শাহজালালের থার্ড টার্মিনালে সিন্ডিকেটের অভিযোগ, তদন্তে নামছে সংসদীয় কমিটি

সংসদীয় স্থায়ী কমিটির ‘একজন প্রভাবশালী সদস্য ওই সিন্ডিকেটের নেতৃত্ব দিচ্ছেন’ বলে অভিযোগ এসেছে সংবাদমাধ্যমে।

নিজস্ব প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 25 July 2022, 04:03 PM
Updated : 25 July 2022, 04:03 PM

ঢাকায় শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের নির্মাণাধীন থার্ড টার্মিনালের কাজে অনিয়মের অভিযোগ সংবাদমাধ্যমে আসার পর বিষয়টি নিয়ে তদন্তে নামছে সংসদীয় কমিটি।

সোমবার বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠকে ওই তদন্তের জন্য একটি উপ-কমিটি গঠন করা হয়েছে।

স্থায়ী কমিটির সদস্য আনোয়ার হোসেন খানকে আহ্বায়ক করে তিন সদস্যের ওই কমিটিতে সদস্য হিসেবে আছেন শেখ তন্ময় ও সৈয়দা রুবিনা আক্তার।

গত জুন মাসে দৈনিক যুগান্তরের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, থার্ড টার্মিনালের আলোকসজ্জায় নিম্নমানের বাতি ব্যবহার এবং নিম্নমানের বৈদ্যুতিক সরঞ্জাম ব্যবহার করা হচ্ছে।

“বাংলাদেশ বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ (সিএএবি) প্রকল্পের প্রতিটি পণ্যের মান ও গ্রেড স্পষ্ট করে দিলেও একটি সিন্ডিকেট তা মানছে না। বিদেশ থেকে কেনার নাম করে প্রকল্পে ঢোকানো হচ্ছে মানহীন ও নিম্ন গ্রেডের পণ্য।”

Also Read: শাহজালালে থার্ড টার্মিনাল চালু আগামী বছরেই: বিমান প্রতিমন্ত্রী

Also Read: শাহজালালের তৃতীয় টার্মিনাল নির্মাণ নিয়ে অসন্তোষ সংসদীয় কমিটির

ওই খবরে বলা হয়, সংসদীয় স্থায়ী কমিটির ‘একজন প্রভাবশালী সদস্য’ পুরো সিন্ডিকেটের নেতৃত্ব দিচ্ছেন।

গত ২২ জুন সংসদীয় কমিটির বৈঠকে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা হয়, যার বিবরণ কার্যবিবরণীতেও এসেছে।

ওই বৈঠকে কমিটির সভাপতি র আ ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী বলেন, “সিভিল এভিয়েশন সম্পর্কে সম্প্রতি অনেক কথাবার্তা শোনা যাচ্ছে। এমনকি সিভিল এভিয়েশনের যাবতীয় কন্ট্রাক্টিং বিষয় সংসদীয় কমিটির একজন প্রভাবশালী সদস্য নিয়ন্ত্রণ করে থাকে- ইঙ্গিত করা হয়েছে। কিন্তু কে বা কারা এর সঙ্গে জড়িত তা কিছুই জানা যায়নি।”

সভাপতি বলেন, এ ধরনের কোনো বিষয়ের সত্যতা পাওয়া যায়নি। এ বিষয়ে ‘একটি জোরালো বার্তা প্রেসে পাঠানোর’ সুপারিশ করেন তিনি। সভাপতিও ওই সুপারিশ কমিটিতে সিদ্ধান্ত হিসেবে গ্রহণ করা হয়।

ওই বৈঠকে বিমান সচিব মোকাম্মেল হোসেন বলেন, যে খবর প্রকাশিত হয়েছে তার কোনো সত্যতা পাওয়া যায়নি।

কমিটির সদস্য তানভীর ইমাম বলেন, প্রকাশিত খবরটির বিষয়ে ‘ভালোভাবে অনুসন্ধান করা উচিৎ’।

সোমবার স্থায়ী কমিটির বৈঠক শেষে কমিটির সভাপতি উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী সাংবাদিকদের বলেন, “আমরা একটা কমিটি করে দিয়েছি। কোনো অনিয়ম হয়েছে কি না সেটি তারা তদন্ত করবে।”

২০১৯ সালের শেষ দিকে শুরু করা হয় ঢাকা বিমানবন্দরের থার্ড টার্মিনাল প্রকল্পের নির্মাণ কাজ। প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলী বলেছেন, ২০২৩ সালে সেপ্টেম্বরে এই টার্মিনাল উদ্বোধন করা হবে বলে সরকার আশা করছে।

এ নির্মাণ কাজে অর্থায়ন করছে জাইকা। জাপানের সিমুজি ও কোরিয়ার স্যামসাং যৌথভাবে এভিয়েশন ঢাকা কনসোর্টিয়াম (এডিসি) প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করছে।

এদিকে পর্যটন এলাকাগুলোতে হোটেল-মোটেল এবং বহুতল ভবন নির্মাণের নকশা অনুমোদনের ক্ষেত্রে স্যুয়ারেজ ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্ট (এসটিপি) নির্মাণের বাধ্যবাধকতা রাখার সুপারিশ করেছে কমিটি।

উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরীর সভাপতিত্বে বৈঠকে কমিটির সদস্য বিমান প্রতিমন্ত্রী মো. মাহবুব আলী, ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন, কাজী ফিরোজ রশীদ, আনোয়ার হোসেন খান, শেখ তন্ময় ও সৈয়দা রুবিনা আক্তার অংশ নেন।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক