গাজা যুদ্ধ-পরবর্তী পরিকল্পনা পেশ করলেন নেতানিয়াহু

‘অনির্দিষ্টকালের জন্য সব ফিলিস্তিন এলাকার নিরাপত্তা ইসরায়েল নিয়ন্ত্রণ করবে’ প্রস্তাব তার।

নিউজ ডেস্ক
Published : 23 Feb 2024, 05:50 PM
Updated : 23 Feb 2024, 05:50 PM

যুদ্ধ-পরবর্তী গাজার ভবিষ্যৎ কেমন হবে তা নিয়ে প্রথমবারের মতো সরকারি পরিকল্পনা পেশ করেছেন ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু।

তার পরিকল্পনা অনুযায়ী, অনির্দিষ্টকালের জন্য সব ফিলিস্তিন এলাকার নিরাপত্তাব্যবস্থা নিয়ন্ত্রণ করবে ইসরায়েল। আর যেসব ফিলিস্তিনির সঙ্গে ইসরায়েল-বিদ্বেষী কোনও গোষ্ঠীর সম্পর্ক নেই তারা গাজার শাসন পরিচালনা করবে।

কেবল গাজাই নয়, অধিকৃত পশ্চিম তীরসহ জর্ডানের পশ্চিমাঞ্চলে স্থল, জল ও আকাশ পথ মিলে গোটা এলাকার নিরাপত্তার নিয়ন্ত্রণ ইসরায়েলের হাতে থাকবে বলে পরিকল্পনার রূপরেখায় প্রস্তাব করা হয়েছে, যে ভূখণ্ডে স্বাধীন রাষ্ট্র গড়ে তুলতে চায় ফিলিস্তিন।

নেতানিয়াহু বৃহস্পতিবার নিরাপত্তা মন্ত্রিসভায় এ পরিকল্পনা উপস্থাপন করেন। পরিকল্পনাটি এখনও সংশোধন করার দরকার পড়তে পারে। বার্তা সংস্থা রয়টার্স শুক্রবার পরিকল্পনার রূপরেখা দেখেছে।

ফিলিস্তিনি কর্মকর্তারা তাৎক্ষণিকভাবে নেতানিয়াহুর এই পরিকল্পনা ব্যর্থ হবে বলে নাকচ করেছেন।

ইসরায়েলের মিত্র যুক্তরাষ্ট্র চায় যুদ্ধের পর পশ্চিম তীরের ফিলিস্তিন কর্তৃপক্ষ (পিএ) গাজা শাসন করুক। তবে নেতানিয়াহু তার পরিকল্পনার নথিতে ফিলিস্তিন কর্তৃপক্ষের কোনও কথাই উল্লেখ করেননি।

নেতানিয়াহু অবশ্য আগেও আন্তর্জাতিকভাবে সমর্থিত পিএ’র কাছে যুদ্ধোত্তর গাজার শাসনভার তুলে দেওয়ার প্রস্তাব নাকচ করেছিলেন। গাজাকে একটি বেসামরিক অঞ্চলে পরিণত করারই স্বপ্ন দেখছেন ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী। পরিকল্পনা সে লক্ষ্যই তিনি স্থির করেছেন।

ফিলিস্তিন রাষ্ট্রের ‘একতরফা স্বীকৃতি’র বিষয়টিও পরিকল্পনায় প্রত্যাখ্যান করেছেন নেতানিয়াহু। বলেছেন, ফিলিস্তিনিদের সঙ্গে আপোস-মীমাংসা কেবল দুই পক্ষের মধ্যে সরাসরি আলোচনার মাধ্যমেই অর্জন করা যেতে পারে। তবে ফিলিস্তিনের কোন দলের সঙ্গে আলোচনা হবে সে বিষয়ে কিছু বলেননি তিনি।

গাজার দক্ষিণে মিশরের সঙ্গে সীমান্ত অঞ্চলে ইসরায়েলের সেনা উপস্থিতি রাখা এবং রাফাহ ক্রসিংসহ ওই এলাকায় চোরাচালান ঠেকাতে মিশর ও যুক্তরাষ্ট্রকে সহযোগিতা করার প্রস্তাবও রেখেছেন নেতানিয়াহু।

গাজার সব ধর্মীয়, শিক্ষা ও কল্যাণমূলক প্রতিষ্ঠানে চরমপন্থা রোধ কর্মসূচি চালু করার কথা পরিকল্পনায় বলেছেন নেতানিয়াহু। এ ধরনের কর্মসূচি পরিচালনার পূর্ব অভিজ্ঞতা আছে এমন আরব দেশগুলোকে একাজে যুক্ত করার কথা বলা হয়েছে। তবে কোন দেশকে যুক্ত করা হবে তা বলা হয়নি।

গাজায় ফিলিস্তিনের স্বাধীনতাকামী গোষ্ঠী হামাসের শাসন বদলাতে এবং জনশৃঙ্খলা রক্ষা করতে নেতানিয়াহু স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের সঙ্গে কাজ করার প্রস্তাব দিয়েছেন; যাদের সঙ্গে কোনও সন্ত্রাসী দেশ কিংবা গোষ্ঠীর কোনও সংশ্রব নেই এবং আর্থিক মদদও নেই।

গাজায় জাতিসংঘের ফিলিস্তিনি শরণার্থী সংস্থা ইউএনআরডব্লিউএ-এর কার্যকলাপ বন্ধ করে সেখানে অন্যান্য আন্তর্জাতিক ত্রাণ সংস্থার কার্যক্রম চালুর আহ্বান জানিয়েছেন নেতানিয়াহু।

ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রীর এ পরিকল্পনার প্রতিক্রিয়ায় ফিলিস্তিন কর্তৃপক্ষের প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাসের মুখপাত্র নাবিল আবু রুদেইনেহ বলেছেন, “বিশ্ব যদি সত্যিকার অর্থে এ অঞ্চলে নিরাপত্তা ও স্থিতিশীলতা বজায় রাখতে আগ্রহী হয়, তাহলে তাদেরকে ফিলিস্তিনি ভূখণ্ডে ইসরায়েলের দখলদারিত্বের অবসান ঘটাতে হবে এবং একটি স্বাধীন ফিলিস্তিন রাষ্ট্রকে স্বীকৃতি দিতে হবে।”