মিনহাজুল-হাবিবুলের বিদায়, নতুন প্রধান নির্বাচক গাজী আশরাফ

জাতীয় দলের নির্বাচক কমিটির বাকি দুই সদস্য সাবেক দুই ক্রিকেটার আব্দুর রাজ্জাক ও হান্নান সরকার।

ক্রীড়া প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 12 Feb 2024, 01:27 PM
Updated : 12 Feb 2024, 01:27 PM

অনেক আলোচনা ও গুঞ্জনের পর অবশেষে জাতীয় নির্বাচক কমিটিতে বদল এনেছে বিসিবি। প্রায় ৮ বছর প্রধান নির্বাচকের দায়িত্ব পালন করা মিনহাজুল আবেদীনের চুক্তি নবায়ন করা হচ্ছে না। একই সঙ্গে নির্বাচক কমিটি থেকে বিদায় নিতে হচ্ছে আরেক সাবেক অধিনায়ক হাবিবুল বাশারকেও। নতুন প্রধান নির্বাচক হিসেবে দায়িত্ব নিতে চলেছেন গাজী আশরাফ হোসেন।

এই দায়িত্ব দিয়েই বিসিবিতে ফিরছেন গাজী আশরাফ। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে বাংলাদেশের প্রথম অধিনায়ক এর আগে বিভিন্ন ভূমিকায় ছিলেন। একসময় জাতীয় দলের ম্যানেজার ছিলেন তিনি। বিসিবি পরিচালক ছিলেন দীর্ঘদিন। গেম ডেভেলপমেন্ট বিভাগের প্রধান এবং ক্রিকেট পরিচালনা বিভাগের প্রধান হিসেবেও তিনি দায়িত্ব পালন করেছেন। ছিলেন বিপিএলের গভর্নিং কাউন্সিলের চেয়ারম্যান। এবার তিনি ফিরলেন নতুন রূপে।

বাংলাদেশের প্রথম আন্তর্জাতিক ম্যাচে অধিনায়ক ছিলেন গাজী আশরাফ। ১৯৮৬ সালের সেই এশিয়া কাপ থেকে ১৯৯০ সাল পর্যন্ত ৭টি ওয়ানডে খেলেছেন সাবেক এই অলরাউন্ডার। সবকটিতেই তিনি ছিলেন অধিনায়ক। ঘরোয়া ক্রিকেটেও ব্যাটে-বলে তিনি ছিলেন দারুণ সফল, নেতৃত্বেও ছাপ রেখেছিলেন আলাদা করে।

গাজী আশরাফের নেতৃত্বে নির্বাচক কমিটিতে নতুন মুখ সাবেক ক্রিকেটার হান্নান সরকার। বিদায়ী নির্বাচক কমিটির নবীনতম সদস্য আব্দুর রাজ্জাক থেকে যাচ্ছেন এই কমিটিতেও।

মিনহাজুল আবেদীনের নির্বাচক কমিটির মেয়াদ শেষ হয় গত ৩১ ডিসেম্বর। এরপর বিশেষভাবে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছিলেন তারা। এই মাস পর্যন্ত দায়িত্ব চালিয়ে যাবেন তারাই। আগামী মাসের শ্রীলঙ্কা সিরিজের দল নির্বাচনও তারাই করেছেন, যা ঘোষণা করা হতে পারে দুই-তিন দিনের মধ্যে।

নতুন নির্বাচক কমিটির দায়িত্ব শুরু হবে ১ মার্চ থেকে।

মিনহাজুল ও হাবিবুল নির্বাচক কমিটিতে জায়গা পান ২০১১ সালে। ২০১৩ সালে দুজনের মেয়াদ বাড়ানো হয়। ২০১৫ সালে হাবিবুলকে নারী দলের নির্বাচক করা হয়। ২০১৬ সালে জুনে সেই সময়ের প্রধান নির্বাচক ফারুক আহমেদ পদত্যাগ করলে প্রধান নির্বাচকের দায়িত্ব পান মিনহাজুল। হাবিবুল আবার ফেরেন নির্বাচক কমিটিতে। সেই থেকে তারা টানা দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন। অবশেষে সেই অধ্যায়ের সমাপ্তি হলো।

বিসিবির পরিচালনা পর্ষদের সভা শেষে বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান জানান, নির্বাচক কমিটিতে না থাকলেও বিসিবিতে মিনহাজুল ও হাবিবুলের অধ্যায় শেষ হচ্ছে না।

"আমরা বোর্ড অ্যাপ্রিশিয়েট করেছি আমাদের ক্রিকেটে তাদের অবদান। আমরা সকলেই একমত হয়েছি যে, আমরা সবাই খুবই খুশি তাদের অবদানের কারণে। আমরা তাদেরকে হারাতেও চাই না। এজন্য আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি বোর্ডের অন্য উপযুক্ত পজিশনে দুজনকেই রাখব।"

নতুন প্রধান নির্বাচক হিসেবে গাজী আশরাফকে বেছে নেওয়ার কারণও ব্যাখ্যা করেন বিসিবি সভাপতি।

"যে কয়টা নাম এসেছে আমাদের কাছে, তাদের মধ্যে উনার নাম দেখার পর খুব একটা অন্য পছন্দ আমাদের ছিল না। যে কয়েকটা নাম প্রস্তাব করা হয়েছে, উনি রাজি হলে উনিই সেরা। এটা নিয়ে তাই খুব একটা মতবিরোধ হয়নি। ব্যাপারটা ছিল উনি আসতে চান কি না বা রাজি আছেন কি না। যখন নিশ্চয়তা পাওয়া গেল যে উনি আছেন, তখন আমরা সবাই একবাক্যে রাজি হয়ে গেলাম যে উনাকেই প্রধান নির্বাচক করব।"

এই কমিটির সুনির্দিষ্ট মেয়াদ কিছু ঠিক করা হয়নি। বোর্ড সভাপতি শুধু বললেন, "অন্য কমিটিগুলোর মেয়াদ যেরকম থাকে, এটাও তেমনই থাকবে। বেশিই থাকবে আরও, কম হবে না।"

নির্বাচক কমিটির আরেক নতুন মুখ হান্নান সরকার এতদিন কাজ করছিলেন বিসিবির বয়সভিত্তিক দলগুলির নির্বাচক হিসেবে (জুনিয়র নির্বাচক)। ৪১ বছর বয়সী সাবেক এই ওপেনার বাংলাদেশের হয়ে ১৭ টেস্ট ও ২০ ওয়ানডে খেলেছেন।

নতুন কমিটির পুরোনো সদস্য আব্দুর রাজ্জাক জাতীয় নির্বাচক হিসেবে কাজ করছেন ২০২১ সালের জানুয়ারি থেকে।