আলোচনায় বদলে গেল বাংলাদেশ দল

গল টেস্টে দেখা গেছে দ্বিধায় থাকা এক বাংলাদেশ দলকে। সেই দলের শরীরী ভাষা আমূল পাল্টে গেছে কলম্বো টেস্টে। কোচ-অধিনায়ক জানালেন, খেলোয়াড়দের মধ্যে লম্বা সময়ের খোলামেলা আলোচনায় এসেছে এই পরিবর্তন।

ক্রীড়া প্রতিবেদক কলম্বো থেকেবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 19 March 2017, 03:48 PM
Updated : 19 March 2017, 04:16 PM

পি সারা ওভালে শ্রীলঙ্কাকে ৪ উইকেটে হারানোর পর মাঠেই সহ-অধিনায়ক তামিম ইকবাল জানান, গল টেস্টে হারের পর কোচদের জানিয়ে আলোচনায় বসেছিলেন শুধু খেলোয়াড়রা।

“আমরা ঠিক করেছি, প্রতিটি ম্যাচের আগে শুধু খেলোয়াড়রা বসবো। এটা টিম মিটিংয়ের বাইরে। কোচদের জানিয়েই এই ম্যাচের আগে বসেছিলাম। হয়তো সব ম্যাচ জিতবো না কিন্তু আমরা চেয়েছিলাম, ভিন্ন কিছু একটা করতে। সেখানে সবাই খোলামেলা আলোচনা করেছে। এই ম্যাচে হয়তো সেটার ছাপই দেখা গেছে।”

দলের প্রধান কোচ চন্দিকা হাথুরুসিংহেও জানালেন সেই কথা, “ছেলেরা নিজেরা বসেছিল। ওরা নিজেদের মধ্যে অনেক কথা বলেছে। সেটা হয়তো এই ম্যাচে কাজে এসেছে।”

সংবাদ সম্মেলনে আরেকটু বিস্তারিত জানালেন অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম।

“প্রথম টেস্টে হারার পর আমাদের মনে হয়েছে, আমরা এতো বাজেভাবে হারার দল নই। গল টেস্ট তাই আমাদের জন্য জেগে উঠার বার্তা ছিল। আমরা হতাশ ছিলাম। আমাদের যে সামর্থ্য আছে, প্রথম টেস্টে তার অর্ধেকও দিতে পারিনি।”

“আমরা ওদের চাইতে বেটার টিম। এই জন্য আমরা একসঙ্গে, মৌলিক ব্যাপারগুলো একজন আরেকজনকে মনে করিয়ে দিয়েছিলাম। আমরা যেন পরিকল্পনা মাঠে বাস্তবায়ন করতে পারি, এটা নিশ্চিত করার চেষ্টা করছিলাম। এটার ফলাফল ভালো ছিল।”

মাঠে এটা কিভাবে কাজ করছিল তারও ব্যাখ্যা মিলল অধিনায়কের কথায়।

“ম্যাচে আমরা এগিয়ে বা পিছিয়ে থাকি; সব সময়ই আমরা ভ্যালুটা বোঝার চেষ্টা করেছি। একটা রান, একটা মিসফিল্ড, এ সবের তাৎপর্য বোঝার চেষ্টা করেছি। প্রথম ইনিংসে অনেক রান দিলে দিন শেষে সেটা যে আমাদেরই করতে হবে। পঞ্চম দিনে সেটা অনেক কঠিনও হয়ে যায়। এ রকম ছোট ছোট ব্যাপার আমরা উপলব্ধি করার চেষ্টা করছি।”

“মাঠে এগুলো সব আমরা খেয়াল করতে পেরেছি, এটা ভালো লেগেছে। ব্যাটসম্যানরা দায়িত্ব নিয়ে খেলেছে, বোলাররা দায়িত্ব নিয়ে বোলিং করেছে। এটা তাই সব মিলিয়ে হ্যাপি মোমেন্ট।”

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক