নাদির জুনাইদের বিরুদ্ধে অভিযোগ তদন্তে দুটি কমিটি

একটি কমিটিতে দুই সপ্তাহের মধ্যে, একটি কমিটিতে দ্রুত প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 3 March 2024, 04:44 PM
Updated : 3 March 2024, 04:44 PM

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের অধ্যাপক নাদির জুনাইদের বিরুদ্ধে উঠা যৌন হয়রানি ও একটি ব্যাচের ফল ধসিয়ে দেওয়ার অভিযোগ খতিয়ে দেখতে দুটি কমিটি গঠন করা হয়েছে।

রোববার সন্ধ্যায় বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেট সভায় এ কমিটি গঠন করা হয়েছে বলে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে জানিয়েছেন উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক সীতেশ চন্দ্র বাছার।

তিনি জানান, নাদির জুনাইদের বিরুদ্ধে তার বিভাগের একজন এবং একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের আরেকজন নারী শিক্ষার্থী যৌন হয়রানি ও মানসিক নিপীড়নের অভিযোগ এনেছেন।

এই অভিযোগ তদন্তে কমিটির প্রধান আইন অনুষদের ডিন অধ্যাপক সীমা জামান। অন্য দুই সদস্য সহকারী প্রক্টর সঞ্চিতা গুহ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেট সদস্য এবং হাজী মুহাম্মদ মুহসীন হলের প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক মাসুদুর রহমান।

কমিটিকে প্রতিবেদন জমা দিতে দুই সপ্তাহ সময় দেওয়া হয়েছে।

গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের স্নাতকোত্তর ২০২২ শ্রেণির শিক্ষার্থীদের আনা ‘ব্যক্তিগত আক্রোশের কারণে ফলাফলের ধস নামিয়ে’ দেওয়ার অভিযোগ খতিয়ে দেখবে সীতেশ চন্দ্র বাছারের নেতৃত্বে কমিটি। এর অন্য দুই জন সদস্য হলেন গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের চেয়ারপারসন অধ্যাপক আবুল মনসুর আহাম্মদ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক বাহালুল হক চৌধুরী।

তাদেরকে দ্রুত প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে।

গত ১১ ফেব্রুয়ারি বিভাগের স্নাতকোত্তরের একটি ব্যাচের বেশ কজন শিক্ষার্থী নাদির জুনাইদের বিরুদ্ধে ইচ্ছা করে নম্বর কম দেওয়ার অভিযোগে তোলেন। এরপর ওই বিভাগের এক নারী শিক্ষার্থী তার বিরুদ্ধে যৌন হয়রানি ও মানসিক নির্যাতনের লিখিত অভিযোগ করেন প্রক্টরের কাছে। কিছু অডিও রেকর্ড ও মেসেজের স্ক্রিনশটও জমা দেন তিনি।

যৌন হয়রানির অভিযোগের সুষ্ঠু তদন্ত করে বিচারের দাবিতে ১১ ফেব্রুয়ারি থেকে ক্লাস বর্জন করে আন্দোলনে নামে শিক্ষার্থীরা। তারা নাদির জুনাইদের অফিস কক্ষে তালা দেওয়ার পাশাপাশি শ্রেণিকক্ষের তালায় সিলগালা লাগিয়ে দেন। উপাচার্য বরাবর স্মারকলিপিও দেওয়া হয়।

সেই প্রেক্ষাপটে গত ১২ ফেব্রুয়ারি ওই শিক্ষককে তিন মাসের বাধ্যতামূলক ছুটিতে পাঠায় বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। এরপর তদন্ত কমিটি গঠন করে বিচার প্রক্রিয়া শুরুর জন্য বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে ১০ দিন সময় বেঁধে দিয়ে ১৮ ফেব্রুয়ারি ক্লাসে ফেরেন শিক্ষার্থীরা।

সে সময় অভিযোগ অস্বীকার করে নাদির জুনাইদ বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমতে বলেন, বিভাগের পরবর্তী চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পাওয়ার আগে ‘ব্যক্তিগত আক্রমণের শিকার’ হচ্ছেন তিনি।

Also Read: যৌন হয়রানির আরেক অভিযোগ নাদির জুনাইদের বিরুদ্ধে

Also Read: ঢাবিতে ‘যৌন হয়রানি’: শিক্ষক নাদির জুনাইদকে ৩ মাসের ছুটি

Also Read: ঢাবিতে যৌন হয়রানি: শিক্ষক নাদির জুনাইদের কক্ষে তালা ঝুলিয়েছেন শিক্ষার্থীরা

Also Read: যৌন হয়রানি: ১০ দিন সময় দিয়ে ক্লাসে ফিরলেন ঢাবি সাংবাদিকতার শিক্ষার্থীরা

Also Read: ঢাবিতে যৌন হয়রানি: বিক্ষুব্ধ সাংবাদিকতার শিক্ষার্থীদের ক্লাস বর্জনের ঘোষণা