তেলে চুরি: জেলায় জেলায় ফিলিং স্টেশনে জরিমানা

দিনব্যাপী অভিযানে ডিজেল, পেট্রোল ও অকটেনের মাপে কারচুপি করায় বেশকিছু ফিলিং স্টেশনকে জরিমানা করা হয়েছে।

নিউজ ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 7 August 2022, 04:25 PM
Updated : 7 August 2022, 04:25 PM

জ্বালানি তেলের মূল্য বৃদ্ধির পর দেশের বিভিন্ন স্থানে ফিলিং স্টেশনে অভিযান চালিয়ে পরিমাপে চুরির ঘটনা ধরে জরিমানা আদায় করেছে।

জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর রোববার বরিশাল, চুয়াডাঙ্গা, কুমিল্লা, হবিগঞ্জ, কিশোরগঞ্জ, নারায়ণগঞ্জ, কুড়িগ্রাম, ফরিদপুরের বিভিন্ন পেট্রোল পাম্পে অভিযান চালায়।

অভিযানে ডিজেল, পেট্রোল ও অকটেনের মাপে কারচুপির প্রমাণ মেলে বলে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক শাহ মো. শোহাইব মিয়া জানিয়েছেন।

প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর

বরিশাল

জ্বালানি তেলের পরিমাপে কারচুপি ও প্রতিশ্রুত পণ্য যথাযথাভাবে সরবরাহ না করায় বরিশাল নগরীর দুইটি পেট্রোল পাম্প থেকে দেড় লাখ টাকা জরিমানা আদায় করা হয়েছে।

দুপুরে এ অভিযান চালানো হয় বলে অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক শাহ মো. শোহাইব মিয়া জানিয়েছেন।

তিনি বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, ক্রেতাকে পরিমাণে কম পেট্রোল দেওয়ায় নগরীর মেসার্স ইসরাইল তালুকদার ফিলিং স্টেশনকে ৫০ হাজার ও মেসার্স কলেজ রোড ফিলিং স্টেশনকে এক লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

“মোট তিনটি ফিলিং স্টেশনে অভিযান চালানো হয়। এর মধ্যে নগরীর কাশিপুরের সুরভী পেট্রোল পাম্পে ক্রেতাদের কাছে বিক্রি করা তেলের পরিমান সঠিক পাওয়া গেছে।”

চুয়াডাঙ্গা

চুয়াডাঙ্গার দুটি ফিলিং স্টেশনে অভিযান চালিয়ে ৬৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

চুয়াডাঙ্গার জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক সজল আহম্মেদ দুপুরে অভিযান চালান।

সজল আহম্মেদ জানান, দামুড়হুদা উপজেলার লোকনাথপুর গ্রামের মেসার্স কেএম ফিলিং স্টেশনে বিক্রি করা পেট্রোল ও অকটেন পরিমাপ করে দেখা যায় গ্রাহকদের কম তেল দেওয়া হচ্ছে।

“হাতেনাতে ধরার পর ওই ফিলিং স্টেশন কর্তৃপক্ষকে ৪৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।”

তিনি বলেন, আরেক অভিযানে উপজেলার দামুড়হুদা ফিলিং স্টেশনে লুব অয়েলের বোতলে কোনো মূল্য লেখা না থাকায় ওই প্রতিষ্ঠানকে ২০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

এ দুই প্রতিষ্ঠানের মালিক জরিমানার টাকা পরিশোধ করেছেন বলে অধিদ্প্তরের এ কর্মকর্তা জানান।

কুমিল্লা

কুমিল্লায় জ্বালানি তেলের পরিমাপে কারচুপি করায় দুটি ফিলিং স্টেশনকে দেড় লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

দুপুরে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের কুমিল্লা জেলা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক মোহাম্মদ আছাদুল ইসলাম এ কথা জানান।

তিনি বলেন, ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের পাশে পদুয়ার বাজার, আলেখারচর ও কালাকচুয়া বিশ্বরোড এলাকার কয়েকটি ফিলিং স্টেশনে অভিযান চালানো হয়। অভিযানে ১২টি ফিলিং স্টেশনের ৩০টি ওজন পরিমাপক যন্ত্র যাচাই করা হয়। এ সময় পরিমাণে কম তেল সরবরাহ করায় এবং পরিমাপক যন্ত্রে কারচুপি করায় পদুয়ার বাজার এলাকার রিভারভিউ সিএনজি ফিলিং স্টেশনকে এক লাখ এবং কালাকচুয়া এলাকার ইস্টজোন ফিলিং স্টেশনকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

অভিযানে পরিমাপক যন্ত্রসহ বিএসটিআই কর্মকর্তা এবং জেলা পুলিশের একটি টিম সার্বিক সহযোগিতা করেছে বলে তিনি জানান।

হবিগঞ্জ

পেট্রোল ও অকটেন পরিমাপে কম দেওয়ায় হবিগঞ্জের বাহুবলে দুই পেট্রোল পাম্প থেকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করেছে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর।

রোববার দুপুরে অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক দেবানন্দ সিনহার নেতৃত্বে এ অভিযান চালানো হয়। শায়েস্তাগঞ্জ র‌্যাব-৯ এর একটি টিম অভিযানে সহযোগিতা করেছে।

দেবানন্দ সিনহা বলেন, পেট্রোল ও অকটেন পরিমাপে কম দেওয়ায় বাহুবলের ‘চেরাগ আলী পেট্রোল পাম্পকে’ ২০ হাজার টাকা এবং একই উপজেলার মিরপুর ইউনিয়নের ‘নিরাপদ পেট্রোল পাম্পকে’ ৩০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

কিশোরগঞ্জ

কিশোরগঞ্জে জ্বালানি তেলের পরিমাপে কম দেওয়ায় দুটি ফিলিং স্টেশনকে তিন লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের কিশোরগঞ্জের সহকারী পরিচালক হৃদয় রঞ্জন বণিক জানান, দুপুরে সদর উপজেলার পাবইকান্দি এলাকায় হিমু ফিলিং স্টেশন এবং চৌদ্দশত এলাকায় গোল্ডেন অয়েল কোং অ্যান্ড ফিলিং স্টেশনকে দেড় লাখ টাকা করে জরিমানা করা হয়।

“ফিলিং স্টেশন দুটিতে ডিজেল, পেট্রোল ও অকটেন বিক্রির সময় পরিমাপে কম দেওয়ায় প্রমাণ পাওয়া যায়।”

পরে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন ২০০৯ অনুযায়ী তিন লাখ টাকা জরিমানা করা হলে ফিলিং স্টেশন দুটির কর্তৃপক্ষ দোষ স্বীকার করে জরিমানা পরিশোধ করে।

অভিযানে জেলা স্যানিটারি ইন্সপেক্টর শংকর চন্দ্র পাল এবং জেলা পুলিশের উপ-পরিদর্শক বদিউজ্জামান উপস্থিত ছিলেন।

নারায়ণগঞ্জ

নারায়ণগঞ্জের একটি ফিলিং স্টেশনে পাঁচ লিটার ডিজেলে ২৩০ মিলি লিটার কম দেওয়ায় এক লাখ টাকা জরিমানা করা হয়।

দুপুরে নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় আলীগঞ্জের মেসার্স জননী ফিলিং স্টেশনে অভিযান চালিয়ে এ জরিমানা করা হয় বলে অধিদপ্তরের জেলা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক মো. সেলিমুজ্জামান জানান।

তিনি বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোরকে বলেন, সদর উপজেলার ফতুল্লায় ঢাকা-মুন্সিগঞ্জ সড়কের পাশে চারটি ফিলিং স্টেশনে অভিযান চালানো হয়।

“আলীগঞ্জের মেসার্স জননী ফিলিং স্টেশনে ডিজেল বিক্রিতে অনিয়ম পাওয়া যায়। ওই প্রতিষ্ঠানে ৫ লিটার ডিজেলে ২৩০ মিলি লিটার কম দেওয়া হচ্ছে ভোক্তাদের।”

তিনি বলেন, এ কারণে পাম্প মালিক থেকে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন ২০০৯ এর ৪৭ ধারায় ৫০ হাজার ও ৪৮ ধারায় ৫০ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়।

এ সময় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীসহ পরিবেশ অধিদপ্তর ও ক্যাবের প্রতিনিধি উপস্থিত ছিলেন।

কুড়িগ্রাম

জ্বালানি তেলের পরিমাপে কারচুপি পাওয়ায় কুড়িগ্রামে শহরের সোনামনি ফিলিং স্টেশনকে ৩০ হাজার টাকা জরিমানা করেছে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর।

শহরের কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল এলাকায় অভিযান চালিয়ে কারচুপির প্রমাণ পাওয়া যায় বলে অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক মো. মোস্তাফিজুর রহমান জানান।

তিনি বলেন, সোনামনি ফিলিং স্টেশনে প্রতি ৫ লিটার পেট্রোলে ২৬০ মিলিলিটার কম দেওয়া হচ্ছিল। অভিযানে তাদের কারচুপির বিষয়টি ধরা পড়েছে।

“পরে পাম্পের মালিক আবুল কালাম আজাদকে ৩০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। এ সময় বেশ কয়েকটি পাম্পে অভিযান চালানো হয়। তবে সেইগুলোতে তেলের পরিমাপ সঠিক পাওয়া যায়।”

মোস্তাফিজুর রহমান জানান, অভিযানে কুড়িগ্রাম কৃষি বিপণন অধিদপ্তরের মাঠ ও বাজার পরিদর্শক নাসির উদ্দিনসহ পুলিশের একটি টিম কাজ করে।

ফরিদপুর

ফরিদপুরে জ্বালানি তেলের দাম নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে বেশি নেওয়ায় একটি ফিলিং স্টেশনকে ২০ হাজার টাকা জরিমানা করেছে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর।

বেলা সাড়ে ১১টা থেকে দুপুর দেড়টা পর্যন্ত বিভিন্ন পাম্পে এ অভিযান চালনো হয় বলে অধিদপ্তরের উপ-পরিচলক সোহেল রানা জানান।

তিনি বলেন, ফরিদপুর বাইপাসের মেসার্স রংধনু ফিলিং স্টেশন ও ফরিদপুর বাইপাস ফিলিং স্টেশন এবং ভাঙ্গা রাস্তার মোড়ে ফরিদপুর পেট্রোলিয়াম ফিলিং স্টেশনে অভিযান চালানো হয়।

“এ সময় তিনটি ফিলিং স্টেশনে জ্বালানি তেলের পরিমাপ সঠিক পাওয়া গেলেও দাম বেশি রাখায় মেসার্স রংধনু ফিলিং স্টেশনকে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইনে ২০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।”

অধিদপ্তরের কর্মকর্তা সোহেল রানা বলেন, অকটেনের সরকারি দাম বর্তমানে লিটার প্রতি ১৩৫ টাকা। পরিবহন বাবদ এক টাকা ১৫ পয়সাসহ প্রতি লিটার বিক্রি করার কথা ১৩৬ টাকা ১৫ পয়সা দরে। কিন্তু মেসার্স রংধনু ফিলিং স্টেশনে তেল বিক্রি করা হচ্ছিল ১৩৬ টাকা ২০ পয়সা দরে।

“সরকারি দাম ও পরিবহন খরচের বাইরে লিটার প্রতি পাঁচ পয়সা বেশি নেওয়ায় ২০০৯ সালের ভোক্তা সংরক্ষণ আইনে ওই ফিলিং স্টেশনের মালিককে ২০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।”

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক