জিম্মি মুক্তি ছাড়া গাজায় অবরোধের অবসান হবে না: ইসরায়েল

সেখানে কোনও বিদ্যুতের সুইচ অন হবে না। কোনও পানির কল চালু হবে না। কোনও জ্বালানি ট্রাক ঢুকবে না যতক্ষণ পর্যন্ত না ইসরায়েলি জিম্মিরা ঘরে ফেরে- বলেছেন ইসরায়েলের জ্বালানিমন্ত্রী।

নিউজ ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 12 Oct 2023, 12:20 PM
Updated : 12 Oct 2023, 12:20 PM

ইসরায়েল বলেছে, সব ইসরায়েলি জিম্মি মুক্ত না হওয়া পর্যন্ত গাজায় অবরোধের অবসান হবে না এমনকি কোনও মানবিক বিরতিও হবে না।

রেড ক্রস বৃহস্পতিবার গাজায় হাসপাতালগুলোর জন্য জ্বালানি সরবরাহের আবেদন জানানোর পর ইসরায়েল একথা বলেছে। ইসরায়েলের জ্বালানিমন্ত্রী কাটজ বলেন, গাজায় বিদ্যুৎ, পানি, জ্বালানি কোনও কিছুই সরবরাহ করা হবে না।

গত শনিবার ইসরায়েলে ফিলিস্তিনের মুক্তিকামী সশস্ত্র গোষ্ঠী হামাস প্রাণঘাতী হামলা চালানোর পর অন্তত ১৫০ জন ইসরায়েলিকে ধরে নিয়ে গিয়ে জিম্মি করেছে বলে জানিয়েছে বিবিসি।

হামাসের অতর্কিতে ওই হামলার পর এ পর্যন্ত ১,২০০’র বেশি ইসরায়েলির মৃত্যু হয়েছে এবং আহত হয়েছে আরো ২,৭০০ জনের বেশি। আর হামাসের হামলার পাল্টা জবাবে গাজায় ইসরায়েলের বিমান হামলায় এ পর্যন্ত ১,৩০০র বেশি মানুষ নিহত হয়েছে এবং ৫,১৮৪ জন আহত হয়েছে।

গাজার হামাস কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, প্রায় ৫৩৫টি আবাসিক ভবন ধ্বংস হয়েছে এবং আড়াই লাখ মানুষ গৃহহীন হয়েছে। বাস্তুচ্যুতদের বেশিরভাগই জাতিসংঘের আশ্রয়কেন্দ্রে আছে, অন্যরা রাস্তায় দিন পার করছে। 

অবরুদ্ধ গাজায় একমাত্র বিদ্যুৎকেন্দ্রে জ্বালানি ফুরিয়ে বুধবারই বন্ধ হয়ে গেছে। ইসরায়েলের অবরোধের কারণে গাজায় খাবার, পানি সরবরাহ বন্ধ আছে। ইসরায়েল থেকে বিদ্যুৎ সরবরাহও বন্ধ করা হয়েছে।

বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানায়, আন্তর্জাতিক রেডক্রস কমিটির আঞ্চলিক পরিচালক বৃহস্পতিবার এক বিবৃতিতে বলেছেন, “ইসরায়েল-হামাসের এই সংঘাতে মানবিক দুর্দশা খুবই ভয়াবহ এবং আমি দুই পক্ষকেই বেসামরিক নাগরিকদের দুর্ভোগ লাঘব করার জন্য মিনতি করছি।”

তিনি বলেন, “গাজায় বিদ্যুৎ না থাকায় হাসপাতালগুলোতে বিদ্যুৎ নেই। ফলে ইনকিউবেটরে থাকা নবজাতক এবং বয়স্ক রোগীরা অক্সিজেন ফুরিয়ে যাওয়ার ঝুঁকিতে আছে। কিডনি ডায়লিসিস বন্ধ হয়ে যাচ্ছে, এক্সরে করা সম্ভব হচ্ছে না। বিদ্যুৎ ছাড়া হাসপাতালগুলোর মর্গে পরিণত হওয়ার ঝুঁকিতে আছে।”

ইসরায়েলের জ্বালানিমন্ত্রী বলেছেন, ইসরায়েলি জিম্মিরা মুক্তি না পাওয়া পর্যন্ত অবরোধে কোনওরকম ব্যাত্যায় ঘটবে না। তিনি বলেন, “গাজায় মানবিক ত্রাণ? কোনও বিদ্যুতের সুইচ অন হবে না। কোনও পানির কল চালু হবে না, কোনও জ্বালানি ট্রাক ঢুকবে না যতক্ষণ পর্যন্ত না ইসরায়েলি জিম্মিরা ঘরে ফেরে।”