ভোলায় সিটিসেলের বায়োমেট্রিক রেজিস্ট্রেশনের ব্যবস্থা নেই

বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে নিবন্ধনের পূর্বনির্ধারিত সময় শেষ হলেও ভোলায় মোবাইল ফোন অপারেটর সিটিসেলের মোবাইল ফোনের সিম রেজিস্ট্রেশনের কোনো ব্যবস্থা চালু হয়নি।

আহাদ চৌধুরী তুহিন ভোলা প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 30 April 2016, 04:01 PM
Updated : 30 April 2016, 09:20 PM

নানা কারণে কয়েক কোটি সিম নিবন্ধিত না হওয়ায় ঘোষিত সময়সীমার শেষে শনিবার ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম আগামী ৩১ মে রাত ১২টা পর্যন্ত সিম পুনঃনিবন্ধন করা যাবে বলে ঘোষণা দেন।

অপরাধ কাজে সিমের ব্যবহার বন্ধের লক্ষ্যে গত ১৬ ডিসেম্বর থেকে আঙুলের ছাপ দিয়ে মোবাইল সিম নিবন্ধন প্রক্রিয়া শুরু হয়।

ভোলার লালমোহন মহিলা কলেজের সহকারী অধ্যাপক দিলরুবা জেসমিন ও স্থানীয় সাংবাদিক মোকাম্মেল মিশু বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে সিম রেজিস্ট্রেশনের কোনো আউটলেট বা পয়েন্ট জেলার কোথাও খুঁজে না পেয়ে ভোলা শহরের মহাজনপট্টিতে সিটিসেলের ডিস্ট্রিবিউটর নাহিদুল ইসলামের অফিসে যোগাযোগ করেন তারা।

‘নাহিদুল তাদের জানিয়েছেন এখানে বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে সিম রেজিস্ট্রেশন হচ্ছে না।’

দেশের প্রথম মোবাইলফোন অপারেটর সিটিসেলের ভোলাস্থ ডিস্ট্রিবিউটর নাহিদুল ইসলাম বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “সিটিসেল কোম্পানি ভোলায় সিম রেজিস্ট্রেশনের কোনো ব্যবস্থা রাখেনি।”

প্রতিদিন জেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে বহু লোক বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে সিম রেজিস্ট্রেশন তার কাছে আসছে বলেও জানান তিনি।

তিনি বলেন, “এ ব্যাপারে সিটিসেল কর্মকর্তাদের জানিয়েও কোনো লাভ হচ্ছে না।”

এ ব্যাপারে জানতে চেয়ে সিটিসেলের বরিশাল জোনের টিএসএম বাধন বিন জাহানের মোবাইল নম্বরে একাধিকবার ফোন করলেও তিনি ফোন ধরেননি।

এদিকে, সিটিসেলের ডিস্ট্রিবিউটর নাহিদুল ইসলামের আরও জানান, ভোলার লালমোহন ও চরফ্যাশন উপজেলায় সিটিসেলের টাওয়ারের বৈদ্যুতিক সংযোগের বিল না দেওয়ায় বিদ্যুৎ বিভাগ সংযোগ কেটে দিয়েছে।

সেকারণে ‘নেটওয়ার্ক না পেয়ে’ সেখানকার গ্রাহকরা তার কাছে গিয়ে ‘ঝামেলা করে’।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক