বঙ্গোপসাগরে মাছধরা ট্রলারের ইলিশ ও মালামাল ‘লুট’

দুইটি ট্রলার থেকে অন্তত ‘১৩ লাখ’ টাকার মাছ লুট হয়েছে বলে জেলেদের ভাষ্য।

বরগুনা প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 29 July 2022, 11:55 AM
Updated : 29 July 2022, 11:55 AM

বঙ্গোপসাগরে বরগুনার দুটি মাছধরা ট্রলারে হামলা চালিয়ে একদল হামলাকারী ইলিশ মাছ ও বিপুল পরিমাণ মালামাল লুট করেছে বলে জেলেরা জানিয়েছেন। হামলায় অন্তত ৩০ জন আহত হন বলে জানান তারা।

পাথরঘাটা উপকূল থেকে সাগরে ৯০ কিলোমিটার পূর্বে বৃহস্পতিবার রাতে এ হামলা হয় বলে জেলে ও ট্রলার মালিকরা জানিয়েছেন।

শুক্রবার সকাল ১০টার দিকে পাথরঘাটা মৎস্য অবতরণ কেন্দ্রের ঘাটে এসে তারা এ তথ্য জানান।

এ বিষয়ে কোস্ট গার্ড কিছু শোনেনি বলে জানিয়েছে।

হামলার শিকার ট্রলার দুটি হলো এফবি জুনায়েদ ও এফবি শাহ মোহছেন আউলিয়া-৩।

আহতরা হলেন এফবি জুনায়েদ ট্রলারের শাহজাহান মাঝি (৫৫), মো. মিরাজ (৪২), শাহজাহান (৩৫), শাহিন (২৮), মাসুম মিয়া (৩৫), জাকির মিস্ত্রী (৩৫), মোহাম্মদ আলী (৪৫), জাকির হোসেন (৪০), রবিউল হক (৪৪), শহিদুল ইসলাম (৫২), খোকন (৩৪), মো. রাজু মিয়া (২৫), মো. মন্টু মিয়া (৩৬)। তাদের সকলের বাড়ি পাথরঘাটার বিভিন্ন এলাকায়।

অপর ট্রলারের জেলেদের নাম পাওয়া যায়নি।

এফবি জুনায়েদ ট্রলারের মাঝি শাহজাহান ও মালিক আবদুল্লাহ জানান, বৃহস্পতিবার রাত ১০টার দিকে বঙ্গোপসাগরে মাছ শিকার করে কূলে ফিরে আসার পথে ৩০ জনের মতো একদল ডাকাত ট্রলারে উঠে জেলেদের জিম্মি করে ৫ লাখ টাকার মাছ, ৫ লাখ টাকার বরফসহ বাজার সাদগ্রী লুটে নিয়ে যায়।

আবদুল্লাহ বলেন, আহতদের মধ্যে মিরাজ, খোকন, মন্টু ও শাহজাহানের আঘাত গুরুতর।

এফবি শাহ মোহছেন আউলিয়া-৩ ট্রলারের মালিক আলম মোল্লা বলেন, “আমার ট্রলার থেকে অন্তত ৮ লাখ টাকার মাছ লুটে নিয়ে যায়। এ সময় বাধা দিলে হোসেন মাঝিকে কুপিয়ে জখম করে। তার মাথায় আঘাত হয়।

বরগুনা জেলা মৎস্যজীবী ট্রলার মালিক সমিতির সভাপতি গোলাম মোস্তফা চৌধুরী বলেন, বঙ্গোপসাগরে সশস্ত্র ট্রলার ডাকাতি হয়েছে। এখন পর্যন্ত দুইটি ট্রলারের তথ্য পেলেও ফিরে আসা জেলেরা জানিয়েছেন অন্তত ১০টি ট্রলার ডাকাতি হয়েছে। সকল ট্রলার ফিরে এলে বিস্তারিত জানা যাবে।

এদিকে ডাকাতের কবলে পড়া কয়েকজন জেলে বলেন, কোস্ট গার্ড বঙ্গোপসাগর তাদের নিরাপত্তা দিতে ব্যর্থ।

তারা কোস্ট গার্ডের পরিবর্তে বঙ্গপোসাগরে র‍্যাবের নৌটহলের দাবি করেন।

কোস্ট গার্ডের পাথরঘাটা স্টেশন কমান্ডার লেফটেন্যান্ট মোমিন বলেন, “ডাকাতির খবর এখন পর্যন্ত শুনিনি। আপনার কাছেই এই প্রথম শুনলাম।”

এ ব্যপারে নৌ পুলিশের সাথে যোগাযোগ করার পরামর্শ দেন তিনি।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক