বিদেশি শিক্ষার্থী টানতে মিয়ানমারে বাংলাদেশের শিক্ষামেলা

মেলার স্লোগান ছিল ‘সাধ্যের মধ্যে গুণগত মানের উচ্চশিক্ষা’।

প্রবাস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 4 Dec 2023, 11:06 AM
Updated : 4 Dec 2023, 11:06 AM

মিয়ানমারের শিক্ষার্থীদের বাংলাদেশে উচ্চশিক্ষা নিতে আকৃষ্ট করতে দেশটিতে শিক্ষামেলা করেছে বাংলাদেশ দূতাবাস।

এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, ‘সাধ্যের মধ্যে গুণগত মানের উচ্চশিক্ষা’ স্লোগানে রোববার ইয়াঙ্গুনে একটি হোটেলে এ আয়োজন করেন তারা।  

মিয়ানমারে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মো. মনোয়ার হোসেন এ মেলা উদ্বোধন করেন। মিয়ানমারের উচ্চশিক্ষা প্রত্যাশী শিক্ষার্থীসহ এতে অংশ নেয় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ, আহসানউল্লাহ ইউনিভার্সিটি অব সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি এবং নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটি।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ‘প্রাইভেট স্কুল-কলেজ-ইউনিভার্সিটি অ্যাসোসিয়েশন অফ মিয়ানমার’ এর সভাপতি নায় ওকে, ‘মিয়ানমার ইনস্টিটিউট অফ স্ট্রেটেজিক অ্যান্ড ইন্টারন্যাশনাল স্টাডিজ’ (এমআইএসআইএস) এর চেয়ারম্যান থান্ট ক্যাউ এবং মিয়ানমারের পাঁচটি সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের রেক্টর। তারা তাদের প্রতিষ্ঠান ও বাংলাদেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর মধ্যে সহযোগিতার প্রস্তাব দেন। 

রাষ্ট্রদূত মনোয়ার হোসেন তার স্বাগত বক্তব্যে বাংলাদেশকে ‘দক্ষিণ এশিয়ার সবচেয়ে দ্রুত বর্ধনশীল অর্থনীতি’ হিসেবে উল্লেখ করে বলেন, “আমরা ২০৩১ সালের মধ্যে উচ্চ-মধ্যম আয়ের ও ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত দেশ হিসেবে পরিণত হওয়ার পথে আছি। এই লক্ষ্যে পৌঁছাতে প্রয়োজন দক্ষ জনশক্তি গড়ে তোলা। বর্তমান সরকার বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের মাধ্যমেও উচ্চশিক্ষা প্রসারে উৎসাহ দিচ্ছে। এই বিশ্ববিদ্যালয়গুলো স্নাতক ও স্নাতকোত্তর পর্যায়ে স্বল্প খরচে গুণগত শিক্ষা দিচ্ছে।”   

তিনি বলেন, “এই শিক্ষামেলা শুধু দু’দেশের মধ্যকার দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কেরই উন্নয়ন ঘটাতে সাহায্য করবে না, বরং তা উভয় দেশের মানুষের মাঝেও যোগাযোগ স্থাপন করবে।”

ইয়াঙ্গুনে বাংলাদেশ দূতাবাস সম্প্রতি ‘ক্যাম্পাস কানেক্ট’ শিরোনামে জনকূটনীতিমূলক উদ্যোগ নিয়েছে যার মাধ্যমে মিয়ানমারের বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, জাদুঘর এবং অন্যান্য সাংস্কৃতিক সংস্থার সঙ্গে যোগাযোগ স্থাপন, দু’দেশের সমপর্যায়ের সংস্থাগুলোর মধ্যে পারস্পরিক সহযোগিতা বিনিময় এবং দীর্ঘমেয়াদী সহযোগিতার ক্ষেত্র তৈরি হবে বলে আশা করছেন তারা।