সুনামগঞ্জে শিশু ধর্ষণ মামলা, বাদীর পরিবারকে হুমকি

শিশুটির বাবার অভিযোগ, আসামির ভগ্নিপতি হাসপাতাল থেকে সিট কেটে দেওয়ার এবং ডাক্তারের রিপোর্ট বদলে দেওয়ার হুমকি দিয়েছেন।

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 13 Sept 2022, 07:35 PM
Updated : 13 Sept 2022, 07:35 PM

সুনামগঞ্জ সদরে প্রাক-প্রাথমিক পড়ুয়া এক শিশুকে ‘ধর্ষণে’ মামলা করায় তাদের পরিবারকে গ্রামছাড়া করার হুমকির অভিযোগ পাওয়া গেছে আসামি পক্ষের বিরুদ্ধে।

গত সোমবার সদর উপজেলার লক্ষ্মণশ্রী ইউনিয়নের হালুয়ারগাঁও গ্রামে ধর্ষণের ঘটনা ঘটে বলে মামলায় অভিযোগ করা হয়।

এ অভিযোগে শিশুটির চাচা বাদী হয়ে সুনামগঞ্জ সদর থানায় মামলা করলে ৬০ বছর বয়সী আসামিকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

মামলার নথির বরাতে সদর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মনিরুজ্জামান খান জানান, সোমবার দুপুরে স্কুল থেকে ফেরার পর প্রতিবেশী ওই ব্যক্তি শিশুটিকে তার খালি ঘরে নিয়ে মুখ চেপে ধরে ধর্ষণ করেন। পরে শিশুটির মা রক্তাক্ত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে নিয়ে যান।

ওই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন শিশুটির রাতেই স্বাস্থ্য পরীক্ষা হয়েছে জানিয়ে পরিদর্শক মনিরুজ্জামান বলেন, মামলার পর আসামিকে গ্রেপ্তার করে মঙ্গলবার বিকালে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।

ওই শিশুর মা সদর হাসপাতালের নারী ও শিশু ওয়ার্ডে এ প্রতিবেদককে জানান, স্কুল থেকে তার মেয়ে ফেরার পর খাবার খেয়ে ঘুমিয়েছি। মাকে ঘুমে রেখে মেয়ে বাইরে যায়। দুপুর দেড়টার দিকে প্রতিবেশী ওই ব্যক্তির প্রবাসী ছেলের স্ত্রী এসে জানান তার মেয়ে কান্নাকাটি করছে।

তিনি আরও বলেন, তিনি ওই ঘরে গিয়ে দেখেন একটি চেয়ার ও ঘরের মেঝে রক্তে ভাসা; মেয়ের শরীরেও রক্ত। তখন তার মেয়ে তাকে ঘটনাটি জানায়। সঙ্গে সঙ্গে শিশুটিকে সদর হাসপাতালে নিয়ে যান।

শিশুটির মা বলেন, “আমরা গরিব মানুষ। আমার স্বামী মাটি কাটার শ্রমিকের কাজ করে সংসার চালান। আমার একমাত্র মেয়ের ধর্ষকের ফাঁসি চাই।”

হাসপাতালে মেয়ের পাশে থাকা শিশুটির বাবা বলেন, “মামলা করায় ওই বৃদ্ধের পরিবারের লোকজন আমাকে গ্রামছাড়া করাসহ নানা হুমকি-ধমকি দিচ্ছে। ধর্ষকের বোন জামাই একটি রাজনৈতিক দলের নেতা হাসপাতাল থেকে সিট কাটার হুমকি দিয়েছে। সে বলেছে, মামলা দিয়ে কিছু করতে পারব না। হাসপাতালের ডাক্তারের রিপোর্ট বদলে দেবে।”

এ ব্যাপারে সমর উদ্দিন নামের ওই নেতা বলেন, “৬০ বছরের পুরুষ কীভাবে ছয় বছরের মেয়েকে ধর্ষণ করে? এটি আমার বউয়ের বড় ভাইকে ফাঁসানোর জন্য করা হয়েছে।”

মামলা তুলে নেওয়ার হুমকি দেওয়ার কথা জানতে চাইলে তিনি বলেন, “আমি কাউকে হুমকি-ধমকি দেইনি। আমি এ বিষয়ে কিছু জানি না।”

এ কথা বলে তিনি ফোন কেটে দেন।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক