চীনের সঙ্গে ৪ চুক্তি ও সমঝোতা স্মারক

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা, কচা নদীর উপর নির্মিত সেতু হস্তান্তর, সাংস্কৃতিক বিনিময় এবং শিক্ষা সহযোগিতার বিষয়ে চারটি দলিলে সই করেছে দুই দেশ।

নিজস্ব প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 7 August 2022, 04:40 AM
Updated : 7 August 2022, 04:40 AM

চীনা পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ইর ঢাকা সফরে দুই দেশের মধ্যে চারটি চুক্তি ও সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়েছে।

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা, কচা নদীর উপর নির্মিত সেতু হস্তান্তর, সাংস্কৃতিক বিনিময় চুক্তি নবায়ন এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে মেরিন সায়েন্সেস শিক্ষা বিষয়ে সহযোগিতার বিষয়ে এই চারটি দলিলে দুই দেশ স্বাক্ষর করেছে বলে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম জানিয়েছেন।

রোববার সকালে হোটেল সোনারগাঁওয়ে চীনা পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ইর সঙ্গে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেনের দ্বিপক্ষীয় বৈঠক হয়। পরে তাদের উপস্থিতিতে এসব চুক্তি ও সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়।

পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম সাংবাদিকদের বলেন, প্রায় দেড় ঘণ্টার আলোচনার মধ্যে এক ঘণ্টা ছিল দ্বিপক্ষীয় আলোচনা। এরপর চুক্তি ও সমঝোতা স্মারকগুলো সই হয়েছে। এর মধ্যে কোনটা চুক্তি আর কোনটা সমঝোতা স্মারক পরে জানানো হবে।

তবে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা শনিবার জানিয়েছিলেন, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনার বিষয়ে একটি প্রকল্পে সহযোগিতার বিষয়ে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় এবং অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের (ইআরডি) সঙ্গে চীনের চুক্তি হবে। চীনের দেওয়া ঋণে এ প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হবে।

পিরোজপুরে কচা নদীর উপর যে অষ্টম বাংলাদেশ-চীন মৈত্রী সেতু নির্মিত হয়েছে, তা হস্তান্তর করা হবে একটি চুক্তির আওতায়।

পিরোজপুর থেকে খুলনার পথে প্রায় তিন কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের এই সেতু চীনের অর্থায়নে নির্মিত হয়েছে।

দক্ষিণ ও পূর্ব এশিয়া সফরের অংশ হিসাবে শনিবার বিকালে ঢাকায় পৌঁছান চীনা পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ই। শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে তাকে স্বাগত জানান কৃষিমন্ত্রী আব্দুর রাজ্জাক।

রোববার সকালে পররাষ্ট্র মোমেনের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বৈঠকে অংশ নেওয়ার পর গণভবনে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রী।

ঢাকা সফর শেষে বেলা পৌনে ১১টায় মঙ্গোলিয়ার উদ্দেশে যাত্রা করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ই। শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন তাকে বিদায় জানান।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক