খালিস্তানপন্থি নেতা পান্নুনকে হত্যা চক্রান্তের অভিযোগ, তদন্ত করবে ভারত

যুক্তরাষ্ট্রে শিখ বিচ্ছিন্নতাবাদী এই নেতাকে হত্যা চক্রান্ত সংশ্লিষ্ট সব বিষয় খতিয়ে দেখতে ভারত উচ্চ-পর্যায়ের তদন্ত কমিটি গঠন করেছে- বলেছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র।

রয়টার্স
Published : 29 Nov 2023, 01:00 PM
Updated : 29 Nov 2023, 01:00 PM

যুক্তরাষ্ট্রে খালিস্তানপন্থি শিখ বিচ্ছিন্নতাবাদী নেতা গুরপতবন্ত সিংহ পান্নুনকে হত্যার চক্রান্ত নস্যাৎ করে মার্কিন কর্তৃপক্ষ এ নিয়ে নয়াদিল্লিকে সতর্ক করার পর যুক্তরাষ্ট্রের নিরাপত্তা উদ্বেগের বিষয়টি আনুষ্ঠানিকভাবে তদন্ত করে দেখা হবে বলে জানিয়েছে ভারত।

বুধবার ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয় একথা জানায়। পান্নুনকে হত্যার চক্রান্ত সংশ্লিষ্ট সমস্ত বিষয় খতিয়ে দেখতে ভারত একটি উচ্চ পর্যায়ের তদন্ত কমিটি গঠন করেছে বলেও জানিয়েছেন দেশটির পররাষ্ট্র বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র অরিন্দম বাগচি।

এর আগে গত সপ্তাহে ‘দ্য ফিনান্সিয়াল টাইমস’ পত্রিকার খবরে বলা হয়েছিল, মার্কিন নাগরিক খালিস্তানপন্থি এক শিখ নেতাকে যুক্তরাষ্ট্রের মাটিতেই হত্যার চক্রান্ত করা হয়েছিল। সেই চক্রান্ত যুক্তরাষ্ট্র কর্তৃপক্ষ নস্যাৎ করেছে এবং এ চক্রান্তে নয়াদিল্লি জড়িত থাকতে পারে আশঙ্কায় ভারতকে সতর্কও করে দিয়েছে।

ফিনান্সিয়াল টাইমসের খবর অনুযায়ী, ওই চক্রান্তের নিশানা ছিলেন যুক্তরাষ্ট্র এবং কানাডার নাগরিক গুরপতওয়ন্ত সিং পান্নুন; যিনি ভারতে নিষিদ্ধ খলিস্তানপন্থি সংগঠন শিখ ফর জাস্টিস (এসএফজে)-এর নেতা। যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা, যুক্তরাজ্য-সহ কয়েকটি দেশে সক্রিয় রয়েছে এসএফজে। ভারতের পাঞ্জাবে ‘স্বাধীন ও সার্বভৌম’ রাষ্ট্র গড়ার দাবি তুলেছে তারা।পান্নুনকে ২০২০ সালে 'জঙ্গি' ঘোষণা করেছে ভারত।

গত জুন মাসে কানাডায় শিখ বিচ্ছিন্নতাবাদী হরদীপ সিং নিজ্জার হত্যার পরই আরেক খালিস্তানি নেতা পান্নুকে হত্যার চক্রান্তের তথ্য মিত্র দেশগুলোকে জানায় যুক্তরাষ্ট্র। কানাডা সরকার নিজ্জার হত্যাকাণ্ডে ভারতীয় চরদের জড়িত থাকার অভিযোগ করেছিল। তবে ভারত এসব অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করে তা অযৌক্তিক ও রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত বলে অভিহিত করে। এ নিয়ে দু’দেশের সম্পর্ক তিক্ত হয়।

ভারত-কানাডা সম্পর্ক তলানিতে ঠেকার দু’মাস পরই পান্নুন হত্যা চক্রান্ত নিয়ে ফিন্যান্সিয়াল টাইমসের ওই প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। এতে আরও বলা হয়েছিল, ভারতকে কূটনৈতিক সতর্কবার্তা দেওয়া ছাড়াও, মার্কিন ফেডারেল কৌঁসুলিরা নিউ ইয়র্ক জেলা আদালতে অন্তত একজন সন্দেহভাজনের বিরুদ্ধে অভিযোগও দায়ের করেছেন।

হোয়াইট হাউজ পান্নুন হত্যাচেষ্টার চক্রান্তের বিষয়টি ‘অত্যন্ত গুরুত্ব সহকারে’ নিয়েছে এবং ভারতের ‘সবচেয়ে উর্ধ্বতন পর্যায়ে’ বিষয়টি নিয়ে কথা বলেছে বলে জানিয়েছে।

এ বিষয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলার সময় ভারতের পররাষ্ট্র বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র বাগচি বলেন, “দ্বিপক্ষীয় নিরাপত্তা সহযোগিতা নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে আলোচনার সময় মার্কিন পক্ষ সংগঠিত অপরাধী, অবৈধ বন্দুক ব্যবসায়ী, সন্ত্রাসী এবং অন্যান্যদের সম্পর্কে কিছু তথ্য আমাদের কাছে শেয়ার করেছে।

“এ তথ্য দু’দেশের জন্য উদ্বেগের বিষয় এবং তারা এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ভারত এসব তথ্য গুরুত্ব-সহকারে নিয়েছে। কারণ তা আমাদের জাতীয় নিরাপত্তার স্বার্থেও আঘাত করেছে এবং সংশ্লিষ্ট বিভাগ এরই মধ্যে বিষয়গুলো খতিয়ে দেখতে শুরু করেছে।

“এরই প্রেক্ষাপটে একথা জানানো হয়েছে যে, গত ১৮ নভেম্বরে ভারতের সরকার এই সব বিষয় খতিয়ে দেখতে উচ্চ-পর্যায়ের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে,” বলেন বাগচি। এই কমিটির তদন্ত প্রতিবেদনের ওপর ভিত্তি করে ভারত পরবর্তী পদক্ষেপ নেবে বলেও জানান তনি।

গুরপতবন্ত সিংহ পান্নুন যুক্তরাষ্ট্রের অধিবাসী। তার যুক্তরাষ্ট্র এবং কানাডার দ্বৈত নাগরিকত্ব রয়েছে। যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য এবং কানাডায় তার সংগঠন এসএফজে- এর কার্যালয় আছে।

২০১৯ সাল থেকেই ভারতের এনআইএ-র নজরদারিতে রয়েছেন পান্নুন। ওই বছরই কেন্দ্রীয় তদন্তকারী এই সংস্থাটি তার বিরুদ্ধে প্রথম মামলা করেছিল। তার বিরুদ্ধে হুমকি দেওয়া, পাঞ্জাব এবং ভারতের অন্যান্য অংশে সন্ত্রাস ছড়ানোর মতো অভিযোগ ছিল।