সাকিব-তামিমের অনুপস্থিতিতে ভাবনায় মুমিনুল

চোট সমস্যায় দলে নেই এক ঝাঁক ক্রিকেটার। সবার অভাবই অনুভূত হবে। তবে সাকিব আল হাসান ও তামিম ইকবালের শূন্যতাই হয়ত বেশি ভোগাবে বাংলাদেশকে। অভিজ্ঞ এই দুই ক্রিকেটারের অনুপস্থিতিতে নিজের ও মুশফিকুর রহিমের বাড়তি দায়িত্ব নিয়ে খেলতে হবে বলে মনে করেন বাংলাদেশ অধিনায়ক মুমিনুল হক।

ক্রীড়া প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 25 Nov 2021, 01:33 PM
Updated : 25 Nov 2021, 05:16 PM

সব মিলিয়ে পাকিস্তানের বিপক্ষে শুরু হতে যাওয়া দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজটি তার কাছে অধিনায়ক ও ব্যাটসম্যান হিসেবে কঠিন এক চ্যালেঞ্জ।

আঙুলের চোট থেকে এখনও সেরে ওঠেননি দেশসেরা ওপেনার তামিম। গত টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের মাঝামাঝি থেকে মাঠের বাইরে আছেন বিশ্ব সেরা অলরাউন্ডারদের একজন সাকিব। চট্টগ্রাম টেস্ট শুরুর আগের দিন সংবাদ সম্মেলনে মুমিনুল জানালেন, এই দুই সতীর্থের না থাকাই বেশি ভাবাচ্ছে তাকে।

“সিনিয়র ক্রিকেটারদের কয়েক জন নেই, তরুণ অধিনায়ক হিসেবে এটা আমার জন্য ও দলের সবার জন্য হতাশাজনক। তবে ওই জায়গায় পড়ে থাকলে হবে না। নতুন যারা খেলবে, জুনিয়র যারা আছে, সবার জন্য এটা সুযোগ নিজেদের মেলে ধরার ও নিজেদের সামর্থ্য দেখানোর।”

শক্তি হারিয়েছে পেস বোলিং বিভাগও। টি-টোয়েন্টি সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচ খেলার সময় চোট পাওয়া শরিফুল ইসলাম নেই টেস্ট দলে। তৃতীয় ম্যাচে খেলার সময় চোট পান ছন্দে থাকা তাসকিন আহমেদ। মুমিনুলের আশা আবু জায়েদ, ইবাদত হোসেন ও খালেদ আহমেদরা দুই হাতে কাজে লাগাবেন সুযোগ।

“মুস্তাফিজ সবশেষ ম্যাচ (টেস্ট) খেলেছে এক বছর আগে। দুর্ভাগ্যজনকভাবে তাসকিন ও শরিফুল চোটে পড়েছে। ইনজুরি হলে তো আসলে কিছু করার থাকে না। ‘ব্যাক আপ’ খেলোয়াড় যারা আছে, রাহী (আবু জায়েদ) আছে, ইবাদত আছে, তারা কিন্তু নিয়মিত টেস্ট খেলছে। তারপর খালেদ আছে। যারা আছে, তারা মোটামুটি অভিজ্ঞ।”

“রাহী গত টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপে আমাদের সবচেয়ে বেশি উইকেট পাওয়া বোলার। ইবাদতও আল্লাহর রহমতে ভালো বল করেছে, আমরা যখন লাস্ট জিম্বাবুয়ে সফর করেছিলাম। মিরাজ আছে, তাইজুল আছে। বোলার যারা আছে তাদের নিয়ে আমি অনেক আত্মবিশ্বাসী। ওরা যদি ভালো জায়গায় বল করে, অবশ্যই সম্ভব।”

কদিন আগেও পরামর্শ নিতে মাঠে পাশে পেতেন মাহমুদউল্লাহ, তামিম, সাকিবদের। দেশকে নেতৃত্ব দেওয়ার অভিজ্ঞতা আছে, এমন ক্রিকেটারদের মধ্যে এই সিরিজে মুমিনুল পাচ্ছেন কেবল মুশফিকুর রহিমকে। মুমিনুল ভালো করেই বুঝতে পারছেন সিনিয়র ক্রিকেটারদের অনুপস্থিতিতে অনেক বেশি চ্যালেঞ্জ সামলাতে হবে তাকে।

“তামিম ভাই ওপরে ভালো খেললে আমাদের জন্য কাজটা সহজ হয়ে যায়। সাকিব ভাই একা দুইজনের সমান। তাসকিনের অবস্থা খুব খুব ভালো ছিল, দারুণ বল করছিল। সেদিক থেকে বলব, চারটা ক্রিকেটার নেই। আমার মনে হয়, অধিনায়ক হিসেবে আমার জন্য কঠিন হবে। চ্যালেঞ্জিং হবে। তবে জুনিয়রদের জন্য এটা ভালো সুযোগ। হয়তো আমার, মুশফিক ভাইয়ের একটু বাড়তি দায়িত্ব নিয়ে খেলতে হবে। জুনিয়রদেরও বাড়তি দায়িত্ব নিতে হবে।”

“সাকিব ভাই, তামিম ভাই, তাসকিন, এরকম সিনিয়র ক্রিকেটাররা না থাকলে জুনিয়র অধিনায়ক হিসেবে আমার কাজটা কঠিন হয়ে যায়। তবে অবশ্যই ওই জায়গায় পড়ে থাকলে হবে না। এটি চলমান প্রক্রিয়া। সবসময় সবাইকে পাব না। কখনও পাব, কখনও পাব না। এটা নিয়ে হতাশ হয়ে পড়ে থাকলে হবে না। যারা আছে, তাদের নিয়েই এগোতে হবে।”

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক