্রেনের ১৪২টি টিকেট ছিল বিক্রির জন্য। 

কিন্তু বিক্রি শুরুর ২ মিনিটে দেখা গেছে, মিনিটের নীলসাগর, একতা, চিলাহাটি, দ্রুতযান এক্সপ্রেসের সব টিকেট শেষ।

রংপুর স্টেশনের জন্য রংপুর এক্সপ্রেস ট্রেনের ১১২টি এবং কুড়িগ্রাম এক্সপ্রেস ট্রেনের ১১৪টি টিকেট ছিল টিকেট বিক্রি শুরুর আগে। আটটা ৩ মিনিটের মধ্যে ওই টিকেটগুলো বিক্রি হয়ে যায়। ওই সময় পর্যন্ত ওই দুটি ট্রেনের অন্যান্য স্টেশনের জন্য বরাদ্দ টিকেটও বিক্রি হয়ে গেছে দেখাচ্ছিল।

খুলনা স্টেশনের জন্য সুন্দরবন এক্সপ্রেস ট্রেনের ১০৬টি এবং চিত্রা এক্সপ্রেস ট্রেনের ১৮২টি টিকেট ছিল। বিক্রি শুরুর পর ৮টা ৩ মিনিটে সুন্দরবন এক্সপ্রেস ট্রেনের এসি সিট, এসি চেয়ার সিটের কোনো টিকেট নেই, স্নিগ্ধা শ্রেণির একটি টিকেট অ্যাভেইলেবল দেখালেও বুক করতে গিয়ে দেখা যায় টিকেট নেই।

দেখা গেছে, পশ্চিমাঞ্চলের অন্যান্য রুটের ট্রেনগুলোর টিকেটও বিক্রি শুরুর প্রথম তিন থেকে চার মিনিটের মধ্যেই আগেই শেষ হয়ে যায়।

গত ১৩ মার্চ রেলভবনে এক সংবাদ সম্মেলনে রেলওয়ের মহাপরিচালক (অতিরিক্ত দায়িত্ব) সরদার সাহাদাত আলী অগ্রিম টিকেট বিক্রির সূচি প্রকাশ করেন।

সূচি অনুযায়ী ২৫ মার্চ বিক্রি হয়েছে ৪ এপ্রিলের টিকেট, ২৬ মার্চ পাওয়া গেছে ৫ এপ্রিলের টিকেট, ২৭ মার্চ বিক্রি হয়েছে ৬ এপ্রিলের, ২৮ মার্চ পাওয়া গেছে ৭ এপ্রিলের টিকেট এবং ২৯ মার্চে মিলেছে ৮ এপ্রিলের টিকেট।

এবারও ঈদযাত্রার কোনো টিকেট কাউন্টারে বিক্রি করা হচ্ছে না। অনলাইন প্ল্যাটফর্ম থেকেই শতভাগ টিকেট বিক্রি হচ্ছে। বাংলাদেশ রেলওয়ের ওয়েবসাইট, রেল সেবা অ্যাপ ও সহজ ডটকমের প্ল্যাটফর্ম থেকে টিকেট সংগ্রহ করা যাবে।

ফিরতি যাত্রার অগ্রিম টিকেট বিক্রি শুরু হবে ৩ এপ্রিল থেকে। ৯ এপ্রিল পর্যন্ত ফিরতি যাত্রার অগ্রিম টিকেট মিলবে।

এবার ঈদের আগে সারাদেশের বিভিন্ন রুটে চলাচলকারী আন্তঃনগর ট্রেনের ৩৩ হাজার ৫০০টি টিকেট বিক্রি হবে।

ঈদ উপলক্ষে সারাদেশের বিভিন্ন রুটে আট জোড়া বিশেষ ট্রেন চালানো হবে বলে রেল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে।

Also Read: বেড়েছে চাহিদা, দুই-তিন মিনিটেই শেষ হয়ে যাচ্ছে ট্রেনের টিকেট

Also Read: দশ মিনিটেই শেষ ৬ এপ্রিলের ট্রেনের টিকেট

Also Read: ট্রেনের আগাম টিকেট: তৃতীয় দিনে বিক্রি শেষ ১০ মিনিটেই

Also Read: ট্রেনের আগাম টিকেট: দ্বিতীয় দিনের টিকেট শেষ আধা ঘণ্টায়

Also Read: ঈদের ট্রেনের আগাম টিকেট বিক্রি শুরু