‘অভিশ্রুতি-বৃষ্টি’ জটিলতা কাটেনি

বিশের ঘরের ওই তরুণীর জন্ম নিবন্ধন সনদ, জাতীয় পরিচয়পত্র, ইডেন কলেজে প্রবেশপত্র এবং চাকরির জন্মবৃত্তান্তে নামের ক্ষেত্রেও বিভিন্ন গরমিল পাওয়া গেছে।

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 2 March 2024, 07:17 AM
Updated : 2 March 2024, 07:17 AM

বেইলি রোডের অগ্নিকাণ্ডে অভিশ্রুতি শাস্ত্রী নামের যে নারী সাংবাদিকের মৃত্যু হয়েছে, তার পরিচয় নিয়ে জটিলতার অবসান হয়নি।

ডিএনএ পরীক্ষার মাধ্যমে তার পরিচয় শনাক্তের চেষ্টা চলছে বলে জানিয়েছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) উপাচার্য ডা. শারফুদ্দিন আহমেদ।

আহতদের চিকিৎসায় ১৭ সদস্যের যে মেডিকেল বোর্ড গঠন করা হয়েছে, ডা. শারফুদ্দিন তার একজন সদস্য।

ফিঙ্গারপ্রিন্টের মাধ্যমে পরীক্ষা করে অভিশ্রুতির নাম বৃষ্টি খাতুন নিশ্চিত হওয়ার পর তার মরদেহ পরিবারকে বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে- শনিবার বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে খবর আসে।

বিষয়টি নিশ্চিত হতে পরে প্রশ্ন করা হয়েছিল ডা. শারফুদ্দিন আহমেদকে।

এই নারী সাংবাদিকের পরিচয় এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি জানিয়ে তিনি বলেন, “ডিএনএ পরীক্ষার মাধ্যমে তার পরিচয় শনাক্তের চেষ্টা চলছে।” 

আর স্বাস্থ্যমন্ত্রী সামন্ত লাল সেন বলেছেন, বিষয়টি ফরেনসিক বিভাগ দেখছে।

রমনা বিভাগের পুলিশের অতিরিক্ত উপকমিশনার শাহ আলম মোহাম্মদ আখতারুল ইসলাম জানান, অভিশ্রুতি শাস্ত্রী বা বৃষ্টি খাতুনের মরদেহ নিয়ে জটিলতা হয়েছে।

তিনি বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “এনআইডি এবং জন্ম নিবন্ধনে বাবার দু'ধরনের নাম এসেছে। পরিপূর্ণভাবে যাচাই না করা পর্যন্ত মরদেহ হস্তান্তর করা সম্ভব হবে না।”

এজন্য লাশের ময়না তদন্তের পাশাপাশি ডিএনএ নমুনা সংগ্রহ করা হবে বলেও জানান তিনি।

“পরবর্তীতে যেন কোনো সমস্যা না হয়, প্রকৃত অভিভাবকের কাছেই যেন মরদেহ পৌঁছে সে ব্যাপারে পুলিশ কাজ করছে।”

এজন্য দাবিদার দুই পক্ষের কাছে আবেদন চাওয়া হয়েছে বলেও জানান তিনি।

রিপোর্ট ডট লাইভ ছেড়ে সম্প্রতি কেস্টারটেক নামে একটি অনলাইন মাল্টিমিডিয়া কোম্পানিতে যোগ দেওয়া তুষার হাওলাদারের সঙ্গে গত বৃহস্পতিবার রাতে বেইলি রোডের গ্রিন কোজি কটেজে কাচ্চি ভাই রেস্তোরাঁয় গিয়েছিলেন অভিশ্রুতি। ওই ভবনে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে প্রাণ গেছে মোট ৪৬ জনের। ‘অভিশ্রুতি’ আর তুষারও রয়েছেন তাদের মধ্যে।

কিন্তু এই নারী সাংবাদিকের পরিচয় নিয়ে ধোঁয়াশা তৈরি হওয়ায় তার লাশ হস্তান্তর নিয়ে জটিলতা দেখা দেয়।

তার মৃত্যুর খবর পেয়ে ঢাকার শেখ হাসিনা বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে ছুটে আসা তার বাবা সাবরুল আলম সবুজও দাবি করেন, তার মেয়ের নাম বৃষ্টি খাতুন।

অভিশ্রুতি কিংবা বৃষ্টি কাজ করতেন দ্য রিপোর্ট ডট লাইভ নামের একটি নিউজ পোর্টালে। সম্প্রতি সেই চাকরি ছেড়ে দেন, তার যোগ দেওয়ার কথা ছিল আরেকটি সংবাদমাধ্যমে।

ওই সাংবাদিককে অভিশ্রুতি শাস্ত্রী নামে চিনতেন তার সহকর্মীরা; ফেইসবুকেও তার ওই নাম পাওয়া যায়। মন্দিরে গিয়ে নিয়মিত পূজা-অর্চনাও করতেন তিনি।

বিশের ঘরের ওই তরুণীর জন্ম নিবন্ধন সনদ, জাতীয় পরিচয়পত্র, ইডেন কলেজে প্রবেশপত্র এবং চাকরির জন্মবৃত্তান্তে নামের ক্ষেত্রেও বিভিন্ন গরমিল পাওয়া গেছে।

লাশ গ্রহণ করতে এসে সাবরুল আলম বলেন, “অভিশ্রুতি আমার মেয়ে। ওর জন্ম ২৫ ডিসেম্বর মনে হয়। আমার মেয়ে।

“ওর ডাক নাম বৃষ্টি খাতুন। গ্রামে নাম বৃষ্টি, স্কুলে নাম বৃষ্টি, কুষ্টিয়া গভর্নমেন্ট মহিলা কলেজে যখন পড়েছে, তখনও বৃষ্টি, ঢাকাতে যখন ভর্তি হয়েছে ইডেন কলেজে, ঢাবি সাত কলেজের অধীনে, তখনও বৃষ্টি, দর্শনে পড়াশোনা করে রোল নম্বর ২৭৬, তখনও বৃষ্টি।”

অভিশ্রুতি বা বৃষ্টির জন্ম নিবন্ধন সনদ, জাতীয় পরিচয়পত্র, ইডেন কলেজে অনার্স দ্বিতীয় বর্ষের ফাইনাল পরীক্ষার প্রবেশপত্র এবং চাকরির জন্মবৃত্তান্তে বাবা-মায়ের নামে বিভিন্ন রকম তথ্য পাওয়া গেছে। তবে, স্থায়ী ঠিকানা সব জায়গায় একই।

২০২১ সালের ৬ জুলাই ইস্যু করা জাতীয় পরিচয়পত্রে নাম বৃষ্টি খাতুন হিসাবেই রয়েছে। সেখানে পিতার নাম সবুজ শেখ এবং মাতার নাম বিউটি বেগম। কলেজের প্রবেশপত্রেও তার একই রকম তথ্য আছে।

সাবরুল আলম সবুজ যে এনআইডি কার্ড দেখিয়েছিলেন, তাতে বৃষ্টি খাতুন নাম দেখে প্রতারক ভেবে পুলিশ তাকে আটক করে। জিজ্ঞাসাবাদের পর তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়।

২০২২ সালের ২৩ অক্টোবর ইস্যু করা জন্ম নিবন্ধন সনদে আছে নাম অভিশ্রুতি লেখা হলেও বাবার নাম লেখা হয়েছে মো. সাবুরুল আলম এবং মায়ের নাম বিউটি বেগম।

অন্যদিকে, চাকরির জন্মবৃত্তান্তে নিজের নাম অভিশ্রুতি শাস্ত্রী লিখেছেন তিনি। তবে, বাবার নাম লেখা হয়েছে সাবুরুল আলম এবং মায়ের নাম অপর্ণা শাস্ত্রী।

জন্ম নিবন্ধন সনদ এবং জন্মবৃত্তান্তে জন্ম তারিখ ২০০০ সালের ২৫ ডিসেম্বর রয়েছে। তবে জাতীয় পরিচয়পত্রে তার জন্ম তারিখ ২৫ ডিসেম্বর ১৯৯৮।

অভিশ্রুতির ধর্ম পরিচয় নিয়ে আলোচনা চলছিল ফেইসবুকেও। নিজেকে অভিশ্রুতির ‘কাছের বন্ধু’ পরিচয় দেওয়া মাহফুজুর রহমান নামের একজন এক পোস্টে লিখেছেন, ধর্মপরিচয় নিয়ে প্রশ্নের সমাধানে প্রয়োজনীয় তথ্য রয়েছে তার কাছে। 

কিন্তু পরিচয় নিশ্চিত না হওয়ায় শনিবারও মেয়ের লাশ বুঝে পাননি সাবরুল আলম সবুজ।

আরও পড়ুন: 

Also Read: অভিশ্রুতি অথবা বৃষ্টি খাতুন, কেন পরিচয় বদলেছিলেন তিনি?