নাপোলির মাঠে উজ্জ্বল শুরুর পর বিবর্ণ বার্সেলোনা

চ্যাম্পিয়ন্স লিগের নক আউট পর্বে প্রতিপক্ষের মাঠে জয়ের জন্য অপেক্ষা বাড়ল স্প্যানিশ চ্যাম্পিয়নদের।

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 21 Feb 2024, 09:57 PM
Updated : 21 Feb 2024, 09:57 PM

ঝলমলে শুরুর পর ধীরে ধীরে বর্ণ হারাল বার্সেলোনা। বলের দখল হারানোর সঙ্গে যেন হারিয়ে ফেলল আত্মবিশ্বাসও। অন্যদিকে, নড়বড়ে শুরুর পর সময়ের সঙ্গে ছন্দ খুঁজে পেল নাপোলি। বাজে সময়ের মধ্য দিয়ে যাওয়া দলটি রুখে দিল স্প্যানিশ চ্যাম্পিয়নদের।

উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগে শেষ ষোলোর প্রথম পর্বের লড়াইটি শেষ হলো ১-১ সমতায়। রবের্ত লেভানদোভস্কির গোলে বার্সেলোনা এগিয়ে যাওয়ার পর নাপোলিকে সমতায় ফেরান ভিক্টর ওসিমেন।

দিয়েগো আরমান্দো মারাদোনা স্টেডিয়ামে আর্জেন্টাইন কিংবদন্তির সাবেক দুই দলের লড়াইয়ে শুরুতে রাজত্ব করে বার্সেলোনা। তাদের আক্রমণের ঝাপটা সামলে ধীরে ধীরে ঘুরে দাঁড়ায় নাপোলি। প্রথমার্ধের শেষ দিকে অনেকটা সময় বল দখলে রাখলেও তেমন কোনো সুযোগ তৈরি করতে পারেনি তারা। বিরতির আগে গোলের জন্য নিতে পারেনি একটিও শট।

প্রথম ২২ মিনিটে গোলের জন্য ছয়টি শট নেয় বার্সেলোনা, এর তিনটি ছিল লক্ষ্যে। গোলপোস্টের নিচে আলেক্স মেরেত ছিলেন স্বাগতিকদের আস্থার প্রতীক হয়ে। সব শটই ঠেকিয়ে দেন ইতালিয়ান গোলরক্ষক।

ওয়াল্তার মাজ্জারির জায়গায় কোচ হয়ে আসা ফ্রানচেস্কো কালজোনার দলের শুরুটা মোটেও ভালো হয়নি। নাপোলি যেন সে সময় খুঁজে ফিরছিল নিজেদের।

চতুর্থ মিনিটে গোলের প্রথম সুযোগ পায় বার্সেলোনা। ইলকাই গিনদোয়ানের কাছ থেকে বল পেয়ে ১২ গজ দূর থেকে শট নেন লামিনে ইয়ামাল। অফসাইডের ফাঁদ এড়িয়ে যেতে পারলেও লক্ষ্য খুঁজে পাননি এই তরুণ।

পাঁচ মিনিট পর তার শট ছিল লক্ষ্যেই। তবে শরীরের বেশ কাছে বল ফেরাতে সমস্যা হয়নি মেরেতের। ফিরতি বলে সুযোগ ছিল, কিন্তু ডি-বক্সে স্বাগতিকদের অনেক খেলোয়াড়ের ভিড়ে সেটা কাজে লাগাতে পারেননি বার্সেলোনার কেউ।

২২তম মিনিটে পেদ্রির কাটব্যাকে সুযোগ পান লেভানদোভস্কি। পোলিশ স্ট্রাইকারের শট দারুণ রিফ্লেক্সে পা দিয়ে ব্যর্থ করে দেন নাপোলি গোলরক্ষক। কয়েক সেকেন্ড পর গিনদোয়ানের বুলেট গতির শটও ঝাঁপিয়ে কর্নারের বিনিময়ে ঠেকান মেরেত।

প্রথমার্ধের পরের সময়টুকুতে তেমন কোনো সুযোগ তৈরি করতে পারেনি কোনো দলই। 

দ্বিতীয়ার্ধের প্রথম সুযোগটা পায় বার্সেলোনাই। ইয়ামালের কাছ থেকে ডি-বক্সের মাথায় বল পেয়ে শট নেন গিনদোয়ান। লক্ষ‍্য ঠিক ছিল, কিন্তু গতি ছিল না খুব একটা। তাই সহজেই নিয়ন্ত্রণে নেন মেরেত।

৬০তম মিনিটে লেভানদোভস্কির ঠাণ্ডা মাথার চমৎকার ফিনিশিংয়ে এগিয়ে যায় বার্সেলোনা। পেদ্রির কাছ থেকে ডি-বক্সের মাথায় বল পান তারকা স্ট্রাইকার। দ্রুত ঘুরে গিয়ে দুই খেলোয়াড়ের চ‍্যালেঞ্জ এড়িয়ে বাঁ পাশের পোস্ট ঘেঁষে জাল খুঁজে নেন তিনি। ঝাঁপিয়েও বলের নাগান পাননি গোলরক্ষক।

চলতি আসরে এটি কেবল লেভানদোভস্কির দ্বিতীয় গোল।

ছয় মিনিট পর পেদ্রির বুলেট গতির শট কর্নারের বিনিময়ে ফিরিয়ে ব‍্যবধান বাড়তে দেননি মেরেত।

খেলার ধারার বিপরীতে ৭৫তম মিনিটে সমতা ফেরান ওসিমেন। সঙ্গে লেগে থাকা খেলোয়াড়ের চ‍্যালেঞ্জ এড়িয়ে বাঁ দিকের পোস্ট ঘেঁষে জাল খুঁজে নেন নাইজেরিয়ান স্ট্রাইকার। লক্ষ‍্যে এটাই ছিল নাপোলির প্রথম শট। গোলের পরই মাঠ ছাড়েন ওসিমেন।

সমতা ফেরার পর গোলের জন্য মরিয়া হয়ে উঠবে কী, উল্টো অনেকটাই রক্ষণে গুটিয়ে যায় বার্সেলোনা। শেষের সময়টুকুতে তাদের বেশ চেপে ধরে নাপোলি। কিন্তু খুব ভালো কোনো সুযোগ তৈরি করতে পারেনি তার।

যোগ করা সময়ে জয়সূচক গোল প্রায় পেয়েই যাচ্ছিল বার্সেলোনা। ডি-বক্সের বাইরে থেকে একটুর জন‍্য জার্মান মিডফিল্ডার গিনদোয়ানের শট থাকেনি লক্ষ‍্যে।

আগামী ১২ মার্চ বার্সেলোনার মাঠে হবে ফিরতি লেগ।

একই সময়ে শুরু আরেক ম‍্যাচে শেষ সময়ের গোলে আর্সেনালকে ১-০ ব্যবধানে হারিয়েছে পোর্তো। ড্র হওয়ার পথে থাকা ম‍্যাচে একক চেষ্টায় ব‍্যবধান গড়ে দিয়েছেন গালেনো।

যোগ করা সময়ের তৃতীয় মিনিট বল পেয়ে একটু এগিয়ে দূরপাল্লার শটে জাল খুঁজে নেন ব্রাজিলিয়ান উইঙ্গার। দ্বিতীয় লেগ হবে আগামী ১২ মার্চ, এমিরেটস স্টেডিয়ামে।