চাঁদার জন্য ঠিকাদারকে মারধর, চবি ছাত্রলীগের ৪ নেতার বিরুদ্ধে মামলা

ঘটনা তদন্তে তিন সদস্যের কমিটি করেছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

চট্টগ্রাম ব্যুরোবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 3 Feb 2024, 10:59 AM
Updated : 3 Feb 2024, 10:59 AM

চাঁদার দাবিতে ঠিকাদারকে মারধরের অভিযোগ উঠেছে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের চার নেতার বিরুদ্ধে। 

মারধরের শিকার ঠিকাদার মো. তামজিদ উদ্দিন শনিবার হাটহাজারী থানায় মামলা করেছেন বলে শনিবার জানা গেছে। 

মামলায় চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের গত কমিটির সহসভাপতি এম মেহেদী হাসান, সাংগঠনিক সম্পাদক শাফায়েত হোসেন, উপকর্মসূচি ও পরিকল্পনা সম্পাদক মাশরুর কামাল ও সহসম্পাদক মো. হৃদয় এবং অজ্ঞাত আরও ৭-৮ জনকে আসামি করা হয়েছে। 

মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করে হাটহাজারী থানার ওসি মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান বলেন, “আমরা মামলাটি পেয়েছি। তদন্তও শুরু হয়েছে।” 

মামলার এজাহারে বলা হয়, মেসার্স আরএস এন্টারপ্রাইজ সমাজবিজ্ঞান অনুষদের সামনে একটি নামফলক নির্মাণের দায়িত্ব পায়। প্রতিষ্ঠানটির মালিক সেকান্দর অসুস্থ থাকায় তার ছেলে তামজিদ কাজের দায়িত্ব নেন। 

বুধবার বেলা ৪টায় তিন লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে নির্মাণ কাজে বাধা দেয় অভিযুক্ত ৪ জনসহ আরও ৭-৮ জন। সে সময় বাগবিতণ্ডার একপর্যায়ে তামজিদকে মারধর শুরু করেন তারা। 

আসামিরা পরে তামজিদকে তুলে নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ আব্দুর রব হলের একটি কক্ষে আটকে পিটিয়ে জখম এবং কাজ বন্ধ রাখার হুমকি দেন বলে বলে মামলায় অভিযোগ করা হয়েছে। 

এজাহারে আরও বলা হয়, ঘটনার তিনদিন আগেও তামজিদের বাবাকে আসামিরা ফোন করে চাঁদা দাবি করেছিলেন। টাকা না দিলে কাজ বন্ধ করে দেওয়ার হুমকি দিয়েছিলেন তারা। 

ভুক্তভোগী তামজিদ উদ্দিন বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “চাঁদা না দেওয়ায় আসামিরা আমাকে লোহার রড ও কাঠ দিয়ে এলোপাতাড়ি পিটিয়ে জখম করে। এরপর তারা আমাকে আব্দুর রব হলে নিয়ে গিয়ে আটকে রেখে হুমকি-ধমকি দেন। সেখান থেকে কোনোমতে বের হয়ে আমি প্রক্টরের কাছে লিখিত অভিযোগ দেই।” 

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ড. মোহাম্মদ নূরুল আজিম শিকদার বলেন, “আমরা অভিযোগ পেয়েছি। এ বিষয়ে তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তদন্ত কমিটির রিপোর্টের ভিত্তিতে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।” 

অভিযুক্ত চারজনকে ফোন করা হলেও তারা কেউ কল ধরেননি।