সাংবাদিকের উপর হামলা: পুলিশের এসআই বরখাস্ত, গ্রেপ্তার ৩

কামরাঙ্গীচরে এসপিএ নামের ওই ক্লিনিকে ভুয়া চিকিৎসকের বিষয়ে খবর সংগ্রহের সময় মারধরের শিকার হন ইনডিপেনডেন্ট টিভির দুই সংবাদকর্মী।

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 9 August 2022, 05:57 PM
Updated : 9 August 2022, 05:57 PM

রাজধানীর কামরাঙ্গীচরে একটি ক্লিনিকে সংবাদ সংগ্রহের সময় দুই সংবাদকর্মীকে মারধরের ঘটনায় পুলিশের একজন উপ পরিদর্শককে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে; জড়িত থাকার অভিযোগে গ্রেপ্তার হয়েছেন ক্লিনিকের মালিকসহ তিনজন।

মঙ্গলবার দুপুরে এসপিএ নামের ওই ক্লিনিকে একজন ‘ভুয়া চিকিৎসকের’ বিষয়ে খবর সংগ্রহ করতে গিয়ে মারধরের শিকার হন ইনডিপেনডেন্ট টেলিভিশনের প্রতিবেদক হাসান মিসবাহ ও ক্যামেরা পারসন সাজু মিয়া।

তাদের উপর হামলার সময় ক্লিনিকের পক্ষ নেওয়ায় কামরাঙ্গীচর থানার উপ পরিদর্শক (এসআই) মিলনকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। আর ক্লিনিকের মালিক এম এইচ ওসমানীসহ তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন কামরাঙ্গীচর থানার ওসি মোস্তাফিজুর রহমান।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে তিনি জানান, তারা খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে মেজবাহসহ দুইজনকে উদ্ধার করে থানায় নেওয়া হয়।

"অপেশাদার আচরণের কারণে পুলিশের এসআই মিলনকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। সেই সাথে ক্লিনিকের মালিকসহ তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে," যোগ করেন তিনি।

এ ঘটনায় আহত সাংবাদিক মিসবাহকে রাজধানীর একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

তিনি সাংবাদিকদের কাছে অভিযোগ করেন, এসপিএ নামের ওই ক্লিনিকে একজন ‘ভুয়া চিকিৎসক’ বসেন এমন তথ্য পেয়ে তারা সেখানে গিয়েছিলেন।

“এ বিষয়ে ক্লিনিকের মালিক ওসমানীর সঙ্গে কথা বলতে গেলে তিনিসহ তার লোকজন হামলে পড়ে। আমাকে ও ক্যামেরাপরসনকে ব্যাপক মারধর করে। তাদের ১৫/২০ লোক এসে গাড়ি, ক্যামেরা ভাংচুর করে।“

তার ভাষ্য, “মালিক ওসমানী তাদের লোকজনকে বলে পুলিশকে খবর দে, কেমন সাংবাদিক দেখাচ্ছি মজা। এরপরেই মিলন নামে একজন এসআই আসে এবং আমার সাথে মালিকের পক্ষ নিয়ে খারাপ ব্যবহার এবং আমাদের ভুয়া সাংবাদিক বলে আমাকে ঘুষি মারে।"

মিসবাহ জানান, তিনি অফিসের অ্যাসাইনমেন্ট নিয়ে সেখানে গিয়েছিলেন এবং বিষয়টি তাদেরকে বলার পরও তারা কোনো কথাই শোনেননি।

এ ঘটনায় মামলা হয়েছে এবং পুলিশ আইনানুগ ব্যবস্থা নিচ্ছে বলে জানান ওসি মোস্তাফিজুর।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক