ঠোঁট রাঙাতে যেসব বিষয় খেয়াল রাখা দরকার

শুষ্ক ঠোঁটে লিপস্টিক ব্যবহারে দেখতে আরও বাজে লাগবে।

লাইফস্টাইল ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 27 Feb 2024, 12:39 PM
Updated : 27 Feb 2024, 12:39 PM

সুন্দর করে আঁকা ঠোঁটে লিপস্টিক দেখতে ভালো লাগে।

তবে ঠোঁট আঁকা যেন সঠিক ও সুন্দর হয় এবং ঠোঁটের ত্বকও যেন আর্দ্র থাকে সেদিকে খেয়াল রাখা জরুরি।

ওভারলাইনিং

“ওপরের ঠোঁট বড় করে এঁকে অথবা বড় ঠোঁট ছোট করে আঁকা দেখতে ভালো লাগে না”- রিয়েলসিম্পল ডটকম’য়ে প্রকাশিত প্রতিবেদনে এভাবেই মন্তব্য করেন আফগানি বংশোদ্ভূত মার্কিন রূপসজ্জাকর মাতিন মাওলাউইজদা।

তার কথায়, “ফটোশুট বা মডেলিংয়ের জন্য এমন পদ্ধতি অনুসরণ করা গেলেও বাস্তব জীবনে এর ব্যবহার দেখতে আজব লাগে।”

ভুল রং নির্বাচন

“অধিকাংশ মানুষই লিপস্টিকের রং বাছাই করতে ভুল করেন”- একই প্রতিবেদনে মন্তব্য করেন যুক্তরাষ্ট্রের ‘গার্নিয়ার’স-য়ের সৌন্দর্য বিশেষজ্ঞ মিলি মোরালেস।

এটা হতে পারে নিজের ত্বকের টোন সম্পর্কে ধারণা না থাকার ফলাফল।

তিনি বলেন, “আমাদের শিরার রংয়ের ওপর ভিত্তি করে ত্বকের টোন নির্ধারণ করতে পারি। যদি হাতের শিরা সবুজাভ দেখায় তবে সেটা উষ্ণ টোনের। এর সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ লিপস্টিকের রংগুলো হল কমলা, প্রবাল রং লাল এবং টেরাকোটা ইত্যাদি।”

যদি শিরার রং নীলচে হয় তবে সেটা শীতল ‘আন্ডারটোন’। এর সাথে মানানসই লিপস্টিকের রংগুলো হল গোলাপি, নীলচে লাল, বারগেন্ডি ইত্যাদি।

ঠোঁটের যত্ন না নেওয়া

ঠোঁট ত্বকেরই একটা অংশ। তাই এরও নিয়মিত পরিচর্যার প্রয়োজন রয়েছে।

মোরালেস বলেন, “আমি সবচেয়ে সাধারণ যে ভুলটা লক্ষ্য করেছি তা হল, ঠোঁট আর্দ্র বা মসৃণ রাখতে ভুলে যাওয়া। এটাও দৈনন্দিন ত্বক পরিচর্যার রুটিনে অন্তর্ভুক্ত করা উচিত। বিশেষ করে কোনো লিপস্টিক ব্যবহারের আগে। এটা গুরুত্বপূর্ণ কারণ, লিপস্টিক আর্দ্র ও সতেজ ঠোঁটে দেখতে বেশি ভালো লাগে।”

লিপ লাইনার ব্যবহার না করা

“ঠোঁট পাতলা হলে লিপ লাইনার ব্যবহার করে ভরাটভাব আনা যায়”- বলেন মাতিন।

“লিপ লাইনারের রং প্রাকৃতিক রংয়ের চেয়ে দুয়েক শেইড গাঢ় হওয়া উচিত। এতে ঠোঁটকে প্রাকৃতিক আকারের বাইরে কিছুটা বড় করে আঁকা যায় এবং দেখতে ভরাট লাগে।”

এরপর পছন্দের রংয়ের লিপস্টিক ব্যবহার করতে হবে। ভলিউম যোগ করতে চাইলে ঠোঁটের মাঝের অংশে হালকা রংয়ের লিপস্টিক ব্যবহার করতে হবে।

ভুল পণ্য ব্যবহার

ঠোঁট শুষ্ক বা রুক্ষ হলে লিপস্টিক না পরাই ভালো।

প্রসাধনী ব্র্যান্ড ‘ডিয়ার ডাহলিয়া’র স্কারলেট লি বলেন, “শুষ্ক ও খসখসে ঠোঁটে পুষ্টির প্রয়োজন হলে লিপ অয়েল ব্যবহার করা কার্যকর। যেটা স্বচ্ছ বা রঙিন হতে পারে। ঠোঁটে পুষ্টি যোগাতে রাতে লিপ অয়েল ব্যবহার করা উপকারী।”

ঠোঁট প্রস্তুত না করা

ঠোঁট নিয়মিত আর্দ্র রাখার পাশাপাশি কোনো পণ্য ব্যবহারের আগে প্রস্তুত করা উচিত।

লি বলেন, “লিপ স্ক্রাব (বাদামি চিনি ও নারিকেল তেল দিয়ে চিনির স্ক্রাব তৈরি করা যায়) ঠোঁটে জমে থাকা অবশিষ্টাংশ দূর করে মসৃণতা ফুটিয়ে তোলে।”

সঠিকভাবে লিপস্টিক না তোলা

ঠোঁট থেকে আগের দেওয়া রং ভালোভাবে না তুলে পুনরায় লিপস্টিক ব্যবহার করা যাবে না।

মোরালেস বলেন, “এটা গুরুত্বপূর্ণ কারণ, ঠোঁটে থেকে যাওয়া লিপস্টিকের অবশিষ্ট অংশ পরেরবার লিপস্টিক ব্যবহারের ক্ষেত্রে সমস্যা সৃষ্টি করে। এক্ষেত্রে আমি উন্নত ক্লিনজিং ওয়াটার ব্যবহারের পরামর্শ দিয়ে থাকি।”

এটা ঠোঁট আর্দ্র রাখার পাশাপাশি অবাঞ্ছিত লিপস্টিকের রং অপসারণ করতে সহায়তা করে। আর ব্যবহৃত লিপস্টিকের সঠিক রং ফুটিয়ে তোলে।

আরও পড়ুন

Also Read: লিপস্টিকের কারণে শুষ্ক ঠোঁট

Also Read: নিয়মিত লিপস্টিক ব্যবহার কি ক্ষতিকর?

Also Read: লাল লিপস্টিক ব্যবহারের খুঁটিনাটি