আইফোন ১৫ কি আসছে সেপ্টেম্বরের ১২ তারিখেই? কী থাকবে এতে?

কোম্পানি এ আয়োজনের নাম দিয়েছে ‘ওয়ান্ডারলাস্ট’। এটি অনুষ্ঠিত হবে ক্যালিফোর্নিয়ায় অ্যাপলের প্রধান কার্যালয় ‘অ্যাপল পার্ক’-এ স্টিভ জবস-এর নামে রাখা মিলনায়তনে।

প্রযুক্তি ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 30 August 2023, 12:10 PM
Updated : 30 August 2023, 12:10 PM

অ্যাপলের পরবর্তী বড় আয়োজন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে সেপ্টেম্বরের ১২ তারিখে। আর এতে আইফোন ১৫ ও নতুন শ্রেণির ‘অ্যাপল ওয়াচ’সহ কোম্পানির অনেক পণ্যই উন্মোচনের সম্ভাবনা রয়েছে।

আসন্ন আয়োজন কীভাবে দেখা যাবে ও এতে কী কী নতুন পণ্য আসতে পারে, তা নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে প্রযুক্তিবিষয়ক সাইট ভার্জ।

কখন দেখা যাবে আইফোন ১৫?

অ্যাপল নিজে থেকে কখনোই তার আয়োজন নিয়ে আগাম তথ্য দেয় না। তবে, দীর্ঘদিনের রেওয়াজ অনুসারে আগামী আয়োজনেই পরবর্তী প্রজন্মের আইফোন আসবে বলে প্রতিবেদনে লিখেছে প্রযুক্তি সাইট ভার্জ। 

ভার্জকে পাঠানো অ্যাপলের আমন্ত্রণপত্রে দেখা গেছে, কোম্পানি এ আয়োজনের নাম দিয়েছে ‘ওয়ান্ডারলাস্ট’। এটি অনুষ্ঠিত হবে ক্যালিফোর্নিয়ায় অ্যাপলের প্রধান কার্যালয় ‘অ্যাপল পার্ক’-এ স্টিভ জবস-এর নামে রাখা মিলনায়তনে।

কীভাবে দেখা যাবে?

আগের আয়োজনগুলোর মতোই আইফোন ১৫’র প্রথম ঝলক দেখাতে যাওয়া আয়োজনটি নিজস্ব ওয়েবসাইট ও ইউটিউব চ্যানেলে দেখাতে পারে অ্যাপল। তবে, এখনও লাইভস্ট্রিমের লিংক পোস্ট করেনি কোম্পানিটি।

অবশেষে আইফোনে ‘ইউএসবি-সি’ পোর্ট

এ বছরের আইফোন লাইনআপে সবচেয়ে বড় বদল হতে যাচ্ছে ইউএসবি-সি পোর্টের সংযোজন। অ্যাপলের লাইটনিং কানেক্টরের বদলে অ্যান্ড্রয়েডে জনপ্রিয় এ পোর্ট যুক্ত করারও প্রথম ঘটনা হতে যাচ্ছে এটি।

তবে, এটি কোনো চমকপ্রদ বিষয় নয়। কারণ, ইউরোপীয় ইউনিয়নের নীতিমালা মেনে চলার অংশ হিসাবে গত বছরই ইউএসবি-সি পোর্ট আনার ঘোষণা দিয়েছিল অ্যাপল।

বিভিন্ন প্রতিবেদন থেকে ইঙ্গিত মিলেছে, আইফোন ১৫ শ্রেণির সকল ফোনেই ইউএসবি-সি পোর্ট থাকবে। অন্যদিকে, সুপরিচিত অ্যাপল বিশ্লেষক মিং চি কুও বলছেন, কেবল আইফোনের ‘প্রো’ ও ‘প্রো ম্যাক্স’ সংস্করণেই উচ্চমাত্রার ডেটা স্থানান্তরের সুবিধা মিলবে।

কুও’র তথ্য অনুসারে, এ দুটি প্রিমিয়াম ‘অন্তত ইউএসবি ৩.২ বা থান্ডারবোল্ট ৩’ পোর্ট থাকার সম্ভাবনা থাকলেও আইফোন ১৫ ও ‘১৫ প্লাস’ সংস্করণে থাকতে পারে ‘ইউএসবি ২.০’ সংযোগ।

৯টু৫ম্যাক প্রতিবেদনে বলেছে, আইফোন ১৫ মডেলে আগের চেয়ে দ্রুতগতির (৩৫ ওয়াট) চার্জিং রেট থাকতে পারে।

গত বছর সরবরাহ চেইন বিশেষজ্ঞ রস ইয়াং দাবি করেন, আইফোনের নতুন সংস্করণের সকল মডেলের ফ্রন্ট ক্যামেরা অংশে থাকতে পারে নতুন ‘ডাইনামিক আইল্যান্ড’ সুবিধা।

এবারের আয়োজনে উল্লেখযোগ্য বদলগুলোর মধ্যে থাকতে পারে আইফোন প্রো ও প্রো ম্যাক্স মডেলে টাইটেনিয়াম কেসিং সংযোজন ও তুলনামূলক পাতলা বেজেল। পাশাপাশি, ফোনের দামও বাড়াতে পারে মার্কিন এ টেক জায়ান্ট।

আইফোনের রঙেও কয়েকটি বদল আনতে পারে অ্যাপল। ৯টু৫ম্যাকের প্রতিবেদন অনুযায়ী, এর সোনালি রং বদলে এতে ‘ধূসর’ রঙের টাইটান প্রলেপ বসাতে পারে কোম্পানিটি। এর পাশাপাশি, নতুন ‘গাঢ় নীল’ রঙের মডেলও উন্মোচন করতে পারে অ্যাপল। আর কোম্পানির আমন্ত্রণপত্রে নীল, ধূসর ও কালো রঙের থিম যুক্ত করা এর সম্ভাব্য ঝলক হতে পারে বলে প্রতিবেদনে লিখেছে ভার্জ।

অন্যদিকে ইঙ্গিত মিলেছে, আইফোন ১৫’র মূল সংস্করণ আসতে পারে কালো, সবুজ, নীল, হলুদ ও গোলাপি রঙে।

অ্যাপল ওয়াচ লাইনআপে বড় আপডেট

এবারের আয়োজনে আইফোন ১৫’র পাশাপাশি নতুন শ্রেণির স্মার্টওয়াচেরও প্রথম ঝলক দেখাতে পারে অ্যাপল। এখন পর্যন্ত বড় কোনো পরিবর্তনের কথা শোনা না গেলেও প্রিমিয়াম সংস্করণের ‘অ্যাপল ওয়াচ আল্ট্রার’ বাইরের অংশে যুক্ত হতে পারে তুলনামূলক গাঢ় রঙের টাইটেনিয়াম কেইস। অনুমান বলছে, ‘ওয়াচ সিরিজ ৯’-এ থাকতে পারে আপডেট করা ‘এস৯’ প্রসেসর।

মার্কিন বাণিজ্য প্রকাশনা ব্লুমবার্গের অ্যাপল বিশ্লেষক মার্ক গারম্যানের মতে, এস৯ চিপটি তৈরি হয়েছে ‘এ১৫’ প্রসেসরের ভিত্তিতে, যা আইফোন ১৩’তে চালু করেছিল অ্যাপল। ফলে, আগের ঘড়িগুলোতে ব্যবহৃত ‘এস৮’ চিপের তুলনায় এর কার্যকারিতা বেড়ে যাওয়ার পাশাপাশি ব্যাটারি লাইফেও উন্নতি ঘটবে। আর আগের দুই ‘ওয়াচ’ মডেলে ব্যবহৃত প্রসেসরের মতো এতে একই প্রযুক্তি ব্যবহৃত হয়েছে।

ওয়াচ সিরিজ ৯’তে আসতে পারে এমন আপডেটগুলোর মধ্যে রয়েছে গোলাপি রংও চুম্বকযুক্ত ব্যান্ডের সুবিধা। তবে, এ আয়োজনে ‘ওয়াচ এসই’র ঝলক দেখার সম্ভাবনা কম। এই আপডেট সাধারণত দুই বছর পরপর আসে। আর গত বছরই এর নতুন সংস্করণ উন্মোচন করেছিল অ্যাপল।

ইউএসবি-সি চার্জিং কেইসযুক্ত এয়ারপড

আইফোন ১৫ অ্যাপলের একমাত্র ডিভাইস নয়, যেখানে ইউএসবি-সি পোর্ট আসতে পারে। গত বছর কুও বলেন, ২০২৩ সালে অ্যাপলের এয়ারপডের সঙ্গে থাকতে পারে ‘ইউএসবি-সি চার্জিং কেইস’। আর এখন ওই ভবিষ্যদ্বাণীই বাস্তব হওয়ার দ্বারপ্রান্তে।

জানুয়ারিতে কুও বলেন, অ্যাপল তাদের চতুর্থ প্রজন্মের এয়ারপডের শিপমেন্ট শুরু করতে পারে ২০২৪ সালের দ্বিতীয়ার্ধে বা ২০২৫ সালের প্রথমার্ধে। সে সময় তুলনামূলক সাশ্রয়ী ৯৯ ডলারের এয়ারপড ও দ্বিতীয় প্রজন্মের ‘এয়ারপড ম্যাক্স’ আনতে পারে অ্যাপল।

আর যদি এ বছরের মধ্যেই চতুর্থ প্রজন্মের এয়ারপড আনার পরিকল্পনা থাকে, সে ক্ষেত্রে এতে থাকতে পারে ‘এইচ২’ চিপ, যা গত বছর প্রকাশিত ‘এয়ারপড প্রো’তেও ছিল। আর এতে ব্যাটারি লাইফ ও সাউন্ড কোয়ালিটিও আগের চেয়ে উন্নত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

আইওএস ১৭, ম্যাকওএস সোনোমা সংশ্লিষ্ট তথ্য

অ্যাপলের আসন্ন আয়োজনে নতুন আইফোন ও ওয়াচ প্রকাশের পাশাপাশি ‘আইওএস ১৭’ ও ‘ওয়াচওএস ১০’ প্রকাশের তারিখও জানার সম্ভাবনা আছে। তবে, ‘আইপ্যাডওএস ১৭’ ও ‘ম্যাকওএস সোনোমা’ আসতে পারে এ বছরের শেষ নাগাদ। আর প্রচলিত ধারা অব্যাহত রেখে অ্যাপল এইসব অপারেটিং সিস্টেম প্রকাশ করতে পারে অক্টোবরে।

তবে, অপারেটিং সিস্টেমগুলোর বেটা সংস্করণ বেশ কিছু দিন আগেই এসেছে, যেখান থেকে ব্যবহারকারী এদের সম্ভাব্য ঝলক পেতে পারেন বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করেছে ভার্জ।

আইওএস ১৭’র বেটা সংস্করণে তুলনামূলক কম আপগ্রেড এলেও এগুলো গুরুত্বপূর্ণ। এর মধ্যে রয়েছে ‘স্ট্যান্ডবাই মোড’, ‘ভয়েসমেইল ট্রান্সক্রিপশন’ ও জার্নাল অ্যাপ। আর ম্যাকওএস সোনোমায় যুক্ত হয়েছে নতুন উইজেট ও গেইমমোড। এ ছাড়া, সাফারি ব্রাউজারে যুক্ত হয়েছে ‘প্রোফাইলস’ ফিচার।

আইপ্যাডওএস১৭’র বেলায় এতে পারসোনালাইজ করা লক স্ক্রিন, প্রাণবন্ত উইজেট, হেলথ অ্যাপ এবং ইউএসবি ওয়েবক্যাম ও ক্যামেরা সমর্থনের সুবিধা যোগ করছে অ্যাপল।

আর কী আছে?

অ্যাপল এমন কয়েকটি কিছু পণ্য নিয়ে কাজ করছে, যা আসন্ন আয়োজনে নাও দেখা যেতে পারে। এর মধ্যে রয়েছে নতুন ম্যাক ও আইপ্যাড, যা মূলত অক্টোবরের আয়োজনে প্রকাশ করে থাকে কোম্পানিটি।

এবারের শরতে নতুন আইম্যাক, ১৩ ইঞ্চির ম্যাকবুক এয়ারের পাশাপাশি ১৩ ইঞ্চির ম্যাকবুক প্রো ডিভাইসও উন্মোচিত হতে পারে। আর সেসব ডিভাইসে থাকতে পারে অ্যাপলের নিজস্ব ‘এম৩ চিপ’।

এদিকে, খবর চাউর হয়েছে যে নতুন সপ্তম প্রজন্মের আইপ্যাড মিনি উন্মোচন করতে পারে অ্যাপল।

তবে, এতগুলো চমকপ্রদ উন্মোচনের পরও সবার নজর এখনও তিন হাজার চারশ ৯৯ ডলারের অ্যাপল ভিশন প্রো’র ওপর, আসতে পারে আগামী বছরের শুরুতে। তবে, কয়েক মাস আগে থেকেই ডিভাইসটি নিয়ে আরও তথ্য পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করেছে ভার্জ।