ওয়ার্কশপে হাত হারানো শিশুকে ৩০ লাখ টাকা দেওয়ার নির্দেশ

দশ বছর বয়সী নাঈম হাসান ভৈরবের একটি ওয়ার্কশপে কাজ করতে গিয়ে ডান হাত হারায়।

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 31 Jan 2024, 08:02 AM
Updated : 31 Jan 2024, 08:02 AM

ওয়ার্কশপে কাজ করার সময় হাত হারানো ব্রাহ্মণবাড়িয়ার শিশু নাঈম হাসানের নামে ব্যাংকে ৩০ লাখ টাকা স্থায়ী আমানত করে দিতে কারখানা মালিককে নির্দেশ দিয়েছে হাই কোর্ট।

একইসঙ্গে শিশুটি উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষায় পাস না করা পর্যন্ত তাকে প্রতি মাসে ৭ হাজার টাকা করে দিতে বলা হয়েছে কিশোরগঞ্জের ভৈরবের নূর ইঞ্জিনিয়ারিং নামের ওই ওয়ার্কশপের মালিককে।

৩০ লাখ টাকার মধ্যে চলতি বছরের এপ্রিলের মধ্যে ১৫ লাখ টাকা এবং ডিসেম্বরের মধ্যে বাকি ১৫ লাখ টাকার ডিপোজিট করার নির্দেশ দিয়েছে আদালত। নাঈম আমানতের ওই টাকা তুলতে পারবে ১০ বছর পর।

এ বিষয়ে জারি করা রুল নিষ্পত্তি করে বিচারপতি নাইমা হায়দার ও বিচারপতি কাজী জিনাত হকের বেঞ্চ বুধবার এই রায় দেয়।

আবেদনকারীর পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট অনীক আর হক ও অ্যাডভোকেট মো. বাকির উদ্দিন ভূইয়া। সঙ্গে ছিলেন আইনজীবী তামজিদ হাসান।

ওয়ার্কশপ মালিক ইয়াকুব হোসেনের পক্ষে ছিলেন অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম ও অ্যাডভোকেট আবদুল বারেক। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল অমিত দাশ গুপ্ত।

‘ভৈরবে শিশুশ্রমের করুণ পরিণতি’ শিরোনামে ২০২০ সালের ১ নভেম্বর একটি জাতীয় দৈনিকে প্রতিবেদন ছাপা হয়।

প্রকাশিত প্রতিবেদনটি যুক্ত করে ক্ষতিপূরণ দেওয়ার নির্দেশনা চেয়ে ২০২০ সালের ডিসেম্বরে নাঈমের বাবা আনোয়ার হোসেন হাই কোর্টে রিট আবেদন করেন। প্রাথমিক শুনানি নিয়ে ওই বছরের ২৭ ডিসেম্বর রুল দেয় আদালত।

রুলে শিশুটিকে দুই কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ দিতে কেন নির্দেশ দেওয়া হবে না, তা জানতে চাওয়া হয়।

সেই সঙ্গে কিশোরগঞ্জের জেলা প্রশাসককে ২০২০ সালের ২৮ সেপ্টেম্বরের ওই ঘটনা নিজ কার্যালয়ের একজন কর্মকর্তা দিয়ে অনুসন্ধান করতে নির্দেশ দেওয়া হয়।

গত বছরের ৫ ডিসেম্বর ওই রুলের ওপর শুনানি হয়। শুনানি শেষে আদালত বিষয়টি রায়ের জন্য অপেক্ষমান রাখে।

পত্রিকার প্রতিবেদন অনুযায়ী, ২০২০ সালের শেষ দিকে নাঈম হাসানের বয়স ছিল ১০ বছর; তখন সে চতুর্থ শ্রেণিতে পড়ত। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জ উপজেলার আড়াইসিধা গ্রামে তার বাড়ি। বাবা আনোয়ার হোসেনের জুতার ব্যবসা ছিল।

করোনাভাইরাস মহামারী শুরুর সময়ে আনোয়ার কর্মহীন হয়ে পড়লে নাঈমকে কিশোরগঞ্জের ভৈরবের একটি ওয়ার্কশপে কাজে দেন। ওই ওয়ার্কশপে কাজ করতে গিয়েই একদিন তার ডান হাত মেশিনে ঢুকে যায়; পরে অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে কনুই থেকে হাতটির নিচের অংশ কেটে বাদ দেওয়া হয়।