ধানমণ্ডি আবাসিকের বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান না সরানোয় উকিল নোটিস

ধানমণ্ডি আবাসিক এলাকা থেকে বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান সরাতে ২০১২ সালে রায় দেয় হাই কোর্ট, আপিল বিভাগেও তা বহাল থাকে।

নিজস্ব প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 14 Nov 2022, 03:53 PM
Updated : 14 Nov 2022, 03:53 PM

রাজধানীর ধানমণ্ডি আবাসিক এলাকা থেকে বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানগুলো সরানোর বিষয়ে উচ্চ আদালতের রায় বাস্তবায়ন না করায় গণপূর্ত সচিব ও রাজউক চেয়ারম্যানসহ সাতজনের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার অভিযো এনে উকিল নোটিস পাঠানো হয়েছে। 

হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড পিস ফর বাংলাদেশের (এইচআরপিবি) পক্ষে সোমবার এ নোটিস পাঠিয়েছেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মনজিল মোরসেদ। 

পূর্ত সচিব, রাজউক চেয়ারম্যান ছাড়াও গণপূর্ত বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী, রাজউকের অথরাইজড অফিসার-১ এবং ধানমণ্ডি থানার ওসি সাতজনকে এ নোটিস পাঠানো হয়েছে।

Also Read: ধানমণ্ডি আবাসিক থেকে বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান সরানোর রায় বহাল

Also Read: কলেজের নাম থেকে ‘বিশ্ববিদ্যালয়’ সরানোর নির্দেশ

পাঁচ দিনের মধ্যে রায়ের নির্দেশনা বাস্তবায়ন না করলে তাদের বিরুদ্ধে ‘আইনি ব্যবস্থা’ গ্রহণ করা হবে বলে নোটিসে হুঁশিয়ার করা হয়েছে। 

আইনজীবী মনজিল মোরসেদ বলেন, ধানমণ্ডি আবাসিক এলাকা থেকে অননুমোদিত বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানগুলো সরিয়ে নিতে ২০১২ সালের ১১ জুন একটি রায় দেয় হাই কোর্ট। যা ২০১৬ সালের ১ অগাস্ট আপিল বিভাগও বহাল থাকে। 

রায়ের পর ছয় বছরেও আদালতের নির্দেশ অনুযায়ী বিবাদীরা কোনো পদক্ষেপ নেননি জানিয়ে মনজিল মোরসেদ বলেন, “এর কারণে ধানমণ্ডি আবাসিক এলাকায় স্বাভাবিক জীবনযাত্রা ব্যাহত হচ্ছে। যানজটের কারণে রাস্তায় গাড়ি নিয়ে যেতে অনেক সময় লাগে। রায়ের পরে কয়েকটি প্রতিষ্ঠান নিজ উদ্যোগে ধানমণ্ডির চতুর্দিকে বিভিন্ন কমার্শিয়াল রোডে স্থানান্তরিত হলেও রাজউকের পক্ষ থেকে রায় বাস্তবায়নে কোনো পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়নি।”

ধানমণ্ডি আবাসিক এলাকার বৈশিষ্ট্য রক্ষার নির্দেশনা চেয়ে সেখানকার দুই বাসিন্দা এম এ মাসুদ এবং এম এ মতিন হাই কোর্টে ২০১১ সালে একটি রিট আবেদন করেন। রিটের প্রাথমিক শুনানি নিয়ে ওই বছরের ২ ফেব্রুয়ারি হাই কোর্ট রুল জারি করে। 

একই সঙ্গে ধানমণ্ডি আবাসিক এলাকায় নতুন স্কুল, কলেজ ও ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান স্থাপন ও অনুমোদনের ওপর অন্তর্বর্তীকালীন নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়। রুলের ওপর চূড়ান্ত শুনানি শেষে ২০১২ সালের ১১ জুন রায় দেয় হাই কোর্ট। 

রায়ে ধানমণ্ডি আবাসিক এলাকা থেকে অননুমোদিত বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানগুলো সরিয়ে নিতে নির্দেশ দেয়। তবে ইতিপূর্বে বাণিজ্যিক এলাকা হিসেবে ঘোষণা করায় ধানমণ্ডি-২ এর ২৭ নম্বর সড়ক, সাতমসজিদ ও মিরপুর সড়কের বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানগুলো ক্ষতিগ্রস্ত হবে না বলে রায়ে জানানো হয়।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক