‘ফেদেরারকে ছাড়া টেনিস আগের মতো থাকবে না’

টেনিসের এই মহাতারকার অবসরের ঘোষণায় আবেগ ছুঁয়ে যাচ্ছে বর্তমান ও সাবেক খেলোয়াড়দের।

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 15 Sept 2022, 05:22 PM
Updated : 15 Sept 2022, 05:22 PM

২৪ বছরের পেশাদার টেনিস ক্যারিয়ার। দেড় হাজারের বেশি ম্যাচ খেলার অভিজ্ঞতা। কোর্টে কতই না সুন্দর মুহূর্ত উপহার দিয়েছেন রজার ফেদেরার। গড়েছেন কত রেকর্ড, ঘরে তুলেছেন কত শিরোপা। টেনিসের এই মহাতারকার অবসরের ঘোষণায় আবেগ ছুঁয়ে যাচ্ছে বর্তমান ও সাবেক খেলোয়াড়দের। তাদের কারো কারো মতে, ফেদেরারকে ছাড়া কখনোই আগের মতো থাকবেন না টেনিসের দুনিয়া।

লম্বা সময় ধরে চোটের সঙ্গ লড়াই করছেন ফেদেরার। ২০২১ সালের জুলাইয়ের পর থেকে তো প্রতিযোগিতামূলক কোনো ম্যাচই খেলেননি সুইস এই তারকা। অবশেষে সব কিছুর ইতি টেনে দেওয়ার ঘোষণা বৃহস্পতিবার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দেন ৪১ বছর বয়সী এই খেলোয়াড়।

চলতি মাসের শেষ দিকে লন্ডনে অনুষ্ঠেয় লেভার কাপ দিয়ে বিদায় জানাবেন ফেদেরার। অনুপ্রেরণাদায়ী ক্যারিয়ারের জন্য টুর্নামেন্ট কর্তৃপক্ষ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তাকে সাধুবাদ জানান।

“অসাধারণ প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ ক্যারিয়ারের জন্য অভিনন্দন। অনুপ্রেরণার সীমাহীন উৎস হওয়ার জন্য ধন্যবাদ।”

মাত্র ১৬ বছর বয়সে ১৯৯৮ সালে ফেদেরারের পেশাদার টেনিসে অভিষেক হয়। ক্যারিয়ারের প্রথম গ্র্যান্ড স্ল্যাম জেতেন তিনি ২০০৩ সালের উইম্বলডনে।

অল ইংল্যান্ড ক্লাবে ছেলেদের এককে রেকর্ড আটটি শিরোপা তার। ২০০৩ থেকে ২০০৭ পর্যন্ত জিতেছিলেন টানা পাঁচটি। উইম্বলডনের পেইজ থেকে ফেদেরারকে সাফল্যমণ্ডিত ক্যারিয়ারের জন্য ধন্যবাদ জানানো হয়।

“রজার, কোথা থেকে আমরা শুরু করব? তোমার এই পথচলা এবং চ্যাম্পিয়ন হয়ে ওঠার সাক্ষী হতে পারা বিশেষ কিছু। আমাদের কোর্টের শোভা বাড়াচ্ছ, এই দৃশ্য আমরা মিস করব। তবে এখন কেবল বলতে পারি, অনেক সুখস্মৃতি ও আনন্দ দেওয়ার জন্য তোমাকে ধন্যবাদ।”

টেনিস কোর্টে ছিলেন একে অপরের প্রতিদ্বন্দ্বী। তবে কোর্টের বাইরে ফেদেরারের সঙ্গে সম্পর্কটা দারুণ ছিল রাফায়েল নাদালের। ফেদেরারের জেতা ২০টি গ্র্যান্ড স্ল্যামের রেকর্ড ছাড়িয়ে যাওয়াদের একজন তিনি। স্প্যানিশ এই তারকা গ্র্যান্ড স্ল্যাম জিতেছেন সর্বোচ্চ ২২ বার। আরেকজন হলেন সার্বিয়ার নোভাক জোকোভিচ (২১)।

আগামী ২৩ সেপ্টেম্বর শুরু হতে যাওয়া লেভার কাপে ইউরোপ দলে আছেন ফেদেরার। ওই টুর্নামেন্টে দেখা হওয়ার অপেক্ষায় আছেন টেনিসের আরেক মহাতারকা নাদাল। 

“প্রিয় রজার, আমার বন্ধু ও প্রতিদ্বন্দ্বী। এই দিনটি যদি কখনও না আসত। আমার জন্য এবং ক্রীড়াঙ্গনের জন্য দিনটি বেদনার। এত বছর ধরে তোমার সঙ্গে কোর্ট ও কোর্টের বাইরে দারুণ সব মুহূর্ত কাটানো আনন্দের তো বটেই, সম্মান ও বিশেষ কিছুও।”

“ভবিষ্যতে আমাদের শেয়ার করার আরও অনেক মুহূর্ত আসবে, একসঙ্গে এখনও অনেক কিছু করার বাকি আছে। এখন তোমার স্ত্রী মিরকা, বাচ্চাদের ও পরিবার নিয়ে ভালো থাকো এটাই কামনা করি। আর সামনে যা হতে যাচ্ছে সেগুলো উপভোগ করো। লন্ডনে দেখা হবে।”

২০০৯ সালে ফেদেরারকে হারিয়েই ক্যারিয়ারের একমাত্র গ্র্যান্ড স্ল্যাম জিতেছিলেন হুয়ান মার্তিন দেল পোর্তো। সাবেক এই ইউএস ওপেন চ্যাম্পিয়নের মতে, টেনিস দুনিয়া আর আগের মতো থাকবে না।

“তোমাকে ভালোবাসি, রজার। টেনিস ও আমার জন্য তুমি যা করেছ তার জন্য ধন্যবাদ। তোমাকে ছাড়া টেনিসের দুনিয়া কখনোই আগের মতো থাকবে না।” 

২০০৯ সালের উইম্বলডন ফাইনালে ফেদেরারের কাছে হেরেছিলেন অ্যান্ডি রডিক। ফেদেরারের সঙ্গে কোর্টে সময় কাটানো যুক্তরাষ্ট্রের এই টেনিস খেলোয়াড়ের কাছে বড় পাওয়া।

“চিয়ার্স রজার। স্মৃতির জন্য ধন্যবাদ বন্ধু। আমাদের খেলায় সবচেয়ে পবিত্র মাঠে (তোমার সঙ্গে) সময় কাটাতে পারা সত্যি সম্মানের ছিল। ভুলে যেও না।”

যাকে আদর্শ মেনে টেনিসে এসেছেন ডেনিস শাপোভালোভ, সেই ফেদেরারের অবসরের ঘোষণায় আবেগ ধরে রাখতে পারেননি কানাডিয়ান এই খেলোয়াড়।

“আমার এবং আরও অনেকের আদর্শ। সবকিছুর জন্য ধন্যবাদ রজার। আপনার সঙ্গে একই কোর্টে খেলতে পারা বিশেষ পাওয়া।”

সাবেক ইংলিশ ফুটবল গ্রেট ও টিভি উপস্থাপক গ্যারি লিনেকারের জন্য ফেদেরারের খেলা দেখা ছিল সবচেয়ে খুশির মুহূর্তগুলোর একটি।

“তোমার খেলা দেখা আমার জীবনের সবচেয়ে আনন্দের একটি। অনেকের জন্য অনেক খুশির মুহূর্ত নিয়ে এসেছ তুমি। পরবর্তী জীবনের জন্য শুভকামনা।”

অ্যান্ডি মারের মা জুডি মারে লিখেছেন, “দুর্দান্ত একটি যুগের সমাপ্তি।”

দুইবার উইম্বলডন জেতা চেক প্রজাতন্ত্রের নারী টেনিস খেলোয়াড় পেত্রা কেভিতোভার চোখে, ফেদেরার সবার জন্য অনুপ্রেরণা।

“রজার, আপনি সবসময়ই আমার জন্য বিশাল অনুপ্রেরণা…আমি সর্বদা আপনাকে সর্বোচ্চ সম্মান দিয়েছি এবং অসাধারণ একটি ক্যারিয়ারের জন্য আপনাকে অভিনন্দন জানাতে চাই। আপনাকে ছাড়া টেনিস আগের মতো থাকবে না। ধন্যবাদ।”

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক