হ্যাকারদের চুরি করা তিন কোটি ডলারের ক্রিপ্টো মুদ্রা উদ্ধার করেছে যুক্তরাষ্ট্র

চেইন অ্যানালাইসিস বলছে, উত্তর কোরীয় হ্যাকারদের চুরি করা ক্রিপ্টো মুদ্রা উদ্ধার হওয়ার প্রথম ঘটনা এটি।

প্রযুক্তি ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 9 Sept 2022, 01:29 PM
Updated : 9 Sept 2022, 01:29 PM

উত্তর কোরীয় হ্যাকারদের চুরি করা তিন ডলার সমমূল্যের ক্রিপ্টো মুদ্রা জব্দ করেছে যুক্তরাষ্ট্রের আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী।

মার্চ মাসে জনপ্রিয় ‘প্লে-টু-আর্ন’ গেইম অ্যাক্সি ইনফিনিটির রোনিন নেটওয়ার্ক থেকে ওই ক্রিপ্টো মুদ্রা চুরি করেছিল ‘ল্যাজারাস’ নামে পরিচিতি হ্যাকারদের দলটি।

বৃহস্পতিবারে চোরাই ক্রিপ্টো মুদ্রা উদ্ধার হওয়ার খবর নিশ্চিত করেছে ক্রিপ্টো মুদ্রার বাজার বিশ্লেষক প্রতিষ্ঠান চেইনঅ্যানালাইসিস। উত্তর কোরীয় হ্যাকারদের চুরি করা ক্রিপ্টো মুদ্রা উদ্ধার হওয়ার প্রথম ঘটনা এটি।

এক ব্লগ পোস্টে যুক্তরাষ্ট্রের আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীকে চোরাই মুদ্রা উদ্ধারে সহযোগিতা করার খবর জানিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। ক্রিপ্টো মুদ্রা খাতের আরও কয়েকটি প্রতিষ্ঠান এক্ষেত্রে কাজ করেছে বলে উল্লেখ করলেও প্রতিষ্ঠানগুলোর নাম প্রকাশ করেনি চেইনঅ্যানালাইসিস।

বিস্তারিত জানতে চেইনঅ্যানালাইসিস আর জাতিসংঘে উত্তর কোরিয়ার মিশনের সঙ্গে যোগাযোগ করেও তাৎক্ষণিক কোনো উত্তর পায়নি বার্তা সংস্থা রয়টার্স। রয়টার্সের অনুসন্ধানে সাড়া দেয়নি এফবিআইও।

চেইনঅ্যানালাইসিস জানিয়েছে, রোনিন নেটওয়ার্ক থেকে চুরি হওয়া ক্রিপ্টো মুদ্রার ১০ শতাংশ উদ্ধার করতে পেরেছে তারা। অ্যাক্সি ইনফিনিটির অভ্যন্তরীণ মুদ্রা রোনিন নেটওয়ার্কের মাধ্যমে ক্রিপ্টো মুদ্রায় রূপান্তরের সুযোগ পেতেন গেইমাররা।

মার্চ মাসেই রোনিন জানিয়েছিল, ৬১ কোটি ৫০ লাখ ডলার সমমূল্যের ক্রিপ্টো মুদ্রা হাতিয়ে নিয়েছে হ্যাকাররা।

ক্রিপ্টো খাতে উত্তর কোরীয় হ্যাকারদের দৌরাত্ম প্রসঙ্গে চেইনঅ্যানালাইসিস বলছে, “আমরা ধারণা করছি যে, ২০২২ সালে এখন পর্যন্ত উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট হ্যাকাররা ‘ডিফাই’ প্রোটোকল থেকে প্রায় একশ কোটি ডলারের ক্রিপ্টো মুদ্রা চুরি করেছে।”

উন্মুক্ত ব্লকচেইনের আর্থিক লেনদেনের সেবাগুলোকেই ‘ডিসেন্ট্রালাইজড ফাইন্যান্স’ বা ডিফাই হিসেবে চিহ্নিত করা হয় ক্রিপ্টো মুদ্রা খাতে।

মে মাসে ভার্চুয়াল কারেন্সি অদল-বদলের প্ল্যাটফর্ম ‘ব্লেন্ডার’-এর ওপর নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের ট্রেজারি বিভাগ। অ্যাক্সি ইনফিনিটি থেকে চুরি যাওয়া ক্রিপ্টো মুদ্রা ব্লেন্ডারের মাধ্যমে পাচার করা হয়েছিল বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

আর এপ্রিল মাসেই অ্যাক্সির ওপর সাইবার হামলার সঙ্গে ল্যাজারাসের সংশ্লিষ্টতা উদঘাটন করেছিল ট্রেজারি বিভাগ।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক