ভোট দিচ্ছে ইতালি, জয়ে চোখ ডানপন্থিদের

জুলাইয়ে মারিও দ্রাঘির জাতীয় ঐক্য সরকার ভেঙে যাওয়ায় ইতালিতে এক শতকেরও বেশি সময় পর শরৎকালে প্রথম সাধারণ নির্বাচন হচ্ছে। 

নিউজ ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 25 Sept 2022, 08:57 AM
Updated : 25 Sept 2022, 08:57 AM

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর সবচেয়ে কট্টর ডানপন্থি সরকার বেছে নেওয়া হবে কি না, সেই বিষয়ে রায় জানাচ্ছেন ইতালির ভোটাররা।

রোববার দেশটিতে সাধারণ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ চলছে; ফল কী হয়, তা জানতে ইউরোপের অন্যান্য দেশও অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছে।

ভোটের আগে হওয়া সর্বশেষ জনমত জরিপগুলোতে জর্জিয়া মেলোনি নেতৃত্বাধীন কট্টর ডানপন্থি ব্রাদার্স অব ইতালি পার্টির জয়জয়কার দেখা গেছে বলে জানিয়েছে বিবিসি।

আরও দুই ডানপন্থি দলের সঙ্গে মিলে করা তার জোট ক্ষমতাসীন হলে মেলোনিই ইতালির প্রথম নারী প্রধানমন্ত্রী হবেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।

ব্রাদার্স অব ইতালির এ শীর্ষ নেতা সাম্প্রতিক সময়ে নিজের খানিকটা উদার ভাবমূর্তি দাঁড় করিয়েছেন, রাশিয়ার ওপর পশ্চিমাদের নিষেধাজ্ঞাকে সমর্থনও করেছেন। ইউরোপ নিয়ে তার ক্ষোভের বহিঃপ্রকাশও অনেকখানিই কমে এসেছে।

অবশ্য এখনও তিনি ফ্যাসিস্টদের পুরনো স্লোগান ‘ঈশ্বর, পিতৃভূমি, পরিবারে’-ই উপরেই আস্থা রাখছেন। তিনি সমকামিতার পক্ষে কাজ করা লবির বিরোধী, অভিবাসন রুখতে লিবিয়ায় নৌ অবরোধ দেওয়ার পক্ষে।

জুলাইয়ে মারিও দ্রাঘির জাতীয় ঐক্য সরকার ভেঙে যাওয়ায় ইতালিতে এক শতকেরও বেশি সময় পর শরৎকালে প্রথম সাধারণ নির্বাচন হচ্ছে। 

রোববার সকাল ৭টা থেকে শুরু হওয়া এ ভোট স্থানীয় সময় রাত ১১টা পর্যন্ত চলবে, এরপর বুথফেরত জরিপ ও ভোটের চিত্র দেখে কারা পরবর্তী সরকার গঠন করতে যাচ্ছে, তার আভাস মিলবে।

মেলোনির ব্রাদার্স অব ইতালির সঙ্গে ডানপন্থিদের জোটে আছে মাত্তিও সালভিনির লিগ পার্টি ও সিলভিও বারলুসকোনির ফোর্জা ইতালি।

নির্বাচনে জিতলে তা হবে রোমের বাসিন্দা ৪৫ বছর বয়সী মেলোনির জন্য বড় ‍উত্থান। ২০১৮ সালের সর্বশেষ সাধারণ নির্বাচনেই তার দল পেয়েছিল মাত্র ৪ শতাংশ ভোট।

ভোটগ্রহণ রোববার রাতে শেষ হলেও সংখ্যানুপাতিক হিসাব আর বেশি ভোট পাওয়া প্রার্থীর আসন জয়সহ নানান জটিল বিন্যাস থাকায় পার্লামেন্টে কোন দল ঠিক কত আসন পেতে যাচ্ছে তা বের হতে সময় লাগবে।

সর্বশেষ জনমত জরিপ হয়েছে ভোটের দুই সপ্তাহ আগে; এর মধ্যে বাম ঘরানার ফাইভ স্টার মুভমেন্ট দলের সমর্থন কিছুটা বেড়েছে বলে গুঞ্জন রয়েছে, এ কারণে কেউ কেউ ভোটের ফলে চমকও আশা করছেন।

২০১৮ সালের নির্বাচনে ফাইভ স্টার সবচেয়ে বেশি আসন পেয়েছিল।

আর ডানপন্থিরা সুস্পষ্ট ব্যবধানে জিতলেও অক্টোবরের শেষভাগের আগে তারা সরকার গঠন করতে পারছে না, দেশটির নতুন পার্লামেন্টও আগামী ১৩ অক্টোবরের আগে বসছে না।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক