হাল ছেড়ে দিয়ে লেভারকুজেনকে অভিনন্দন জানালেন বায়ার্ন কোচ

আরও একটি পরাজয়ের পর বায়ার্ন মিউনিখের কোচ টমাস টুখেল মেনে নিলেন, শিরোপা ধরে রাখার কোনো আশা আর নেই তাদের।

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 31 March 2024, 06:13 AM
Updated : 31 March 2024, 06:13 AM

অনেকটা নিবু নিবু হলেও আশার প্রদীপ জ্বলছিল টমাস টুখেলের মনে। কিংবা কোচ হিসেবে দলকে উজ্জীবিত করার জন্য হলেও সুড়ঙ্গের শেষে আলোর কথা বলছিলেন তিনি। কিন্তু আরও একটি পরাজয়ের পর বাস্তবতার কাছে আত্মসমর্পণ করেই নিলেন বায়ার্ন মিউনিখ কোচ। বুন্ডেসলিগার শিরোপা ধরে রাখার লড়াইয়ে ক্ষান্তি দিয়ে তিনি আগাম শুভেচ্ছা জানিয়ে রাখলেন সম্ভাব্য চ্যাম্পিয়ন বায়ার লেভারকুজেনকে।

বুন্ডেসলিগায় বায়ার্নের দীর্ঘদিনের একচ্ছত্র আধিপত্য যে এবার শেষ হতে চলেছে, তা এখন নিশ্চিতই বলা চলে। তাদের চলছে চরম দুঃসময়, অন্যদিকে শাবি আলোন্সোর কোচিংয়ে বায়ার লেভারকুজেন কাটাচ্ছে তাদের ইতিহাসের সেরা সময়। অপ্রতিরোধ্য পথচলায় ক্লাবের ইতিহাসে প্রথমবার লিগ শিরোপা জয়ের পথে ছুটছে তারা।

পয়েন্ট তালিকায় দুই দলের ব্যবধান আরও বেড়েছে শনিবার। বরুশিয়া ডর্টমুন্ডের কাছে নিজেদের মাঠেই ২-০ গোলে হেরে গেছে বায়ার্ন। একই দিনে হফেনহাইমের বিপক্ষে ৮৭ মিনিট পর্যন্ত এক গোলে পিছিয়ে থেকেও শেষ পর্যন্ত ২-১ গোলে জিতেছে লেভারকুজেন।

গত মৌসুমে ৭১ পয়েন্ট নিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল বায়ার্ন। এবার ২৭ ম্যাচেই ৭৩ পয়েন্ট হয়ে গেছে লেভারকুজেনের। সমান ম্যাচে বায়ার্নের পয়েন্ট ৬০।

ডর্টমুন্ডের কাছে হারার পর টুখেলকে জিজ্ঞেস করা হলো, শিরোপা লড়াই কি তাহলে এখন শেষ বলা যায়? স্কাই স্পোর্টস জার্মানিকে উত্তরটা সরাসরিই দিয়ে দিলেন বায়ার্ন কোচ, “হ্যাঁ, অবশ্যই। আজকের খেলার পর আর পয়েন্ট গোনার দরকার নেই। কত এখন (ব্যবধান)…? লেভারকুজেনকে অভিনন্দন।”

লেভারকুজেনের প্রায় ১২০ বছরের ইতিহাসে বুন্ডেসলিগায় তাদের সেরা সাফল্য ২০১১-১২ মৌসুমে রানার্স আপ হওয়া। সেবারই সবশেষ লিগ শিরোপার স্বাদ পেয়েছিল বায়ার্ন ছাড়া অন্য কোনো দল। ২০১০-১১ ও ২০১১-১২ মৌসুমে টানা চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল বরুশিয়া ডর্টমুন্ড।

এরপর বুন্ডেসলিগার ইতিহাসের প্রথম দল হিসেবে টানা চার মৌসুমে শিরোপা জয় করে বায়ার্ন। সেখানেই না থেমে অবিশ্বাস্য ধারাবাহিকতায় তারা চ্যাম্পিয়ন হয় টানা ১১ মৌসুমে। সেই ধারাতেই ছেদ পড়তে যাচ্ছে এবার।

ডর্টমুন্ডের কাছে হারার পর টুখেল হতাশ দলের মানসিকতায়। 

“আমরা অবশ্যই হতাশ, কারণ ম্যাচ জয়ের প্রয়োজনীয় তাড়না আমাদের ছিল না। মৌলিক ব্যাপারগুলোর সামান্যই আমরা করতে পেরেছি।”