ক্ষত নিয়ে ধানক্ষেতে পড়ে ছিল নবজাতকটি

নবজাতকটির আশ্রয় মিললেও তার শারীরিক অবস্থা ‘আশঙ্কাজনক’ বলে জানাচ্ছেন ঢাকা মেডিকেলের চিকিৎসকরা।

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 25 July 2022, 11:16 AM
Updated : 25 July 2022, 11:16 AM

নাকে রক্তাক্ত ক্ষত, মাথার পেছনেও জখম; ধানক্ষেতে পড়ে থাকা নবজাতকটির এ করুণ দশা হয়েছে ‘ইঁদুর বা পোকামাকড়ের’ আক্রমণে।

কুমিল্লার হোমনা উপজেলার গৌরীপুরে কুড়িয়ে পাওয়া কন্যাশিশুটিকে বুকে টেনে নিয়েছেন স্থানীয় কৃষক মানিক মিয়া।

ভূমিষ্ঠ হয়েই নিষ্ঠুরতার শিকার নবজাতকটির আশ্রয় মিললেও তার শারীরিক অবস্থা ‘আশঙ্কাজনক’ বলে জানাচ্ছেন ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের চিকিৎসকরা। রোববার রাত সোয়া ২টার দিকে এ হাসপাতালের নবজাতক ইউনিটে তাকে ভর্তি করা হয়।

কৃষক মানিক মিয়া জানান, গত ২১ জুলাই সকালে তার ভাই আমির হোসেন ধানক্ষেতে কাজ করতে গিয়ে শিশুটিকে দেখতে পান। তৎক্ষণিকভাবে বিষয়টি ইউপি চেয়ারম্যানকে জানানো হয়।

খবর শুনে লোকজন জড়ো হয়ে যায়। কিন্তু কেউ শিশুটিকে ধরছিলেন না। পরে সবার উপস্থিতিতে মানিক মিয়া তাকে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করান।

চেয়ারম্যানের মাধ্যমে খবর পেয়ে থানা পুলিশ হাসপাতালে গিয়ে নবজাতকটির খোঁজখবর নেন। মানিক মিয়া ও তার স্ত্রীই শিশুটির সেবাযত্ন ও দেখভাল করছেন।

তবে কুমিল্লার শিশুটির অবস্থার উন্নতি না হওয়ায় চিকিৎসকরা ঢাকায় নিতে বললে রোববার গভীর রাতে তারা ঢাকা মেডিকেলে আসেন।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল নাজমুল হক বলেন, “শিশুটির অবস্থা খুবই ক্রিটিকাল। তার ওজন ১৭০০ গ্রাম, শরীরে ইনফেকশনও রয়েছে। আমাদের সর্বোচ্চটুকু দিয়ে আমরা তার চিকিৎসা করছি।”

শিশুটিকে হাসপাতালে নিয়ে আসা মানিক মিয়া বলেন, “তার নাকে ও মাথার পেছনে সম্ভবত ইঁদুর ও পোকামাকড় কামড়ে ক্ষত করে ফেলেছে। এখন সবকিছু উপরআলার হাতে।

“আমার চারটা ছেলে আছে। আল্লাহ যদি ওকে বাঁচায়, আমি ওকেও দত্তক নিতে চাই।”

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক