একতরফা নির্বাচন আওয়ামী লীগকে নির্বাসনে পাঠাবে: মান্না

“এ নির্বাচন সরকারের জন্যে, আওয়ামী লীগের জন্যে কোনো নির্বাচন নয়… এটা ওদের নির্বাসনে পাঠাবে, অপেক্ষা করেন।”

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 26 Nov 2023, 01:12 PM
Updated : 26 Nov 2023, 01:12 PM

একতরফা নির্বাচন আওয়ামী লীগকে ‘নির্বাসনে পাঠাবে’ বলে মন্তব্য করেছেন মাহমুদুর রহমান মান্না।

রোববার দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে বিক্ষোভ মিছিল শেষে সংক্ষিপ্ত সমাবেশে নাগরিক ঐক্যের সভাপতি বলেন, “আমি জানি, তাদের উদ্দেশ্য কি, তারা বলে কোনো রকমে ৭ জানুয়ারি আসলে তো হয়… বিভিন্ন জায়গায় একটা বাক্স বসিয়ে বেড়া-টেরা দিয়ে একটা ঘর দেখাব এবং তারপরে সন্ধ্যার পরে রায় ঘোষণা দেব। ওটা নির্বাচনই না, ঠেকাব কি?...ওই বেড়ার ঘরে আগুন লাগাবার কাজ আমরা করছি না।

“যেইভাবে চেষ্টা করুক, তারা এ নির্বাচন প্রহসনের বাইরে আর কিছু করতে পারবে না। আমরা বলছি, জনগণ প্রত্যাখ্যান করেছে এই নির্বাচন, বিশ্ববাসী প্রত্যাখ্যান করেছে এই নির্বাচন। তারপরেও ওই যে বললাম, আসিতেছে শুভদিন, দিনগুলো গুণতে থাকেন। দেখেন কি হয়। এ নির্বাচন সরকারের জন্যে, আওয়ামী লীগের জন্যে কোনো নির্বাচন নয়… এটা ওদের নির্বাসনে পাঠাবে, অপেক্ষা করেন।”

মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, “(সরকার) চেষ্টা করেছিল না বিভিন্ন দল ভাঙতে, নতুন নতুন দল করতে। খেয়াল করে দেখেন পাকিস্তান আমলেও কিন্তু রাজাকার পাওয়া গেছে। এবার তো রাজকারও পাওয়া যাচ্ছে না। আওয়ামী লীগ এবার রাজাকার-আলবদরও পায় না। নতুন নতুন ক্যান্ডিডেট দেবে, তাও পায় না।”

বাংলাদেশের বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হক বলেন, “একটা রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাস মোকাবিলা করে, ত্রাসের রাজত্ব মোকাবিলা করে দেশব্যাপী অবরোধ চলছে। মাঝে-মধ্যে আমরা বিরতি দেই জনজীবনের কারণের জন্য, বাচ্চাদের পরীক্ষা চলছে.. মানুষ যেন স্বস্তির মধ্যে থাকে।

“কিন্তু চূড়ান্ত লড়াইয়ের জন্য তৈরি হোন। ২৮ নভেম্বরের পরে এরা (সরকার) যে তাণ্ডব তৈরি করেছে দেশব্যাপী, সমগ্র আন্দোলন নতুনভাবে আবার পূণর্গঠিত হচ্ছে। মানুষ জেগে উঠছে, ধরে নিয়েছে এই সরকার থাকলে দুর্ভিক্ষ অনিবার্য। মানুষকে না খেয়ে মরতে হবে। সেই লড়াইয়ে গণতন্ত্র মঞ্চ ভোটের অধিকার রক্ষা করবে, মানুষকে রক্ষা করবে, দেশকে রক্ষা করবে।”

গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়কারী জোনায়েদ সাকি বলেন, “ভোট ছাড়া ক্ষমতায় আছে…, ক্ষমতা আঁকড়ে আছে। ওয়ান-ইলেভেন সরকারের রাস্তায় উনারা ধারণ করছেন। ওয়ান-ইলেভেন সরকার কি করেছিল? এই দল থেকে ওই দল থেকে লোক ভাগিয়ে এনে কিংস পার্টি বানিয়েছিল। আর এখন শেখ হাসিনা গোয়েন্দা সংস্থা দিয়ে এই দল থেকে ওই দল থেকে লোক ভাগিয়ে এনে কিংস পার্টি বানাচ্ছেন।

“সেটাও ঠিকমতো পারছেন না। সেজন্য আন্দোলনরত কোনো কোনো দলকে যদি ভাগিয়ে নেয়া যায়, গোয়েন্দা সংস্থা দিয়ে লোভ দেখিয়ে, চাপ দিয়ে ভাগিয়ে নেয়া যায়।”

এর আগে বেলা ১২টার দিকে গণতন্ত্র মঞ্চের নেতারা শতাধিক নেতা-কর্মী নিয়ে বিজয়নগর ও তোপখানা রোডে বিক্ষোভ মিছিল করেন।

মান্নার সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক শহিদুল্লাহ কায়সারের সঞ্চলনায় সংক্ষিপ্ত সমাবেশে ভাসানী অনুসারী পরিষদের শেখ রফিকুল ইসলাম বাবুল, রাষ্ট্র সংস্কার আন্দোলনের হাসনাত কাইয়ুম, জেএসডির সাধারণ সম্পাদক শহীদ উদ্দিন মাহমুদ স্বপন প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

গণতন্ত্র মঞ্চ ছাড়াও ১২ দলীয় জোট, জাতীয়তাবাদী সমমনা দল, গণতান্ত্রিক বাম ঐক্য, এলডিপি, গণঅধিকার পরিষদ, লেবার পার্টি প্রভৃতি সংগঠন আলাদা আলাদাভাবে বিজয় নগর, তোপখানা রোড, পান্থ পথে মিছিল করে।

সরকারের পদত্যাগ ও তফসিল বাতিলের দাবিতে বিএনপিসহ সমমনাজোটগুলোর ডাকে রোববার ভোর ৬ থেকে শুরু হওয়া টানা ৪৮ ঘণ্টার অবরোধ কর্মসূচি শেষে হবে মঙ্গলবার ভোর ৬টায়। এটি বিএনপি, গণতন্ত্র মঞ্চসহ সমমনা জোটের সপ্তম অবরোধ কর্মসূচি।