নওগাঁয় বিএনপির সম্মেলনে আওয়ামী লীগের হামলার অভিযোগ

আওয়ামী লীগ হামলার অভিযোগ অস্বীকার করেছে।

নওগাঁ প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 17 Nov 2022, 07:10 PM
Updated : 17 Nov 2022, 07:10 PM

নওগাঁর রানীনগর সদর ইউনিয়ন বিএনপির সম্মেলনে আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে হামলার অভিযোগ উঠেছে। 

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় নওগাঁ জেলা বিএনপির কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এ অভিযোগ করেন বিএনপি নেতারা।  

তবে আওয়ামী লীগ হামলার অভিযোগ অস্বীকার করেছে। 

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন জেলা বিএনপির সদস্য সচিব বায়েজিদ হোসেন পলাশ। 

লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, সকাল ১০টায় রাণীনগর সদর ইউনিয়ন বিএনপির দ্বি-বার্ষিক সম্মেলন শুরু হয়। বেলা সাড়ে ১১টার দিকে সম্মেলনে প্রত্যক্ষ ভোটের মাধ্যমে নেতৃত্ব নির্বাচনে কাউন্সিল অধিবেশন চলছিল। 

এ সময় আওয়ামী লীগের ৩০-৪০ জন কর্মী লাঠি নিয়ে সমাবেশে হামলা করে। হামলায় ১০-১২ জন বিএনপি কর্মী আহত হন; সম্মেলন স্থলে চেয়ার-টেবিল ভাংচুর করা হয়েছে। 

আহতদের মধ্যে রানীনগর উপজেলার গোনা ইউনিয়ন বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক মশিউর রহমান মোহন ও রানীনগর সদর ইউনিয়নের ৩ নম্বর ওয়ার্ড বিএনপির সহ-সভাপতি আবেদ আলী নওগাঁ সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন বলে সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়। 

লিখিত বক্তব্যে আরও অভিযোগ করা হয়, হামলার পর আহত বিএনপির কর্মীরা রাণীনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা নিতে গেলে আওয়ামী লীগের কর্মীরা সেখানেও তাদের ওপর হামলা চালান। পরে তারা উপজেলা সদর ও নওগাঁ শহরে বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা নেন।  

সংবাদ সম্মেলনে জেলা বিএনপির আহবায়ক আবু বক্কর সিদ্দিক নান্নু অভিযোগ করেন, হামলার ঘটনায় বিএনপির পক্ষ থেকে রাণীনগর সদর থানায় মামলা করতে গেলে পুলিশ মামলা গ্রহণ করেনি।  

তিনি অভিযোগ করেন, আগামী ৩ ডিসেম্বর রাজশাহীতে বিএনপির বিভাগীয় গণসমাবেশ ব্যর্থ করার উদ্দেশ্য বিএনপির নেতা-কর্মীদের ভীতি ছড়ানোর চেষ্টা করছে আওয়ামী লীগ ও পুলিশ প্রশাসন। তার অংশ হিসেবে রাণীনগরে বিএনপির সমাবেশে হামলা চালানো হলো।   

সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে জেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক জাহিদুল ইসলাম ধলু, জেলা বিএনপির যুগ্ন আহবায়ক শহিদুল ইসলাম টুকু, মামুনুর রহমান, শেখ রেজাউল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন।  

হামলার অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে রাণীনগর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সংসদ সদস্য আনোয়ার হোসেন হেলাল বলেন, বিএনপির সমাবেশে আওয়ামী লীগের কর্মীদের বিরুদ্ধে হামলার যে অভিযোগ করা হয়েছে তা সম্পূর্ণ মিথ্যা। 

“আমি শুনলাম পদ পাওয়া নিয়ে বিএনপির নেতাদের নিজেদের মধ্যকার কোন্দলের জেরে তারা নিজেরাই মারামারি করে চেয়ার-টেবিল ভাঙচুর করেছেন। আওয়ামী লীগের কর্মীদের সেখানে হামলা চালানো প্রশ্নই আসে না।” 

মামলা না নেওয়ার অভিযোগের বিষয়ে রাণীনগর থানার ওসি আবুল কালাম আজাদ বলেন, “মামলা না নেওয়ার অভিযোগের বিষয়টি সঠিক নয়। রাণীনগর সদর ইউনিয়নের কাউন্সিল অধিবেশন ঘিরে বিএনপি কর্মীদের নিজেদের মধ্যে সামান্য হট্টগোলের কথা শুনেছি। তবে এ বিষয়ে থানায় কেউ কোনো অভিযোগ নিয়ে আসেননি।”

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক