লক্ষ্মীপুরে ‘বাবার দেওয়া আগুনে’ অঙ্গার ঘুমন্ত ২ শিশু, দগ্ধ মা

ওই দুই শিশুর মায়ের শরীরের ৫০ শতাংশ পুড়ে গেছে বলে জানিয়েছে চিকিৎসক।

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 28 Nov 2023, 05:52 PM
Updated : 28 Nov 2023, 05:52 PM

লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলায় ঘুমন্ত স্ত্রী ও দুই সন্তানকে বসতঘরে দরজা বন্ধ করে আগুন দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে। এতে দুই শিশু মারা গেছে; আর তাদের মা দগ্ধ হয়েছেন।

মঙ্গলবার ভোরে সদর উপজেলার বশিকপুর ইউনিয়নের বশিকপুর গ্রামের চতল্লা বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে বলে জানিয়েছেন চন্দ্রগঞ্জ থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মফিজ উদ্দিন।

এ ঘটনার পর ওই দুই শিশুর বাবা পুলিশের কাছে আত্মসমর্পণ করেছেন বলে জানান তিনি।

আটক কামাল হোসেন (৪০) ওই বাড়ির প্রয়াত আমিন উল্যার ছেলে। তিনি পেশায় অটোরিকশা চালক।

নিহত দুই শিশু হলো- সাত বছরের আয়েশা আক্তার এবং তিন বছরের আবদুর রহমান।

দগ্ধ সুমাইয়া আক্তার (৩৫) ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন।

বশিকপুর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান মাহফুজুর রহমান বলেন, “কামালের সঙ্গে তার স্ত্রীর পারিবারিক কলহ চলছিল। স্ত্রী ও দুই সন্তানকে নিয়ে একটি সেমিপাকা টিনশেড ঘরে থাকতেন তিনি।

“সোমবার রাতে স্ত্রী ও দুই সন্তান ঘুমিয়ে গেলে কামাল বাইরে থেকে দরজা বন্ধ করে ঘরে আগুন লাগিয়ে দেন। আগুনে পুড়ে ঘটনাস্থলেই তার মেয়ে আয়েশা মারা যায়। দগ্ধ স্ত্রী সুমাইয়া এবং ছেলে আবদুর রহমানকে প্রথমে জেলা সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়।

চেয়ারম্যান মাহফুজুর রহমান আরও বলেন, “সেখান থেকে ইউনিয়ন পরিষদের অ্যাম্বুলেন্সে করে তাদের ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে পাঠানো হয়। দুপুরের দিকে আবদুল রহমান চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায়। তার মায়ের অবস্থাও আশঙ্কাজনক।”

চিকিৎসকের বরাতে ঢাকা মেডিকেলে থাকা সুমাইয়ার চাচাত ভাই মো. শাহ আলম মোবাইল ফোনে সাংবাদিকদের জানান, সুমাইয়ার শরীরের ৫০ শতাংশ পুড়ে গেছে।

খবর পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে দুই শিশুর মরদেহ উদ্ধার করে সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে পুলিশ।

লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা আনোয়ার হোসেন বলেন, ভোরে মা ও ছেলেকে হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। তাদেরকে ঢাকায় পাঠানো হয়েছে।

নিহতদের বাবা কামালকে আটকের কথা জানিয়ে পুলিশ পরিদর্শক মফিজ উদ্দিন বলেন, এ ঘটনায় আইনি ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন।