সংসদ ১০০ কার্যদিবসের ৮৪ দিনই শুরু হয় দেরিতে

“সংসদে নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতার কারণে ক্ষমতাসীন দলের একচ্ছত্র ভুবনে রূপান্তরিত হয়েছে,” বলেন ইফতেখারুজ্জামান।

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 22 Oct 2023, 12:13 PM
Updated : 22 Oct 2023, 12:13 PM

একাদশ সংসদের ২২টি অধিবেশন পর্যালোচনা করে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ-টিআইবি জানিয়েছে, প্রতি ১০০ কার্যদিবসের মধ্যে ৮৪ দিনই নির্ধারিত সময়ের চেয়ে দেরিতে বসেছে সংসদ। আর বিরতির পর প্রতি দিনই সংসদ বসে নির্ধারিত সময়ের দেরিতে।

২০১৯ সালের জানুয়ারি থেকে চলতি বছরের এপ্রিল পর্যন্ত কোরাম সংকটে ৫৪ ঘণ্টা ৩৮ মিনিট অধিবেশন বিঘ্নিত হয়েছে। সংসদ পরিচালনায় প্রতি মিনিটের গড় অর্থমূল্য প্রায় ২ লাখ ৭২ হাজার ৩৬৪ টাকা হিসেবে কোরাম সংকটের সময় প্রাক্কলিত অর্থমূল্য প্রায় ৮৯ কোটি ২৮ লাখ ৮ হাজার ৭৭৯ টাকা।

রোববার 'পার্লামেন্ট ওয়াচ একাদশ জাতীয় সংসদ- প্রথম থেকে ২২তম অধিবেশন’ শীর্ষক গবেষণা প্রতিবেদনে এসব তথ্য জানায় টিআইবি।

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, আইন প্রণয়ন, জনগণের প্রতিনিধিত্ব ও সরকারের জবাবদিহিতা নিশ্চিতের ক্ষেত্রে জাতীয় সংসদের অধিবেশনগুলো প্রত্যাশিত পর্যায়ে কার্যকর ছিল না। সংসদ পরিচালনায় স্পিকারের জোরালো ভূমিকার ঘাটতি ছিল বলে মনে করে সংস্থাটি।

গবেষণার তথ্য উপাত্ত তুলে ধরে সংস্থাটির নির্বাহী পরিচালক ইফতেখারুজ্জামান বলেন, “সংসদে নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতার কারণে ক্ষমতাসীন দলের একচ্ছত্র ভুবনে রূপান্তরিত হয়েছে।”

বিরোধী দল হিসেবে জাতীয় পার্টি দশম সংসদের তুলনায় দুর্নীতি-অনিয়ম নিয়ে সক্রিয় ভূমিকা রাখার চেষ্টা করেছে বলেও গবেষণায় তথ্য পাওয়ার কথা জানান তিনি।

জাতীয় পার্টির সার্বিক ভূমিকা নিয়ে ইফতেখারুজ্জামান বলেন, “সার্বিকভাবে তাদের দ্বৈত ভূমিকা, আত্মপরিচয়ের (সরকারি দলের অংশ নাকি বাস্তবে বিরোধী দল) সঙ্কট রয়েছে, যার ফলে বিরোধী দলের যে প্রত্যাশিতভাবে ভূমিকা পাইনি আমরা।”

প্রতিবেদনটি উপস্থাপনা করেন টিআইবির রিসার্চ অ্যাসোসিয়েট রাবেয়া আক্তার কনিকা এবং মোহাম্মদ আব্দুল হান্নান সাখিদার।

সংবাদ সম্মেলনে আরও সংস্থাটির উপদেষ্টা নির্বাহী ব্যবস্থাপনা অধ্যাপক সুমাইয়া খায়ের, গবেষণা ও পলিসি বিভাগের পরিচালক মুহাম্মদ বদিউজ্জামানও উপস্থিত ছিলেন।

(প্রতিবেদনটি প্রকাশিত হয়েছিল ১ অক্টোবর ২০২৩ তারিখে: ফেইসবুক লিংক)