ফরিদপুরে স্ত্রী নির্যাতন মামলায় পরিদর্শকের আড়াই বছরের সাজা

স্ত্রীর অভিযোগ, ১৫ লাখ টাকা যৌতুক নিয়েও তিনি খুশি হননি এবং ছেলের মুখও দেখেননি।

ফরিদপুর প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 16 August 2022, 05:34 PM
Updated : 16 August 2022, 05:34 PM

যৌতুকের জন্য স্ত্রীকে মারধর-নির্যাতনের মামলায় পুলিশের এক পরিদর্শককে আড়াই বছরের কারাদণ্ডাদেশ দিয়েছে আদালত। তাছাড়া তাকে ২০ হাজার টাকা জরিমানা করেছে একই আদালত।

ফরিদপুরের নারী ও শিশুনির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক জেলা ও দায়রা জজ প্রদীপ কুমার রায় মঙ্গলবার বিকালে এ রায় ঘোষণা করেন।

রায় ঘোষণার সময় সাজাপ্রাপ্ত মো. শামসুদ্দোহা (৪০) আদালতের কাঠগড়ায় ছিলেন।

শামসুদ্দোহা গোপালগঞ্জ জেলার মুকসুদপুর উপজেলার পশ্চিম গোপীনাথপুর গ্রামের নুরুদ্দিন আহম্মেদের ছেলে। গত ২৫ ফেব্রুয়ারি পুলিশ ঢাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে।

আদালতের পিপি স্বপন পাল মামলার নথির বরাতে জানান, শামসুদ্দোহা চুয়াডাঙ্গা জেলার দর্শনা থানায় পরিদর্শক (তদন্ত) হিসেবে কর্মরত থাকা অবস্থায় তার স্ত্রী ফরিদপুর কোতোয়ালি থানায় মামলা করেন গত ৯ ফেব্রুয়ারি।

মামলার নথি অনুযায়ী, ২০১৫ সালের ৭ অগাস্ট পারিবারিকভাবে বিয়ে হয় তাদের। ২০১৯ সালের নভেম্বর স্ত্রীর কাছে যৌতুক চান স্বামী। না দেওয়ায় মারধর করেন। তিনি চাকরিতে পদোন্নতির জন্য ৭০ লাখ টাকা চান স্ত্রীর কাছে। সে সময় তাকে ১৫ লাখ টাকা দেন স্ত্রীর বাবা। কিন্তু তিনি তাতে খুশি হননি। নির্যাতন বাড়তে থাকে।

পরে অন্তঃসত্ত্বা অবস্থায় বাবার বাড়িতে চলে যান স্ত্রী। ছেলের মা হন। এখন ছেলের বয়স দুই বছর। পরিদর্শক সন্তানের মুখ দেখেননি বলেও মামলায় অভিযোগ করেন স্ত্রী।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক