শরীয়তপুরে ‘কিশোর গ্যাং’য়ের ছুরিকাঘাতে স্কুল ছাত্র নিহত

সেতুর উপর বসাকে কেন্দ্র করে সিজান আকনের সঙ্গে লাবিব বেপারী গংদের কথা কাটাকাটি হয়; এক পর্যায়ে লাবিব গং সিজানকে ছুরিকাঘাত করে বলে মামলায় বলা হয়।

শরীয়তপুর প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 3 August 2022, 01:11 PM
Updated : 3 August 2022, 01:11 PM

শরীয়তপুরের নড়িয়ায় সেতুর উপরে বসা নিয়ে বিরোধের জেরে ‘কিশোর গ্যাং’-এর সদস্যদের ছুরিকাঘাতে এক স্কুল ছাত্র নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে আরও তিনজন।

মঙ্গলবার রাতে নড়িয়া পৌরসভার ৯ নম্বর ওয়ার্ডের পশ্চিম লোংসিং মাদবর বাজার এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় নিহতের বাবা বাদী হয়ে পাঁচ জনকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করেছেন এবং দুজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন নড়িয়া থানার ওসি মাহবুব আলম।

নিহত সিজান আকন (১৭) ওই এলাকার বিল্লাল আকনের ছেলে। সে নড়িয়া বিহারী লাল উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্র।

আহতরা হলেন সিজানের বন্ধু মুন্না ছৈয়াল, সোহান মোল্ল্যা ও আসিফ ব্যাপারী। তাদের মধ্যে মুন্না ছৈয়াল ও আসিফ ব্যাপারীকে শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। সোহানকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়।

নিহতের চাচা নড়িয়া পৌর যুবলীগের সভাপতি মোতালেব বেপারী মামলার বরাতে বলেন, সিজান আকন মঙ্গলবার বন্ধুদের নিয়ে একই এলাকার মাদবর বাজার ও কানরগাঁও সংযোগ সড়কের সেতুর উপর বসার জন্য যায়। সেখানে আগে থেকেই লাবিব বেপারী, ইব্রাহিম বেপারী জয়, রাহিম হাওলাদার, জুবায়ের ছৈয়াল ও নাহিম ছৈয়ালসহ ৫-৬ জন বসাছিল। তখন সেতুর উপর বসাকে কেন্দ্র করে সিজান আকনের সঙ্গে লাবিব বেপারী গংদের কথা কাটাকাটি হয়।

“এক পর্যায়ে ক্ষিপ্ত হয়ে লাবিব বেপারী গংরা সিজানকে বুকে, পিঠে ও মাথাসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে এলোপাথাড়ি ছুরিকাঘাত করে। তাকে উদ্ধার করতে এলে সিজানের বন্ধু মুন্না ছৈয়াল, সোহান মোল্ল্যা ও আসিফ ব্যাপারী গুরুতর আহত হয়।”

পরে স্থানীয় লোকজন তাদের উদ্ধার করে শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে রাত সাড়ে ৯টার দিকে সিজানকে মৃত ঘোষণা করেন চিকিৎসক। আহত মুন্না ও আসিফ সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

নড়িয়া পৌরসভা ৮ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা আমির হোসেন ছৈয়াল বলেন, “মাদবর বাজার ও কানরগাঁও এলাকার কিশোর গ্যাংয়ের সদস্য লাবিব ছৈয়াল, ইব্রাহিম জয়, রাহিম হাওলাদার, নাহিম ছৈয়ালসহ কয়েকজন মিলে সিজান আকনকে অটোগিয়ার, চাইনিজ কুড়াল দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করেছে। আমি হত্যাকারীদের বিচার চাই।”

নিহতের ফুপাতো ভাই মো. জাহিদ হোসেন বলেন, “মাদক ব্যবসায়ী ও চিহ্নিত কিশোর গ্যাংয়ের সদস্য লাবিব গংদের অত্যাচারে এলাকার মানুষ অতিষ্ঠ। গতকাল রাতে তুচ্ছ ঘটনায় সিজানকে কুপিয়ে হত্যা করেছে তারা।”

নড়িয়া বিহারী লাল সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মিন্টু চন্দ রায় বলেন, “সিজান আকন আমার বিদ্যালয়ের দশম শেণির ছাত্র ছিল। স্থানীয় বিরোধের জের ধরে তাকে ছুরিকাঘাত করে হত্যা করা হয়েছে। এর কঠিন বিচার হওয়া উচিত।”

নড়িয়া থানার ওসি মাহবুব আলম জানান, এ ঘটনায় নিহতের বাবা বিল্লাল হোসেন আকন বাদী হয়ে লাবিব বেপারী, ইব্রাহিম বেপারী জয়, রাহিম হাওলাদার, জুবায়ের ছৈয়াল ও নাহিম ছৈয়ালকে আসামি করে নড়িয়া থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। রাতে পুলিশ ইব্রাহিম বেপারী ওরফে জয় ও রাহিম হাওলাদারকে আটক করেছে।

মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য শরীয়তপুর সদর হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক