‘শাভির কথা মনে ধরে যাওয়ায় চেলসিকে না করেছি’

বার্সেলোনায় যোগ দেওয়ার সিদ্ধান্তের পেছনে ফরাসি ডিফেন্ডার জুল কুন্দে মূল কৃতিত্ব দিলেন কোচ শাভি এরনান্দেসকে।

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 19 Sept 2022, 05:15 PM
Updated : 19 Sept 2022, 05:15 PM

চেলসিতে যোগ দেওয়ার অনেকটা কাছাকাছি চলে গিয়েছিলেন। সেখান থেকে শেষ মুহূর্তে মত বদলে বার্সেলোনায় যোগ দেন জুল কুন্দে। অবশেষে এর পেছনের কারণ খোলাসা করলেন এই ফরাসি ডিফেন্ডার। বললেন, কাতালান দলটির কোচ শাভি এরনান্দেসের সঙ্গে আলোচনা মনে ধরে যাওয়াতেই চেলসিকে না করে দেন তিনি।

গ্রীষ্মের দলবদলে নতুন খেলোয়াড় দলে আনা নিয়ে ভালোই লড়াই হয় বার্সেলোনা ও চেলসির। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য একটি ছিল সেভিয়া থেকে কুন্দের লা লিগার ক্লাবটিতে যোগ দেওয়া। গণমাধ‍্যমের খবর অনুযায়ী ২৩ বছর বয়সী ফুটবলারকে দলে টানতে শাভির দলকে গুনতে হয়েছে ৫ কোটি ৫০ লাখ ইউরো।

তবে জোর গুঞ্জন ছিল কুন্দে যোগ দিতে যাচ্ছিলেন চেলসিতেই। সংবাদমাধ্যেম বিভিন্ন সময়ে খবরে এসেছিলে যে, ইংলিশ ক্লাবে যোগ দেওয়ার খুব কাছেই তিনি। কিন্তু শেষ সময়ে এসে তাদের হতাশ করে বার্সেলোনায় যোগ দেন কুন্দে।

চলতি মৌসুমে এরই মধ্যে বার্সেলোনার হয়ে কুন্দে খেলে ফেলেছেন কয়েকটি ম্যাচ। গত রোববার লেকিপের সঙ্গে এক আলাপচারিতায় তিনি পেছনে ফিরে তাকিয়ে বললেন ক্লাবটিতে যোগ দেওয়ার কারণ। 

“কোচের (শাভি) সঙ্গে আলাপ হয়েছিল। আমরা মূলত ফুটবল নিয়ে কথা বলেছিলাম। তার কাছ থেকে আমি সত্যিকারের আত্মবিশ্বাস অনুভব করেছি, এটা দেখে যে আমার সম্পর্কে, আমার খেলা এবং আমার মান নিয়ে তার প্রকৃত ধারণা আছে।”

“আমি (টমাস) টুখেলের সঙ্গে কথা বলেছিলাম এবং আমি এটা অনুভব করি যে তিনি আমাকে দলে চান। তবে আমি (টুখেলের চেয়ে) শাভির বক্তব্য এগিয়ে রেখেছিলাম।”

কুন্দেকে চেলসিতে নিতে ব্যর্থ টমাস টুখেল চেলসিতে টিকতে পারেননি খুব বেশি সময়। দলের পড়তি পারফরম্যান্সের জেরে চলতি মাসে তাকে ছাঁটাই করে দেয় লন্ডনের ক্লাবটি।

কুন্দে জানালেন, বার্সেলোনার নতুন দিনের সঙ্গী হওয়ার চ্যালেঞ্জও তাকে উৎসাহ যুগিয়েছে ক্লাবটিতে যোগ দিতে।

“আমি একটি বিশাল ক্লাবে এসেছি, সফলতা যাদের নিত্যসঙ্গী, যদিও সম্প্রতি সেটা কম এসেছে। আমি এমন একটি প্রজেক্টে এসেছি যেটাকে আমি ঠিক পুনর্গঠন বলব না, কারণ আমাদের এরই মধ্যে একটি প্রতিযোগিতামূলক দল রয়েছে, দলটা বরং এখন আরও শক্তিশালী।”

“আমি এই নতুন পথচলার অংশ হতে, শিরোপার সন্ধান করতে এবং বার্সাকে সবসময়ের মতো সেরা ক্লাবগুলোর কাতারে ফিরিয়ে আনতে আগ্রহী ছিলাম।”

লা লিগায় ছয় ম্যাচে ৫ জয় ও এক ড্রয়ে ১৬ পয়েন্ট নিয়ে দুই নম্বর স্থানে আছে বার্সেলোনা। সমান ম্যাচে ১৮ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে রিয়াল মাদ্রিদ।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক