ঢাকা-টরন্টো ফ্লাইটের ড্রিমলাইনারের আসন ভাঙচুর, ‘যাত্রীর’ খোঁজে বিমান

‘সব মিলিয়ে আমরা এটা খুবই সিরিয়াসলি নিচ্ছি,’ বলেন রাষ্ট্রায়ত্ত এয়ারলাইন্সটির এমডি শফিউল আজম।

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 17 Jan 2023, 04:50 PM
Updated : 17 Jan 2023, 04:50 PM

বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের টরন্টোগামী বোয়িং উড়োজাহাজ ড্রিমলাইনারের আসন ভাঙচুর করা হয়েছে; চেষ্টা হয়েছে একটি আসনে এলইডি মনিটর খুলে ফেলার।

ঢাকা থেকে টরন্টো যাওয়া সবশেষ ফ্লাইটের উড়োজাহাজের এ ঘটনার বিষয়ে জানার পর টরন্টোর ব্যবস্থাপককে প্রতিবেদন দিতে নির্দেশ দিয়েছেন রাষ্ট্রায়ত্ত এ এয়ারলাইন্সের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) ও সিইও শফিউল আজিম।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে তিনি বলেন, “উড়োজাহাজটি এখন কানাডার টরন্টোতে রয়েছে। সেখান থেকেই মঙ্গলবার দুপুরের দিকে (ঢাকার সময়) ঘটনাটি ঢাকায় জানানো হয়। এরপর ওখানকার ম্যানেজারকে রিপোর্ট করতে বলা হয়েছে।”

ড্রিমলাইনারটির ওই যাত্রীর পরিচয় এখনও জানতে পারেনি বিমান বাংলাদেশ। ওই আসনের যাত্রীর বিষয়ে খোঁজ খবর নেওয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছেন এমডি।

আসন ভাঙচুরের কিছু ছবি ফেইসবুকে এভিয়েশন বিষয়ক একটি গ্রুপে পোস্ট করা হয়েছে।

এতে দেখা যায়, একটি আসনের দুই পাশের হাতল ভেঙে ফেলা হয়েছে। আসনের নিচের প্যানেলও ভেঙে গেছে। আসনের সঙ্গে যুক্ত এলইডি মনিটরটি টেনে খুলে ফেলার চেষ্টা হয়েছে। সেটিকে বাঁকা হয়ে ঝুলতে দেখা গেছে। রিমোট একেবারে ভাঙাচোরা অবস্থায় রয়েছে। এছাড়া আসনের নিচে গ্লাস, চামচ, কম্বল সব ছড়িয়ে-ছিটিয়ে পড়ে রয়েছে।

তবে ওই ৭৮৭-৯ ড্রিমলাইনারটিতে আসলে কী হয়েছিল তা নিয়ে খুব বেশি তথ্য জানতে পারেনি বিমান।

এ বিষয়ে ছাড় দেওয়া হবে না জানিয়ে বিমানের এমডি শফিউল আজিম বলেন, “বোঝা যাচ্ছে প্রচণ্ড ব্যাড ইনটেনশন থেকে এটা করা হয়েছে। তার আক্রোশ বিমানের ওপর না দেশের ওপর বোঝা মুশকিল। আবার এই রুটটাতে আমরা যেহেতু ভালো করছি সে কারণে অন্য কেউ এটা করালো কী না। সব মিলিয়ে আমরা এটা খুবই সিরিয়াসলি নিচ্ছি।

“ওই সিটে কে বসা ছিলেন, তার ন্যাশনালিটি কী এসব জানার চেষ্টা চলছে। তারপর আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।”

এরকম আগেও ঘটেছে জানিয়ে তিনি বলেন, দেশের কোনো লোক এটা করে তাহলে রাষ্ট্রীয় অতি মূল্যবান সম্পদ সে নষ্ট করছে। এটা রাষ্ট্রবিরোধী কাজ।

“আমরা এটা সিরিয়াসলি নিচ্ছি। আর আমাদের লোকজন অন্য কোন এয়ারলাইন্সে এটা করবে না বা কোন বিদেশি এটা করবে না।”

বিমান কর্তৃপক্ষ জানায়, ক্ষতিগ্রস্ত বোয়িং ৭৮৭-৯ ড্রিমলাইনার উড়োজাহাজটি বিমানের বহরে সম্প্রতিকতম যোগ হওয়া উড়োজাহাজগুলোর একটি। এটি ২০২২ সালের জুলাইয়ে চালু হওয়া ঢাকা-টরন্টো রুটে সরাসরি চলছে। ২১ ঘণ্টার যাত্রাপথে সোয়া এক ঘণ্টার জন্য তুরস্কে জ্বালানি নিতে নামে উড়োজাহাজটি।

বিভিন্ন সময় অন্য উড়োজাহাজ বা এ খাতের বিভিন্ন নেতিবাচক ছবি বিমানের বলে চালিয়ে দিয়ে রাষ্ট্রায়ত্ত এয়ারলাইন্সটির ভাবমূর্তি খারাপ করে দেওয়ার চেষ্টা চলছে দাবি করে এমডি শফিউল বলেন, “আপনি আরও অবাক হবেন অন্য উড়োজাহাজের ছবি আমাদের বলে চালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছে। সম্প্রতি দুজন অন্য দেশের নাগরিক বিমানের ভেতর গণ্ডগোল করার চেষ্টা করেছে। ক্যাপ্টেন নেমে তাদের সামাল দিয়েছেন, পরে তারা সরি-টরি বলেছেন।” 

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক