ইদ্দত পালন মামলায় ইমরান-বুশরার ৭ বছরের কারাদণ্ড

গত বছর নভেম্বরে বুশরার সাবেক স্বামী খাওয়ার ফরীদ মানেকা এই মামলা করেন।

নিউজ ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 3 Feb 2024, 01:42 PM
Updated : 3 Feb 2024, 01:42 PM

পাকিস্তানে জাতীয় নির্বাচনে ভোট গ্রহণ আসন্ন। এর আগে একের পর এক মামলায় দণ্ড পেয়ে যাচ্ছেন দেশটির সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। এবার তার সাজা হয়েছে সাত বছর।

বিবাহ বিচ্ছেদের পর শরিয়া আইন মেনে ইদ্দতকাল পালন করা হয়নি অভিযোগে করা একটি মামলায় সর্বশেষ শনিবার ইমরান ও তার স্ত্রী বুশরা বিবিকে সাত বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে দেশটির একটি আদালত।

গত বছর নভেম্বরে বুশরার সাবেক স্বামী খাওয়ার ফরীদ মানেকার করা এই মামলায় আদিয়ালা জেলা কারাগারে একট অস্থায়ী আদালত বসিয়ে এই রায় দেন জ্যেষ্ঠ বিচারপতি কুদরতুল্লাহ। ইমরান-বুশরা দম্পতির উভয়কে পাঁচ লাখ রুপি করে জরিমানাও করেছে আদালত।

এ সপ্তাহেই আরো দুটো মামলা সাজা পেয়েছেন ইমরান খান। তার একটি হলো তোষাখানা মামলা, যে মামলায় ইমরান ও তার স্ত্রীকে ১৪ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত। তার আগে রাষ্ট্রীয় গোপন নথি ফাঁসের অভিযোগে ইরমান ও তার দল পিটিআই এর জ্যেষ্ঠ নেতা শাহ মেহমুদ কোরেশির ১০ বছর করে কারাদণ্ড হয়।

শনিবার যে মামলায় ইমরান ও তার স্ত্রীর সাজা হলো সেই মামলার অভিযোগে বুশরা বিবির আগে স্বামী বলেছিলেন, তার সঙ্গে বিবাহবিচ্ছেদের পর ইসলামিক শরিয়া অনুযায়ী নির্ধারিত ইদ্দতকাল পার না হওয়ার আগেই ইমরান ও বুশরা বিয়ে করেন। যা স্পষ্টতই ওই আইনের লঙ্ঘন এবং আইন না মানায় তাদের বিবাহ অবৈধ।

শনিবারের রায়ের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে আপিল করতে পারবেন ইমরান-বুশরা। তারা এরইমধ্যে আপিলের প্রস্তুতি শুরু করেছেন বলে পিটিআই নেতাদের বরাত দিয়ে জানিয়েছে পাকিস্তানের ইংরেজি ভাষার দৈনিক ডন।

আগামী ৮ ফেব্রুয়ারি পাকিস্তানে জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। কারাদণ্ডিত হওয়ায় যে নির্বাচনে অংশ নিতে পারছেন না ইমরান খান। তার মনোনয়নপত্র বাতিল করেছে দিয়েছে নির্বাচন কমিশন।

Also Read: তোষাখানা মামলায় ইমরান খান ও স্ত্রীর ১৪ বছর করে কারাদণ্ড

Also Read: গোপন নথি ফাঁস মামলায় ইমরান খানের ১০ বছরের কারাদণ্ড

Also Read: ইমরান খানের বিরুদ্ধে বুশরা বিবির সাবেক স্বামীর মামলা