ডেঙ্গু: টেকনাফে অগাস্টের ১২ দিনে শনাক্ত ৫০৮ জন

ডেঙ্গু রোগীদের বিশেষ নজরে রাখা হচ্ছে বলে টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্রের চিকিৎসকেরা জানিয়েছেন।

টেকনাফ প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 13 August 2022, 07:28 AM
Updated : 13 August 2022, 07:28 AM

কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলায় চলতি বছরের জুন মাসে প্রথম ডেঙ্গু রোগী শনাক্ত হয়েছিল; দুই মাসের ব্যবধানে এর প্রকোপ বেড়েছে। আক্রান্তদের মধ্যে ৩০ জন উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্রে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

টেকনাফ উপজেলায় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের তথ্য অনযায়ী, গত জুন থেকে অগাস্টের ১২ তারিখ পর্যন্ত এ উপজেলায় মোট এক হাজার ৪৪০ জনের শরীরে ডেঙ্গুর ভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এর মধ্যে অগাস্টের প্রথম ১২ দিনেই শনাক্ত হয়েছে ৫০৮ জন।

টেকনাফ উপজেলায় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ও রোগ নিয়ন্ত্রক প্রণয় রুদ্র বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, জুন মাসে টেকনাফে এ বছরের প্রথম ডেঙ্গু রোগী শনাক্ত হয়। এর পরের মাসের প্রায় প্রতিদিন জ্বর, মাথাব্যথা ও শরীর ব্যথা নিয়ে অনেকেই হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। তাদের রক্ত পরীক্ষা করে অনেকের শরীরে ডেঙ্গুর ভাইরাস শনাক্ত হয়েছে।

সরেজমিনে দেখা যায়, টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ডেঙ্গু আক্রান্তদের জন্য নতুন দুটি পুরুষ ও মহিলা ওয়ার্ড খোলা হয়েছে । ওই দুই ওয়ার্ডে বর্তমানে ৩০ জন রোগীকে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

টেকনাফ শাহ পরীর দ্বীপ উত্তর পাড়ার ৫০ বছর বয়সী জাহেদ হোসেন ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে এ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। তিনি বলেন, ছেলে ও স্ত্রী দুই সপ্তাহ আগে ডেঙ্গু ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছিল। তারা সুস্থ হওয়ার পর তিনি আক্রান্ত হয়েছেন।

টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য ও পরিবার-পরিকল্পনা কর্মকর্তা টিটু চন্দ্র শীল বলেন, “আক্রান্তদের মধ্যে ৩০ জন বর্তমানে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নিচ্ছেন। আর শ্বেত রক্তকণিকা (প্ল্যাটিলেট) কমে যাওয়ায় আক্রান্ত কয়েকজনকে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে উন্নত চিকিৎসার জন্য পাঠানো হয়েছে।”

তবে অধিকাংশ রোগীই বাড়িতে থেকেই চিকিৎসা নিচ্ছেন বলে জানান এ চিকিৎসক।

ডেঙ্গু রোগীদের বিশেষ নজরে রাখা হচ্ছে জানিয়ে টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক চিকিৎসক এনামুল হক বলেন, ডেঙ্গু প্রতিরোধে বাড়ির আঙিনা পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখতে এবং মশারি ব্যবহার করতে স্বাস্থ্য বিভাগ ও উপজেলা পরিষদের পক্ষে এলাকায় এলাকায় মাইকিং করা হচ্ছে।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক