শূন্যরেখায় দুই বাংলার মিলনমেলা

“বাঙালির অর্জনকে দুই বাংলা একসঙ্গে পালন করছে। এটা খুবই গর্বের। দুই দেশের সোহার্দ্য-সম্প্রীতি ও মৈত্রীতে এ অনুষ্ঠান অনুপ্রেরণা যোগাবে।”

বেনাপোল প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 21 Feb 2024, 09:11 AM
Updated : 21 Feb 2024, 09:11 AM

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে যশোরের বেনাপোল সীমান্তের শূন্যরেখায় নির্মিত অস্থায়ী শহীদ মিনারে ভাষা শহীদদের প্রতি ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানিয়েছেন দুই দেশের বাংলাভাষীরা।

বুধবার সকাল থেকে দুই বাংলার কবি-সাহিত্যিক-শিল্পী ও রাজনীতিবিদদের পদচারণায় মুখর হয়ে ওঠে ভারতের পেট্রাপোল আর বাংলাদেশের বেনাপোলের শূন্যরেখা।

বেলা ১১টায় ভারতের পক্ষে পশ্চিমবঙ্গ বনগাঁও অঞ্চলের বিধায়ক নারায়ণ গোস্বামী ও বাংলাদেশের পক্ষে যশোর-১ আসনের সংসদ সদস্য শেখ আফিল উদ্দীন শহীদ বেদীতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান।

এ সময় দুই দেশের শত শত মানুষ এতে অংশ নেন এবং একে অপরের সঙ্গে শুভেচ্ছা ও মিষ্টি বিনিময় করেন।

বেনাপোলে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা উদযাপন পরিষদ আর পশ্চিমবঙ্গের বনগাঁ পৌরসভা ২০০২ সাল থেকে যৌথভাবে এ অনুষ্ঠানটি করে আসছে। এবারই প্রথম বাংলাদেশ অংশে কোনো অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়নি; তবে ভারতের পেট্রাপোলে আইসিপি বিএসএফ ক্যাম্পের সামনে মঞ্চ বানিয়ে ভাষা দিবসের অনুষ্ঠান হয়।

যশোর-১ শার্শা আসনের সংসদ সদস্য শেখ আফিল বলেন, “নিজের ভাষার জন্য পৃথিবীর আর কোনো দেশ রক্ত দেয়নি। এ দেশের দামাল ছেলেরা রক্ত দিয়ে সারাবিশ্বে বাংলা ভাষার স্বীকৃতি এনে দিয়েছে। বাংলাদেশকে বিভক্ত করা হলেও ভাষাকে বিভক্ত করা যায়নি।

“বাঙালির অর্জনকে দুই বাংলা একসঙ্গে পালন করছে। এটা খুবই গর্বের। দুই দেশের সোহার্দ্য-সম্প্রীতি ও মৈত্রীতে এ অনুষ্ঠান অনুপ্রেরণা যোগাবে।”

বিধায়ক নারায়ণ গোস্বামী বলেন, “ভাষার টানে বাঙালি জাতির নাড়ির টানে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন করতে এখানে এসেছি। একুশের গৌরবের উত্তরাধিকারী পৃথিবীর সব বাঙালি। এর ব্যাপ্তি শুধু ভাষার মধ্যে সীমাবদ্ধ নয়, অনেক বিস্তৃত।"

দিবসটি ঘিরে কড়াকড়ি নিরাপত্তা আরোপ করা হয় দুই সীমান্তে। বিশৃঙ্খলা এড়াতে বেনাপোল-পেট্রাপোল চেকপোস্টে বিজিবি ও বিএসএফের বাড়তি সদস্য মোতায়েন করা হয়।