মিথ্যা পরিচয়ে স্বামীর জামিন করাতে এসে কারাগারে দ্বিতীয় স্ত্রী

অনুমতি না নিয়ে দ্বিতীয় বিয়ে করায় দেনমোহর ও খোরপোশ দাবি করে সিরাজগঞ্জ পারিবারিক আদালতে মামলা করেন প্রথম স্ত্রী।

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 16 Sept 2022, 09:05 AM
Updated : 16 Sept 2022, 09:05 AM

অনুমতি ছাড়া বিয়ের মামলার বাদী সেজে স্বামীর জামিন করাতে এসে ধরা পড়ায় দ্বিতীয় স্ত্রীকে জেলহাজতে পাঠিয়েছে সিরাজগঞ্জ পারিবারিক আদালত।

তবে আসামিপক্ষের আইনজীবী আদালতে ক্ষমা প্রার্থনা করায় তার বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি বলে জানান ওই আদালতের বেঞ্চ সহকারী সাব্বির হোসেন।

পারিবারিক আদালতে বুধবারের এ ঘটনা অনেকটা গোপন থাকলেও শুক্রবার বিষয়টি প্রকাশ পায়।

গ্রেপ্তার নারী রুখসানা আক্তার সিরাজগঞ্জের কাজিপুর উপজেলার সোনামুখী ইউনিয়নের স্থলবাড়ি গ্রামের জহিরুল ইসলামের দ্বিতীয় স্ত্রী। জহিরুল বর্তমানে জেলহাজতে রয়েছেন।

বেঞ্চ সহকারী সাব্বির হোসেন জানান, জহিরুল ইসলাম তার প্রথম স্ত্রী রুবিনার অনুমতি না নিয়ে দ্বিতীয় বিয়ে করেন। এ ঘটনায় দেনমোহর ও খোরপোশ দাবি করে রুবিনা আদালতে মামলা করেন।

বুধবার জহিরুলের দ্বিতীয় স্ত্রী রুখসানা আক্তার আদালতে উপস্থিত হয়ে নিজেকে মামলার বাদী রুবিনা হিসাবে পরিচয় দেন। এই মিথ্যা পরিচয়ে তিনি আপোস-মীমাংসার কথা বলে কারাবন্দি স্বামীর জামিন এবং বিচারাধীন মামলাটি প্রত্যাহারের আবেদন করেন।

শুনানিকালে বিচারক সহকারী জজ (পারিবারিক আদালতের জজ) লোকমান হাকিম বাদীর স্বাক্ষর এবং মামলার নথি ও কাগজপত্রের স্বাক্ষরে গরমিল দেখতে পান।

এ অবস্থায় স্থানীয় সোনামুখী ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) চেয়ারম্যান ও জহিরুলের দুই শিশু সন্তানকে আদালতে ডেকে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করেন বিচারক।

তিনি নিশ্চিত হন আবেদনকারী মামলার বাদী রুবিনা নন, তার প্রকৃত নাম রুখসানা। এরপর বিচারকের নির্দেশে রুখসানা আক্তারের বিরুদ্ধে সদর থানায় প্রতারণা মামলা করা হয়।

মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে রুখসানাকে ওই দিনই জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করা হলে বিচারক তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

এদিকে, আদালত এ মামলার আইনজীবীদের কাছে ঘটনার ব্যাখ্যা চাইলে, তারা নিঃশর্ত ক্ষমা প্রার্থনা করে ভবিষ্যতে এমন অপকর্ম না করার প্রতিশ্রুতি দেওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি বলে জানিয়েছেন পারিবারিক আদালতের বেঞ্চ সহকারী সাব্বির হোসেন।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক