৭০ বছরের মধ্যে প্রথম মদের দোকান খুলছে সৌদি আরবে

সেখানে গলা ভেজাতে পারবেন কেবল অমুসলিম বিদেশি কূটনীতিকরা। সেজন্য তাদের নিবন্ধন করতে হবে এবং প্রত্যেকের জন্য মাসিক কোটা নির্ধারিত থাকবে।

নিউজ ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 25 Jan 2024, 05:50 AM
Updated : 25 Jan 2024, 05:50 AM

সৌদি আরবে ৭০ বছরের বেশি সময়ের মধ্যে প্রথম মদের দোকান খোলা হচ্ছে, যার ক্রেতা হবেন কেবল বিদেশি অমুসলিম কূটনীতিকরা।

বিবিসি লিখেছে, রাজধানীর রিয়াদের কেন্দ্রস্থলের কাছে কূটনীতিক পাড়ায় হবে এই অ্যালকোহল শপ। সেজন্য আইন সংশোধনের প্রস্তুতি নিচ্ছে সৌদি সরকার। 

বাদশাহ আবদুল আজিজের ছেলে মিশারি বিন আবদুলআজিজ আল-সৌদ গুলি করে এক ব্রিটিশ কূটনীতিককে মেরে ফেলার পর ১৯৫২ সালে আইন করে অ্যালকোহল বিক্রি নিষিদ্ধ করে সৌদি আরব।

সে কারণে বিদেশি কূটনীতিকদের গলা ভেজানোর জন্য এতদিন বিশেষ কূটনৈতিক সুবিধার সুযোগ নিতে হত।

একটি দেশ অন্য দেশে তার দূতাবাসে গোপনীয় নথি থেকে শুরু করে জরুরি সামগ্রী পাঠানোর জন্য ব্যবহার করে বিশেষভাবে সিল করা প্যাকেজ, যাকে বলে ‘ডিপ্লোম্যাটিক পাউচ’। ভিয়েনা কনভেনশন অনুযায়ী, বিমানবন্দর বা কোনো জায়গায় রাষ্ট্রীয় সিলমোহরযুক্ত এসব প্যাকেজ খোলা বা পরীক্ষা করার সুযোগ নেই। 

সৌদি আরবে অ্যালকোহল আমদানি নিষিদ্ধ হলেও ওই ‘ডিপ্লোম্যাটিক পাউচে’ করে এতদিন ঠিকই মদ ঢুকত বিদেশি কূটনীতিকদের জন্য। সৌদি কর্মকর্তারা বলছেন, মদের অবৈধ কারবার বন্ধের জন্যই রিয়াদে এত বছর পর অ্যালকোহল বিক্রির দোকান খোলা হচ্ছে।

রয়টার্স জানিয়েছে, আগামী কয়েক সপ্তাহের মধ্যে রিয়াদে ওই মদের দোকান চালু হতে পারে। তবে সেটা চালানো হবে কঠোর নিয়মের মধ্যে।

বিদেশি কূটনীতিকদের মধ্যে যারা ওই পানশালার ক্রেতা হতে চান, তাদের আগে অ্যাপের মাধ্যমে নিবন্ধন করতে হবে। সৌদি সরকার অনুমতি দিলে তবেই তার নিবন্ধন কার্যকর হবে। কূটনৈতিক সুবিধা পান না, এমন বিদেশিরা নিবন্ধন করতে পারবেন না।

২১ বছরের কম বয়সী কেউ ওই দোকানে ঢোকার সুযোগ পাবে না। ভেতরে মেনে চলতে হবে ‘পোশাক বিধি’। ড্রাইভার বা অন্য কাউকে পাঠিয়ে সেখান থেকে মদ কেনা যাবে না। অর্থাৎ, যার নামে নিবন্ধন, তাকেই সশরীরে যেতে হবে।

একজন কতটুকু মদ কিনতে পারবেন, তার মাসিক কোটাও নির্ধারণ করে দেওয়া হবে। একজন ক্রেতার জন্য মাসে বরাদ্দ থাকবে সব মিলিয়ে ২৪০ পয়েন্ট। প্রতি লিটার বিয়ারে এক পয়েন্ট, প্রতি লিটার ওয়াইনে তিন পয়েন্ট এবং প্রতি লিটার লিকারে ছয় পয়েন্ট কাটা হবে।

সব নিয়ম মেনে সুরা পানের সুযোগ পেলেও এটা মাথায় রাখতে হবে যে, জায়গাটা সৌদি আরব এবং মদপানের পর আচার আচরণে কোনো বেচাল হওয়া চলবে না।

সৌদি আরবের বর্তমান আইনে মদ পান করলে কিংবা নিজের কাছে রাখলে শাস্তি হিসেবে জেল-জরিমানা থেকে শুরু করে প্রকাশ্যে দোররা মারা এমনকি নিজের দেশে ফেরত পাঠানোও হতে পারে।

যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের ‘ভিশন ২০৩০’ এর আওতায় সৌদি আরবকে বিদেশিদের কাছে আকর্ষণীয় করে তুলতে গত কয়েক বছর ধরেই বিভিন্ন উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে। এর অংশ হিসেবেই কূটনীতিকদের জন্য পানশালা খোলার এই উদ্যোগ।