লিটনকে নিয়ে বিসিবি সভাপতি, ‘দেয়ার ইজ সামথিং রং’

গত বিশ্বকাপ থেকেই লিটন কুমার দাসের কোনো সমস্যা চলছে বলে মনে করছেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান।

ক্রীড়া প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 26 March 2024, 11:15 AM
Updated : 26 March 2024, 11:15 AM

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সিলেট টেস্টে লিটন কুমার দাসের কিপিং ও দ্বিতীয় ইনিংসের শট নিয়ে দেশের ক্রিকেটে আলোচনা-সমালোচনা চলছে তুমুল। তবে শুধু এই টেস্টই নয়, গত বিশ্বকাপ থেকেই এই কিপার-ব্যাটসম্যানের মধ্যে সমস্যা দেখতে পাচ্ছেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান। বাংলাদেশ ক্রিকেটের নিয়ন্তা সংস্থার প্রধানের মতে, ওয়ানডে দল থেকে বাদ পড়ার পর টেস্টেও লিটনকে না খেলালে ভালো হতো।

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজের প্রথম দুই ম্যাচে শূন্য রানে আউট হওয়ার পর এই সংস্করণ থেকে বাদ দেওয়া হয় লিটনকে। সবশেষ ১০ ওয়ানডেতে তার নেই কোনো ফিফটি। ওয়ানডে দল থেকে বাদ পড়ার পর ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে আবাহনী লিমিটেডের হয়ে একটি ম্যাচ খেলে তিনি করেন ১৯ বলে ৫। এরপর টেস্ট খেলতে আবার জাতীয় দলের সঙ্গে যোগ দেন তিনি।

টেস্টে তার পারফরম্যান্স নিয়ে প্রশ্ন ছিল না। কিন্তু সিলেট টেস্টে মাঠে তাকে একদমই খাপছাড়া মনে হয়েছে। কিপিংয়ে খুব সাবলিল ছিলেন না। দুই ইনিংসেই ধানাঞ্জায়া ডি সিলভার ক্যাচ গ্লাভসে জমিয়েও তিনি আবেদন করেননি। এছাড়াও উইকেটের পেছনে ছেড়েছেন ক্যাচ। এসবকে ক্রিকেটীয় ভুলের কাতারে রাখলেও ব্যাটিংয়ে তার দ্বিতীয় ইনিংসের শটের পেছনে কোনো যুক্তি মেলা ভার।

বিশাল লক্ষ্য তাড়ায় তৃতীয় দিন বিকেলে চরম বিপর্যয়ে ছিল দল। ৩৭ রানে ৪ উইকেট পড়ার পর ক্রিজে যান লিটন, দিনের খেলার তখন অল্প কিছুক্ষণ বাকি। কিন্তু বাঁহাতি পেসার বিশ্ব ফার্নান্দোকে ক্রিজ ছেড়ে বেরিয়ে তেড়েফুঁড়ে শট খেলে লিটন উইকেট বিলিয়ে দেন প্রথম বলেই। তার সেই শট স্তম্ভিত করে দেয় ধারাভাষ্যকারদের। বাংলাদেশ ক্রিকেটে তো বটেই, আলোচনার জন্ম দেয় বিশ্ব ক্রিকেটেই।

লিটনের এমন পারফরম্যান্স নজর এড়ায়নি বিসিবি সভাপতিরও। বিসিবিতে মঙ্গলবার সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে তিনি বললেন, লিটনকে তার ঠিক স্বাভাবিক মনে হচ্ছে না অনেক দিন ধরেই।

“ওর পারফরম্যান্স আমরা গত বিশ্বকাপ থেকেই দেখছি, দেয়ার ইজ সামথিং রং। সেজন্য কিন্তু ওয়ানডে থেকেও বাদ পড়েছে। চিন্তা করে দেখুন, ওর মতো একজন ব্যাটসম্যান, একজন ওপেনার, যাকে আমরা এত বছর ধরে খেলিয়েছি এবং যার ওপর আমরা নির্ভর করেছি… সে পারফর্মও করেছে, এমন নয় সে খেলা পারে না, চমৎকার খেলোয়াড়… কিন্তু কিছু একটা সমস্যা হচ্ছে। সেজন্য আমরা ওকে ওয়ানডে থেকে বাদ দিয়েছি। এর চেয়ে বড় সঙ্কেত তো আর হতে পারে না। দেয়ার ইজ আ প্রবলেম।”

সিলেট টেস্টের আগে লিটনের টেস্ট পারফরম্যান্স নিয়ে প্রশ্ন ছিল না। বরং ব্যাট হাতে দলের সবচেয়ে ধারাবাহিক পারফরমারদের একজন ছিলেন তিনি। কিন্তু তার সাম্প্রতিক অবস্থা থেকেই বিসিবি সভাপতির মনে হয়েছিল, টেস্ট দল থেকেও তাকে বাইরে রাখা হলো ভালো হতো।

“টেস্ট ম্যাচটাতেও তাকে না খেলালে ভালো হতো। কিন্তু তখন আপনারা সবাই বলতেন, ‘টেস্টে ওর এমন রেকর্ড, এই-সেই, ওকে কেন বাদ দেওয়া হলো’, হুলস্থুল একটা খামাখা মানুষ করত। কিন্তু ওকে এই সময়টায় বিরতি দিলে আমার ধারণা, ও ভালোভাবেই ফিরে আসতে পারত, আরেকটু কিছুদিন সময় যদি বিরতি দেওয়া হতো।”

অনেক সমালোচনার পরও অবশ্য আরেকটি সুযোগ লিটন পেয়েছেন। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে চট্টগ্রাম টেস্টের স্কোয়াডেও রাখা হয়েছে ২৯ বছর বয়সী অভিজ্ঞ ক্রিকেটারকে।